এশিয়ায় ভিডিও গেমে নারীর আগ্রহ বাড়ছে | বিষয় | DW | 14.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

এশিয়া

এশিয়ায় ভিডিও গেমে নারীর আগ্রহ বাড়ছে

গোটা এশিয়া জুড়ে ভিডিও গেমের প্রতি নারীদের আগ্রহ বাড়ছে৷ গুগলের একটি গবেষণা জানাচ্ছে একথা৷

প্রযুক্তি সংস্থা গুগলের একটি সাম্প্রতিক গবেষণা জানাচ্ছে, এশিয়ায় পুরুষদের তুলনায় নারীরা বেশি ভিডিও গেম খেলছেন৷ বিশেষ করে ভারত, চীন ও জাপানে নারীদের মাঝে বাড়তি আগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷

বিবিসির এক প্রতিবেদন গুগলের গবেষণার বরাত দিয়ে জানাচ্ছে, ২০১৯ সালে এশিয়ায় নারী খেলোয়াড়দের হার ১৯ শতাংশ বেড়েছে৷ ভিডিও গেমের বিশ্বব্যাপী পরিসংখ্যান বলছে, শুধু এশিয়া থেকেই আসে মোট ৪৮ শতাংশ এই সংক্রান্ত আয়৷ গুগলের এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের কর্মকর্তা রোহিণী ভূষণ বলেন, ‘‘প্রতি বছর যে লাখ লাখ নতুন খেলোয়াড় আসছেন তার মধ্যে নারীদের অংশগ্রহণ লক্ষণীয়৷''

২০১৯ সালে নারী খোলোয়াড়দের সংখ্যা ৩৮ শতাংশ বৃদ্ধি পায়৷ বর্তমানে, বিশ্বজুড়ে রয়েছেন মোট ১৩৩ কোটি ভিডিও গেম খেলোয়াড়, জানাচ্ছে গুগলের পার্টনার গবেষণা সংস্থা নিকোস পার্টনারস৷

কিন্তু এশিয়ায় পুরুষের চেয়ে বেশি নারীরাই ভিডিও গেমের জগতে৷ সবচেয়ে বেশি ৪৫% নারী খেলোয়াড় রয়েছেন চীনে, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপানে রয়েছেন ৪০ শতাংশ নারী ভিডিও গেমার৷

কেন নারীদের অংশগ্রহণ বাড়ছে?

গুগল এশিয়া প্যাসিফিকের অ্যাপস, পার্টনারশিপ ও মার্কেটিং বিভাগের প্রধান ম্যাট ব্রকলেহার্স্ট বলেন, ‘‘মোবাইলে ভিডিও গেম খেলায় যে মজা, স্বাধীনতা ও সহজ ইন্টারফেস রয়েছে, তা-ই টেনে আনছে নারীদের৷ বিশেষ করে এশিয়ায় যেভাবে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করার প্রবণতা বাড়ছে, তা-ও এই ধারার জন্য গুরুত্বপূর্ণ৷''

এছাড়া, নানা ধরনের প্রতিযোগিতা, স্পন্সরশিপ ও পুরস্কারের সূত্রে ভিডিও গেমের দুনিয়ায় নারী খেলোয়াড়রা আয় করেছে প্রায় ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায় ১৭০ কোটি টাকা) মূল্যের অর্থ৷ নারীদের আকর্ষণক্ষমতা তাদেরকে ক্রমেইগেম জগতে গুরুত্বপূর্ণ করে তুলছে বলেও জানাচ্ছে প্রতিবেদনটি৷

পাশাপাশি, এশিয়ায় আজকাল দেখা যাচ্ছে নারীদের জন্য বিশেষ ভিডিও গেম লিগ, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম ‘ফিমেল ই-স্পোর্টস লিগ'৷

এই লিগের খেলোয়াড় ২৫ বছর বয়েসি আমান্ডা লিমের ভিডিও গেমের জগতে প্রবেশ তার ভাই ও চাচার হাত ধরে৷ তিনি বলেন, ‘‘নারী খোলোয়াড়রা এখনও তুলনায় কম জনপ্রিয় হলেও এখন সময় এসেছে এই ধারণা পাল্টাবার৷ আমরা এক্ষেত্রে পুরুষদের সমান শক্তিশালী৷''

সিঙ্গাপুর ও মালয়শিয়ার নারী খেলোয়াড়দের দল ‘উই.বেটারস'-এর হয়ে খেলেন লিম৷

তবুও মূলধারার বাইরেই নারীরা

রেয়া আয়ুনান পেশাদার ভিডিও গেম খেলোয়াড়৷ ব্যাটল রয়ালের মতো গেম তিনি এক সময় দিনে টানা ছয় ঘন্টা ধরে খেলতেন৷ তিনিও লক্ষ্য করেছেন নারী খেলোয়াড়দের সংখ্যা৷ রেয়ার মতো ১৯ বছর বয়সি ভ্যালেরি ওং দিনে তিন থেকে সাত ঘন্টা ভিডিও গেম খেলেন৷ প্রথমবার ‘কল অফ ডিউটি' খেলতে গিয়েই তার চোখে পড়ে কতটা নারী-পুরুষ অসাম্য রয়েছে এই জগতে৷

সমাজের অন্তর্নিহিত লিঙ্গবৈষম্যের প্রভাব রেহাই দেয়নি ভিডিও গেমের দুনিয়াকেও৷ রেয়া বলেন, ‘‘আমি অনলাইনেগেম খেলতে গিয়েই একবার যৌন নিপীড়নের শিকার হই৷ আমাকে নিয়ে নানা ধরনে মিম বানানো হয়৷ কোনো নারী আজও গেম খেলতে গিয়ে জনসমক্ষে চলেএলেই মানুষ নেতিবাচক কথাবার্তা বলতে শুরু করে৷ অকারণ দোষ ধরে, বিরক্ত করে আমাদের অনুৎসাহিত করা হয়৷''

গেম বিশেষজ্ঞদের মতামত, এমন পরিস্থিতি এড়াতে নারী খেলোয়াড়দের এমন ‘ইউজার নেম' বাছা উচিত, যা খেলোয়াড়ের লিঙ্গপরিচয় প্রকাশ করে না৷

এসএস/এসিবি (সূত্র: বিবিসি)