এ কেমন সামর্থ্য, যা কখনো হয় না? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 19.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

এ কেমন সামর্থ্য, যা কখনো হয় না?

এবারের বাজেট প্রস্তাবে স্বাস্থ্যখাতের বরাদ্দ বাড়ানোর বিষয়টি বারবার উঠে এসেছে৷ সরকারের পক্ষ থেকে বারবার বলা হয়েছে, শুধু প্রকল্প বরাদ্দ দিলেই হবে না, তা বাস্তবায়নের ক্ষমতাও থাকতে হবে৷ তো প্রশ্ন হল, ক্ষমতা কবে হবে?

করোনা মহামারি শুরু হবার পর থেকে স্বাস্থ্যখাত নিয়ে আলোচনার শেষ নেই৷ ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্যখাত, কতটা বেহাল দশা তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছে এই করোনা -এমন সব কথায় মূল ধারার ও সামাজিক গণমাধ্যম সয়লাব৷ হবেই বা না কেন? পরিচিত-অপরিচিত বহু মানুষকে দেখেছি, করোনায় আক্রান্ত হলে হাসপাতালে যাবেন না ঠিকই করে রেখেছেন৷ অনেকে সর্দি কাশি শ্বাসকষ্টের উপসর্গ থাকার পরও সত্যিই যাননি৷ আবার অনেকে হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরে ঘুরেও চিকিৎসার সুযোগ পাননি৷ এমন ঘটনা একের পর এক দেখা যাচ্ছে৷
এখন প্রশ্ন হল, বাংলাদেশের মানুষের এখানকার স্বাস্থ্যখাতের ওপর আস্থার অভাব কি আজ থেকে? অবশ্যই না৷ এ বিষয়ে তাদের অভাব অভিযোগের সীমা নেই, ছিল না কখনো৷ এই মানুষগুলোই ভারতের মাদ্রাজ বা পুনেতে চিকিৎসার জন্য যান৷ ভারতের ভিসা অফিসে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা৷ অনেকে যান সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক, লন্ডন৷ তো যারা সবসময় দেশের বাইরে যান চিকিৎসা নিতে, তারা এবার পড়েছেন বিপাকে৷ করোনার সময় তো আর বাইরে যেতে পারবেন না৷ তাই দেশেই নিতে হবে চিকিৎসা৷ সমাজের এলিট শ্রেণির দু'চারজন অবশ্য চার্টার্ড বিমানে বিদেশ পাড়ি দিয়ে বেঁচেছেন৷ কিন্তু বাকিরা? তাদের চাপ বেড়েছে৷ তো এই চাপ এমনই হয়েছে, তা সামলাতে গিয়ে এই ভঙ্গুর দশা৷ আমার ধারণা, আস্থা ফিরিয়ে আনার এতটা চাপ চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর সম্ভবত এবারই প্রথম পড়েছে৷

তো চাপ দিলেই কি সব ঠিক হয়ে যাবে? হবে না৷ কারণ এই পরিস্থিতি তো একদিনে তৈরি হয়নি৷ যুগ যুগ ধরে তৈরি হয়েছে৷ আমরা আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা ভারত বা সিঙ্গাপুরের মত নিতে না পেরে আমরাই চিকিৎসার জন্য ভারত-সিঙ্গাপুর গিয়েছি৷ কিন্তু নিজেরা খুব বেশি বদলাইনি৷

যাই হোক, এত সব দেখে ভাবলাম এবার হয়ত হবে৷ কারণ, এবার সমাজের উঁচু শ্রেণির লোকেরাও টের পাচ্ছেন৷ সাধারণ গরীব-মধ্যবিত্তরা সবই মেনে নেয়৷ কিন্তু ধনী বা প্রভাবশালীদের ওপর এলে পরিবর্তন হয়৷ যেমন ধরুন, এই করোনা যদি আফ্রিকা বা এশিয়ার ভেতর সীমাবদ্ধ থাকত, তাহলে এ নিয়ে এত কথা কেই বা বলত? আজ অ্যামেরিকা-ইউরোপকে ধসিয়ে দেয়ায় এত কথা৷ এর আগে এবোলা, নিপাহ, সোয়াইন ফ্লু, সার্স, মার্সসহ কত ভাইরাস এল গেল৷ কই একটু আধটু ‘উহু আহা' ছাড়া আর কেউ কোন কথা বলেছে?

যাই হোক বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাত নিয়ে বলছিলাম৷ এত সব দেখে ভাবছিলাম, বাজেটে অন্তত স্বাস্থ্যখাত বদলের একটা রূপরেখা দেখা যাবে৷ কিন্তু কী শুনলাম? সামর্থ্য নেই, তাই বরাদ্দ কম৷ এ কেমন সামর্থ্য, যা কখনো হয় না?
বাজেটে বরাদ্দ দেয়া হয় প্রকল্প দেখে৷ প্রকল্প নেই, তাই বরাদ্দ নেই৷ প্রকল্প আসে মন্ত্রণালয় থেকে৷ মন্ত্রণালয় নিজেদের বাস্তবায়ন সক্ষমতা বিবেচনা করে প্রকল্প দেয়৷ কিন্তু সব প্রকল্প মন্ত্রণালয়কে বা সরকারি সংস্থাকে বাস্তবায়ন করতে হবে, এই দিব্যি কে দিয়েছে? কেন আমরা স্বাস্থ্যখাতের জন্য বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারে এমন দেশি-বিদেশি সংস্থাকে জড়াচ্ছি না? শুধু অবকাঠামো তৈরি নয়, পরিচালনাতেও কেন বাংলাদেশে দক্ষ প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে না? আর স্বাস্থ্য মানে কি শুধু ঔষধপত্র, যন্ত্রপাতি? গবেষণা ও ব্যবস্থাপনা সমান গুরুত্বপূর্ণ নয়কি? করোনার শুরু থেকেই তো সবচেয়ে দুর্বল মনে হয়েছে ব্যবস্থাপনাকে৷ করোনার মত দুর্যোগ পরিস্থিতি এলে কেমন করে মোকাবিলা করতে হবে? সেটা কে বা কারা ঠিক করবেন? কিংবা সাধারণভাবে হাসপাতালগুলোর সেবার মান নিয়ন্ত্রণ কে করছে? কেমন করে করছে?

HA Asien | Zobaer Ahmed

যুবায়ের আহমেদ, ডয়চে ভেলে

বিশ্লেষকরা তো বলেন, সবচেয়ে বড় সমস্যা লোকের অভাব৷ অর্থাৎ প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন দু'জায়গাতেই লোকের বড় অভাব৷ তাহলে তো লোকের দক্ষতা বাড়ানোর প্রকল্প দরকার৷ সবচেয়ে বেশি দরকার মন্ত্রণালয়গুলোর দক্ষতা উন্নয়ন৷ এই যে বাজেট প্রস্তাবে পরিচালন ব্যয় ধরা হয়েছে ৬০ ভাগ, এই ব্যয়ে কি মন্ত্রণালয়গুলো আগামী বছর আরো দক্ষ হয়ে উঠবে? পূর্বের অভিজ্ঞতা কি আমাদের আশাবাদী করে?

বাজেটের আগে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান কথা বলেছিলেন ডয়চে ভেলের সঙ্গে৷ সেখানে তিনি স্বাস্থ্যখাত প্রসঙ্গে একটি আশার কথা অবশ্য বলেছেন৷ তিনি বললেন, যদি কেউ পরেও প্রকল্প প্রস্তাব নিয়ে আসেন, এবং তা যদি বিবেচনাযোগ্য হয়, তাহলে তা দ্রুত পাশ ও বাস্তবায়ন করা হবে৷ আমি প্রশ্ন করেছিলাম, তা কেমন করে সম্ভব? তিনি বললেন, নিয়ম মেনেই সম্ভব৷

সে যাই হোক, যত ক্লিশেই শোনাক কথাটা এটাই সত্য, স্বাস্থ্যখাতকে ঢেলে সাজাতে হবে৷ এটা একদিনে হবে না৷ কিন্তু আমরা সঠিক পথে হাঁটা শুরু করেছি, তা অন্তত দেখতে চাই৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন