‌এবার স্বাধীনতা দিবস বর্ণহীন | বিষয় | DW | 14.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

‌এবার স্বাধীনতা দিবস বর্ণহীন

প্রতি বছর যে উৎসাহ, উদ্দীপনা নিয়ে স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত হয়, এবার তা অনুপস্থিত৷ কারণ অবশ্যই করোনা সংক্রমণ এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিধান৷

বছরের কয়েকটা দিন কলকাতা শহর এবং শহরতলীতে নিয়ম করে প্রভাত ফেরি বের হয়৷ রবীন্দ্রনাথের জন্মদিন ২৫ বৈশাখ, নেতাজি সুভাষচন্দ্রের জন্মদিন ২৩ জানুয়ারি এবং অবশ্যই ১৫ অগাস্ট, ভারতের স্বাধীনতাদিবসে৷ কিন্তু এই বছর ২৫ বৈশাখের সকাল যেমন বেসুরো, বেতাল কেটেছে, ১৫ অগাস্টের সকাল তার থেকেও নিঃসাড়ে কেটে যাবে৷ প্রতি বছর একাধিক অনুষ্ঠান হয় স্বাধীনতার উদযাপন করতে৷ তার মধ্যে বেশ কিছু গান-বাজনার কনসার্ট হালে রীতিমত জনপ্রিয়ও হয়েছিল৷ এবার কোথাও কিছু হচ্ছে না৷ রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর কুচকাওয়াজ থেকে শুরু করে পাড়ায় পাড়ায় বিচিত্রানুষ্ঠান, সবই এবার বাদ পড়েছে৷ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি যদিও রাজ্যবাসীকে বলেছেন, এবার প্রত্যেক ঘরে যেন জাতীয় পতাকা তোলা হয়৷ নয়ত দলগতভাবে যে সব অনুষ্ঠান নিয়মিত হয়, সে সবই এবার নিয়মরক্ষার খাতিরে করা হবে৷ কম লোক নিয়ে৷

দক্ষিণ কলকাতার তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী, পুরসভার ৮৬ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর দীপ্তি মুখার্জি প্রতি বছরই প্রভাত ফেরি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন স্বাধীনতা দিবসে৷ সাংগঠনিক স্তরে এবং তিনি ও তাঁর স্বামী, তৃণমূল নেতা, প্রাক্তন বরো চেয়ারম্যান দুর্গাপ্রসাদ মুখার্জি যুক্ত আছেন নিজেদের হাতে তৈরি যে সাংস্কৃতিক চক্রের সঙ্গে, সেই বালিগঞ্জ কালচারাল সেমিনার আয়োজিত নানা ধরনের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে৷ কিন্তু এবছর কিছুই হচ্ছে না৷ দীপ্তি মুখার্জি জানালেন, ‘‌‘‌আমরা ফ্ল্যাগ তুলব, কিন্তু গ্যাদারিং বেশি করছি না৷ করোনার জন্য৷ যতজন মেম্বার আছে, সব মেম্বারকে আমরা বলছি না৷ আমি বলেছি, সবাই নিজেদের নিজেদের পাড়ায় (‌পতাকা)‌ তোলো৷ আর যেহেতু আমাদের ক্লাব, বালিগঞ্জ কালচারাল সেমিনারের ফ্ল্যাগটা আমাকেই তুলতে হবে, মানে আমাকে এবং দুর্গা মুখার্জিকেই তুলতে হবে৷ কারণ আর যারা মেম্বার, তারা আসতে পারবে না৷ তারা অনেক দূরে দূরে থাকে৷ আমি যেহেতু কাছে থাকি, আমরা দুজনে, সেজন্য আমরা তুলে দেব৷ আর আমাদের ৮৬ নং ওয়ার্ডের যে ফ্ল্যাগ হয়েস্টিং হবে, তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে, সেটা দুর্গা মুখার্জিই তুলবেন৷'‌'‌

তা হলে প্রতি বছরের মতো অনুষ্ঠান এবার আর হচ্ছে না?‌ দীপ্তি মুখার্জির বক্তব্য, ‘‌‘‌কী করে করব বলুন!‌ রিস্ক হয়ে যাবে না!‌ বাচ্চাদের নিয়ে অনুষ্ঠান করাটা খুব রিস্ক হয়ে যাবে৷ তাদের বাবা-মায়েরাও ছাড়বে কেন বলুন!‌ আমরাই বা কী করে বলব!‌ আমাদের বলাটাও তো অন্যায়৷'‌'‌

অডিও শুনুন 00:55

‘"বাচ্চাদের নিয়ে অনুষ্ঠান করাটা খুব রিস্ক হয়ে যাবে’: দীপ্তি মুখার্জি

কাজেই বেনজিরভাবে এবছর প্রায় আড়ম্বরহীন আনুষ্ঠানিকতার মধ্যেই পালিত হবে স্বাধীনতা দিবস৷ অবশ্য সমবেত উদযাপন না হলেও লোকে নিজের বাড়িতে যে দিনটি পালন করবেন, তা বোঝা গেল বাজার ঘুরে৷ বিক্রি হচ্ছে নানা মাপের জাতীয় পতাকা, তিনরঙা কাগজের শিকলি৷ আর এই করোনার আবহে এবার চোখে পড়ছে আরও একটি জিনিস৷ ভারতের জাতীয় পতাকার রঙে রাঙানো মুখ ঢাকার মাস্ক, মাথায় বাঁধার কাপড়৷ সামাজিক দূরত্বের এই দুঃসহ সময়ে ওইটুকুই যা রঙের ছোঁয়া এবারের স্বাধীনতা দিবসে৷