ঐক্যের ডাক দিলেন ট্রাম্প, তবে সংশয় কাটছে না | বিশ্ব | DW | 31.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

ঐক্যের ডাক দিলেন ট্রাম্প, তবে সংশয় কাটছে না

প্রথম ‘স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন' ভাষণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অ্যামেরিকায় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন৷ তবে অভিবাসনসহ অনেক বিভাজনমূলক নীতি থেকে সরে আসতে নারাজ তিনি৷

তর্জনগর্জন কিছুটা কমিয়ে সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বেশ কিছু ক্ষেত্রে আপোষের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন৷ সুইজারল্যান্ডের ডাভোসের পর প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথম ‘স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন' ভাষণেও সেই মনোভাব দেখা গেল৷ দেশে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করে অ্যামেরিকার সব মানুষের জন্য ইতিবাচক পদক্ষেপের কথা বললেন ট্রাম্প৷

একদিকে তিনি নিজের সমর্থকদের আশ্বাস দিতে কিছুটা তর্জনগর্জন করলেও অন্যদিকে বাকিদের মন জয় করার চেষ্টাও চালিয়েছেন৷ অভিবাসন, বাণিজ্য, পররাষ্ট্র নীতি থেকে শুরু করে জাতীয় সংগীত নিয়ে কড়া কথা শোনালেও সেইসঙ্গে এমন কিছু বিষয়ের উল্লেখ করলেন, যা বাকি ভোটারদের পছন্দ হতে পারে৷ ‘ড্রিমার্স' কর্মসূচির আওতায় থাকা বেআইনি তরুণ অভিবাসীদের সাহায্য করতে চান ট্রাম্প৷ অবকাঠামোর উন্নয়ন, কারাগার ব্যবস্থার ঢালাও সংস্কারের মতো বিষয় উল্লেখ করেন তিনি৷

দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক সাফল্যের জন্য বাহবা কুড়াতে কার্পণ্য করেন নি ট্রাম্প৷ কর্মসংস্থান ও বেতন-মজুরির হার বেড়ে চলায় তিনি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন৷ ট্রাম্প দাবি করেন, তাঁরই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের ফলে অর্থনীতি চাঙ্গা হয়ে উঠছে৷ বলা বাহুল্য, পূর্বসূরি বারাক ওবামার আমলেই অর্থনৈতিক উন্নতির উল্লেখ করেননি তিনি৷

ট্রাম্প মুখে যা বললেন, তা কাজে পরিণত করে দেখাতে পারবেন কি? এর আগেও তাঁকে দ্রুত মতবদল করতে দেখা গেছে৷ বিশেষ করে লাগামহীন টুইট বার্তায় তিনি প্রায়ই নিজের সাফল্য খর্ব করে থাকেন৷ আগামী কয়েক সপ্তাহে তাঁকে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিতে হবে, যার মধ্যে তাঁর প্রকৃত মনোভাবের প্রতিফলন ঘটবে৷ ৯ মাস পর সংসদ নির্বাচনের উপরেও তাঁর সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়তে বাধ্য৷ রিপাবলিকান দল কংগ্রেসের দুই কক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারালে ট্রাম্প-এর পক্ষে কোনো আইন অনুমোদন করানো কঠিন হয়ে পড়বে৷ বর্তমানে সেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা সত্ত্বেও তাঁকে বার বার বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে৷

‘স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন' ভাষণের একটা বড় অংশ জুড়ে অভিবাসন নিয়েই কথা বললেন ট্রাম্প৷ এই প্রশ্নে এখনো নিজের কড়া অবস্থানে অটল রয়েছেন তিনি৷ মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর গড়তে তিনি বদ্ধপরিকর৷ অভিবাসনের নিয়মকানুন আরও কড়া করতে তিনি ডেমোক্র্যাট দলের সমর্থনের ডাক দিয়েছেন৷ ‘ড্রিমার্স' কর্মসূচির ভবিষ্যৎ সম্পর্কে কিছুটা নরম মনোভাব দেখালেও তাঁর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কী হবে, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷

ট্রাম্প জানিয়েছেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামের দোহাই দিয়ে তিনি গুয়ান্তানামো কারাগার বন্ধ করার প্রক্রিয়া থামিয়ে দিয়েছেন৷ উল্লেখ্য, বারাক ওবামা শেষ পর্যন্ত এই মর্মে তাঁর প্রতিশ্রুতি পালন করতে পারেননি৷ ট্রাম্প বলেন, গুয়ান্তানামো থেকে ছাড়া পেয়ে সন্ত্রাসীরা সশস্ত্র সংগ্রামে নেমে পড়ে৷ মার্কিন সৈন্যদের আবার যুদ্ধক্ষেত্রে তাদের খতম করতে হয়৷

নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি পালন করতে অ্যামেরিকার অবকাঠামোর ঢালাও উন্নয়ন করতে চান ট্রাম্প৷ এর জন্য দেড় লক্ষ কোটি ডলার বরাদ্দ করতে কংগ্রেসের অনুমোদন লাগবে৷ তিনি বিরোধী ডেমোক্র্যাটদের উদ্দেশ্যে এক্ষেত্রে সহযোগিতার ডাক দিয়েছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়