‘এভাবে চললে পাকিস্তানের সবাইকে টিকা দিতে এক দশক লাগবে′ | বিশ্ব | DW | 12.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান

‘এভাবে চললে পাকিস্তানের সবাইকে টিকা দিতে এক দশক লাগবে'

মোট জনসংখ্যার তুলনায় পাকিস্তানের খুব কম মানুষই করোনার টিকা পেয়েছেন৷ এখন যা পরিস্থিতি তাতে দুটি কারণে সবাইকে টিকা দিতে ১০ বছরও লেগে যেতে পারে বলে কোনো কোনো বিশেষজ্ঞের আশঙ্কা৷

সরকারি হিসেব অনুযায়ী, পাকিস্তানে এ পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন আট লাখ ৬০ হাজার জন আর করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৯ হাজারেরও বেশি৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ব্রাজিল, সাউথ আফ্রিকা এবং ব্রিটেনের ভ্যারিয়েন্ট হানা দিলে সংক্রমণ এবং মৃত্যুহার খুব দ্রুত বাড়তে পারে৷ সে আশঙ্কা দূরে সরাতে সবচেয়ে কম সময়ে সবচেয়ে বেশি মানুষকে টিকা দেয়া দরকার৷ কিন্তু সাড়ে ২১ কোটিরও বেশি মানুষের দেশটিতে টিকা দেয়ার হার খুবই কম৷ গত ৬ মে পর্যন্ত মাত্র ৩২ লাখ ২০ হাজার মানুষ পেয়েছেন করোনার টিকা, যা কিনা মোট জনসংখ্যার মাত্র ০.৮ শতাংশ৷ একশ জনে কতজন টিকা পেয়েছে? সেই হিসেবটাও ভয়াবহ রকমের কম৷ সারা বিশ্বে যেখানে ১০০ জনে গড়ে কমপক্ষে ১৬.৪৪ জন টিকা নিয়েছেন, পাকিস্তানে সেই সংখ্যাটা মাত্র ১.৫৩!

পাকিস্তানের মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য ডা. আব্দুল গফুর শোরো মনে করেন, কাজ এই গতিতে চলতে থাকলে দুই-তিন বছরে দেশের সবাইকে টিকা দেয়া যাবে না৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘এভাবে চলতে থাকলে দেশের সবাইকে টিকা দিতে এক দশকও লেগে যেতে পারে৷''

টিকাদেয়াযেকারণেএতমন্থর

লাহোরকেন্দ্রিক চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ ডা. আশরাফ নিজামী মনে করেন, করোনা টিকা দেয়ায় পাকিস্তান এত পিছিয়ে আছে দুটি কারণে; এক, পর্যাপ্ত টিকা সংগ্রহে সরকারের ব্যর্থতা, দুই, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টিকাবিরোধী অপপ্রচার৷

পাকিস্তানের জনগণের বেশ বড় একটি অংশ বরাবরই টিকাবিরোধী৷ সে কারণে বিশ্বের প্রায় সব দেশ থেকে পোলিও নির্মূল হলেও রোগটি পাকিস্তানে এখনো ব্যাপকভাবেই রয়েছে৷ দক্ষিণ এশিয়ার সব চেয়ে বড় মুসলিম অধ্যুষিত দেশটিতে পোলিও টিকা দিতে গিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা হামলার শিকার হয়েছেন বহুবার৷ আততায়ীর গুলিতে স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে পাকিস্তানে৷

দেশটিতে করোনা টিকাবিরোধী প্রচারও চলছে শুরু থেকে৷ প্রথম সারির বেশ কয়েকজন ধর্মীয় নেতার পাশাপাশি এক সামরিক বিশ্লেষকও মারাত্মক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কথা বলে সবার প্রতি এই টিকা না নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

ডা. আশরাফ নিজামী মনে করেন, সরকার দ্রুত পর্যাপ্ত টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ নিলে এবং সর্বস্তরে টিকাবিরোধী অপপ্রচার বন্ধ করলেই কেবল করোনার দেশব্যাপী সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধ করা যাবে৷

এ ক্ষেত্রে আশার কথা শুনিয়েছেন পাকিস্তানের ড্রাগস অ্যান্ড রেগুলেটরি অথরিটির ডা. আব্দুর রশিদ৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘আমাদের ভাগ্য ভালো যে, চীনের কাছ থেকে ১৫ লাখেরও বেশি টিকা পেয়েছিলাম৷ এখন আমরা সব জায়গা থেকে টিকা আনার চেষ্টা করছি৷''

টিকার অপ্রতলুতার কথা স্বীকার করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক কর্মকর্তা ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা এখন যত বেশি সম্ভব টিকা সংগ্রহের চেষ্টা করছি৷ আশা করছি আগামী জুন মাসের মধ্যে এক কোটি ৮৭ লাখ টিকা পেয়ে যাবো৷''

এস খান (ইসলামাবাদ)/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়