এবার হলো না বেলজিয়ান চমক | খেলাধুলা | DW | 10.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফুটবল

এবার হলো না বেলজিয়ান চমক

আন্ডারডগ হিসেবে বিশ্বকাপে এসে একের পর এক চমক দেখিয়েছে বেলজিয়াম৷ বিশ্বকাপ জেতার স্বপ্নও দেখিয়েছে অনেককে৷ কিন্তু সেমিফাইনালে ফ্রান্সের সঙ্গে আর পারলো না৷ দাপট দেখিয়ে খেলেও হার মানতে হলো ১-০ গোলে৷

৮৬'র বিশ্বকাপের কথা কি ভুলতে পারবে বেলজিয়াম? সেবারই একমাত্র ও প্রথমবার এমন আসরে সেমিফাইনাল খেলেছিল তারা৷ তখন আর্জেন্টিনার কাছে শেষ চার থেকে বিদায়ের পর তৃতীয় স্থান নির্ধারনী ম্যাচটি হয়েছিল ফ্রান্সের বিপক্ষেই৷ ৪-২ গোলে হেরেছিল তারা৷ ৩২ বছর পর আবারো এমন কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আসরে ফ্রেঞ্চদের মুখোমুখি বেলজিয়াম৷ অবশ্য ২০১৫-তে আছে প্রীতি ম্যাচ জয়ের স্বাদ৷

এদিকে, গ্যালারির ভিভিআইপি বক্সে ফ্রান্সের যুবক প্রেসিডেন্ট এমানুয়ের মাক্রোঁ৷ তাই মাঠে অনুপ্রাণিত গাঢ় নীল জার্সি পরা ফ্রান্সের যুবক ফুটবলাররা৷ অন্যদিকে, প্রতিপক্ষের শক্তিও আরেক ফ্রেঞ্চ৷ তিনি থিয়েরি অঁরি৷ এই সাবেক ফ্রেঞ্চ তারকা স্ট্রাইকার এখন বেলজিয়ামের সহকারী কোচ৷ আর ফ্রেঞ্চ কোচ দেশঁ কীভাবে চিন্তা করেন তাও জানা আছে তাঁর৷ তাই এখানে আছে গুরুশিষ্যের লড়াইও৷

FIFA Fußball-WM 2018 in Russland | Halbfinale -Frankreich vs Belgien | Final (1:0)

ম্যাচ শেষে এভাবেই লাফিয়ে উঠেছিলেন মাক্রোঁ

এদিকে, উরুগুয়ের সঙ্গে জয়ী দলকেই মাঠে নামান দেশঁ৷ তবে একটি পরিবর্তন ছিল৷ সাসপেনশন কাটিয়ে দলে ফিরেছেন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার মাটুইডি৷ এর অর্থ বাদ গেছেন টলিসো৷ তবে বেলজিয়াম দলের ফরমেশনে ব্যাপক পরিবর্তন করেছেন রবার্টো মার্টিনেজ৷ রাইট ব্যাক মুনিয়ের এই ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ থাকায়, তার জায়গায় নামিয়ে এনেছেন চাডলিকে৷ আর ডে ব্রয়নেকেও মিডফিল্ড থেকে নামিয়ে লেফটব্যাকে নিয়ে এসেছেন৷ ডেম্বেলে মিডফিল্ড পর্যন্ত খেলবেন৷ এমন কম্বিনেশনে আগে খেলেনি বেলজিয়াম৷

সে যাই-হোক, কাগজে কলমে ফ্রান্স যে এগিয়ে, তাতে কোনো ভুল নেই৷ কিন্তু এগিয়ে ছিল ব্রাজিলও৷ কিন্তু এই বেলজিয়ামের ফেলাইনি, ডে ব্রয়নে, চাডলি, লুকাকুরা একসঙ্গে হলে কী করতে পারেন, তা এই আসরে অন্তত হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছে সবাই৷

এদিনও সেন্ট পিটার্সবুর্গ স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই তাদের সামলাতে গলদঘর্ম হতে হচ্ছিল ফ্রেঞ্চ ডিফেন্সকে৷ দু'একবার দলকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন ফ্রেঞ্চ গোলরক্ষক লরিস৷ যেমন, ২২ মিনিটে বেলজিয়ান ডিফেন্ডার আলডেরভেরিল্ড ১৪ গজ দূরে থেকে ঘুরিয়ে শট করেন বাঁ পায়ে৷ কিন্তু সেখানে লরিসের দক্ষতা ছিল অনন্যসাধারণ৷ বিপদ হলো না ফ্রান্সের জন্য৷

FIFA Fußball-WM 2018 in Russland | Halbfinale -Frankreich vs Belgien

বেশ চাপিয়ে খেলেছে বেলজিয়াম

এরই মধ্যে গ্রিজমানকে কেন্দ্র করে ফ্রান্স দু‘একবার আক্রমণ চালিয়েছে৷ কিন্তু সেখান থেকে কোনো সফলতা আসেনি দেশঁর শিষ্যদের৷

২৪ মিনিটে নিজেদের ডিফেন্স থেকে ফ্রেঞ্চ ডিফেন্ডার উমতিতি লম্বা এক পাস দেন জিরুডের কাছে৷ কিন্তু বিশ্বকাপের খেলায় গত সাত ঘন্টায় কোনো বলই টার্গেটে শট নিতে পারেননি এই চেলসি ফরোয়ার্ড৷ ম্যাচের প্রথমার্ধেও সেই ধারা অব্যাহত রাখলেন৷

৩৯ মিনিটে এবার পরিষ্কার সুযোগ হাতছাড়া করলেন পাভার্ড৷ স্টুটগার্টের এই ডিফেন্ডার এমবাপের একটি পাস থেকে বেলজিয়ান গোলরক্ষক কোর্টোয়াকে সামনাসামনি পেয়ে যান৷ কিন্তু তাঁকে অতিক্রম করতে পারেনি তাঁর বাড়ানো বলটি৷

অতিরিক্ত সময়ে আরেকবার আক্রমণে বেলজিয়াম৷ ডে ব্রয়নের ক্রস ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন উমতিতি৷ এতে করে পরিষ্কার সুযোগ এসে যায় লুকাকুর সামনে৷ কিন্তু পায়ে ঠিকমত লাগাতে পারেননি তিনি৷ গোলশূন্য থাকে প্রথমার্ধ৷

দ্বিতীয়ার্ধে আবারো চড়ে বসে বেলজিয়াম৷ গতিময় ফুটবলে ব্যতিব্যস্ত করে রাখে নীল শিবিরকে৷

কিন্তু দেশঁ যেন এবার শিষ্যদের মন্ত্র পড়িয়েই পাঠিয়েছেন৷ ৫১ মিনিটে গ্রিজমানের কর্নার থেকে বার্সেলোনার তারকা সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার উমতিতি উড়ে এসে হেড করেন৷ আর তাতেই পরাস্ত কোর্টোয়া৷ ১-০-তে এগিয়ে যায় ফ্রান্স৷

FIFA Fußball-WM 2018 in Russland | Halbfinale -Frankreich vs Belgien | Jubel (1:0)

গোলের পর উমতিতির উল্লাস

৫৫ মিনিটে আবারো সুযোগ৷ গ্রিজমান-এমবাপের চমৎকার একটি সেটপিস থেকে বল পান জিরুড৷ কিন্তু ব্যর্থতা যেন লেখা আছে তাঁর পায়ে৷

৬১ মিনিটে এবার লাল শিবিরের আক্রমণ৷ ১৬ গজ দূর থেকে শট নেবার সুযোগ আসে ডে ব্রয়নের সামনে, যেটি কাজে লাগাতে পারেননি তিনি৷ ৬৫ মিনিটে ডানপাশ থেকে আসা একটি ক্রস থেকে বল চলে আসে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড হেড মাস্টার ফেলাইনির মাথায়৷ কিন্তু লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় তা৷

এভাবেই পরতে পরতে উত্তেজনা ছড়িয়ে এগিয়ে চলে ম্যাচ৷ গড়াতে থাকে পরিণতির দিকে৷ আর তার প্রতিক্রিয়ায় কখনো লাল আর নীল গ্যালারির মধ্যে ভাগাভাগি হয় অনুভূতি৷ এদিকে কখনো মেঘ তো, ওদিকে রোদ ঝলমল৷

৭৫ মিনিটে আবারো বেলজিয়ান অ্যাটাক৷ মের্টেন্সের পাওয়ার শট ঠেকিয়ে দেন লরিস৷ ৮০ মিনিটে গ্রিজমানের ফ্রিকিক থেকে বল পেয়েও সুবিধা করতে পারেননি পগবা৷ বারের ওপর দিয়ে হেড করেন৷

অতিরিক্ত সময়ে গ্রিজমান ও বদলি খেলোয়াড় টলিসো দু'জনই পরিষ্কার সুযোগ পেয়েছিলেন ব্যবধান বাড়ানোর৷ কিন্তু কেউই কোর্টোয়াকে পরাভূত করতে পারেননি৷ তাই এই ব্যবধানেই শেষ হয় ম্যাচ৷

FIFA Fußball-WM 2018 in Russland | Halbfinale -Frankreich vs Belgien | Final (1:0)

ফাইনাল খেলা হলো না বেলজিয়ামের

১৯৯৮ ও ২০০৬-এর পর তৃতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছাল ফ্রান্স৷ 

বুধবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়