‘এমন ডাক্তারদের বিরুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেয়া উচিত′ | পাঠক ভাবনা | DW | 07.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘এমন ডাক্তারদের বিরুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেয়া উচিত'

ব্রিটেনের একটি মেডিকেল জার্নালের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের ডাক্তাররা একজন রোগীকে গড়ে মাত্র ৪৮ সেকেন্ড সময় দেন৷ এ প্রসঙ্গে চিকিৎসা বিষয়ক নানা অভিজ্ঞতার কথা পাঠকরা তুলে ধরেছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায়৷

ডাক্তারি হচ্ছে মানুষের সেবার কাজ, তাইরোগীর প্রতি ডাক্তারদের আরো দায়িত্বশীল হওয়া উচিতবলে মনে করেন পাঠক রিশা৷ আর রহুন আমিন সজীব মনে করেন, বাংলাদেশের ডাক্তার দেখানোর খরচ পৃথিবীর অন্য যে কোনো উন্নত দেশের তুলনায় ৪৮ গুণ বেশি৷ আর সেকারণেই নাকি অনেক মানুষ রোগ পুষে রাখেন অযাচিত খরচের ভয়ে৷ বাইরের দেশে রোগকে ভয় পায়, চিকিৎসাকে না৷ শুধুমাত্র আমাদের দেশেই রোগী বাঁচাতে গিয়ে স্বজনকে মরতে হয় অর্থাভাবে৷

ওবায়দুল্লাহ মিজানের বিদ্রুপাত্মক মন্তব্য,‘‘ বাংলাদেশের ডাক্তারা খুবই ভালো, তাঁরা রোগী না দেখেই চিকিৎসা করতে পারেন৷''

পাঠক মিন্টু মোরশেদের অভিজ্ঞতা এরকম, ‘‘বাংলাদেশের ডাক্তারদের অভিজ্ঞতা অনেক বেশি, চেহারা দেখেই সব বলে দিতে পারে৷  আমি তো একবার মাথা ব্যথার জন্য তিন মাস ঘুরেছি, রোগ নির্ণয় করতে পারেনি৷''

এ বিষয়ে আজমির পাটোয়ারী মনে করেন, ডাক্তাররা আরো কম সময় দেন রোগীদের৷ তবে পাঠক শেখ ফরহাদ বিন আবেদিন মনে করেন, দেশের নেতা-নেত্রী যদি  নিজের দেশেই চিকিৎসা করাতে বাধ্য হয়, তাহলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতি হতে পারে৷

অন্যদিকে আবরাহাম বলছেন , তাঁর পরিচিত এক ডাক্তার নাকি  প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০০ রোগী দেখেন৷ আর সুব্রত শীল জানান, সে কারণেই নাকি বাংলাদেশের রোগীরা সুচিকিৎসার জন্য ভারতে যান৷ বাংলাদেশর অনেক ডাক্তার রোগীদের সাথে ভালোভাবে কথা বলেন না বলেও মনে করেন তিনি৷

তবে ভিন্নমত পাঠক জামানের৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘ব্রিটেনের একটি মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত পুরো রিপোর্ট না পড়ে মন্তব্য করা সম্ভব না৷''

বন্ধু মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন মনে করেন, এমন ডাক্তারদের বিরুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন