এবার সবুজ হবে আলোকনগর প্যারিস | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 05.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

এবার সবুজ হবে আলোকনগর প্যারিস

প্যারিসকে আলোকনগর থেকে সবুজ নগরে রূপান্তর করতে ৭২ মিলিয়ন ইউরোর একটি প্রকল্পের পরিকল্পনা করছে ফ্রান্স৷ এর মধ্য দিয়ে আইফেল টাওয়ারের চারপাশের ৩০ হেক্টর এলাকায় বনায়ন করা হবে৷

প্যারিসের মেয়র আন হিদালগো বলেন, ‘নগর বন' তৈরি করে প্যারিসকে সবুজ এবং এর রাস্তাগুলোকে শীতল করা হবে৷ শহরে উদ্যান এবং বাগান তৈরি করা হবে৷ ২০২০ সালের মধ্যে ৩০ হেক্টর এলাকায় বনায়ন করা হবে, লাগানো হবে ২০ হাজার গাছ৷  ৭২ মিলিয়ন ইউেরোর এই প্রকল্পের মাধ্যমে আইফেল টাওয়ারের চারদিকে সবথেকে বড় বাগান তৈরি করা হবে৷

প্রথম পর্যায়ে অব্যবহৃত একটি রেল রাস্তায় নিউ ইয়ার্কের হাই লেন পার্কের মতো করে গ্রিন বেল্ট তৈরি করা হবে বলে জানান হিদালগো৷ এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, এই শহর যাতে বসবাসের অনুপযোগী না হয়ে যায় সেজন্য এটা করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে৷

প্যারিসভিত্তিক পরিবেশ ও উন্নয়ন বিষয়ক আন্তর্জাতিক গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানী ভিনসেন্ট ভিগুই বিশ্বাস করেন, শহরে মাইক্রোক্লাইমেট তৈরি করে রাস্তার তাপমাত্রা কমানো সম্ভব৷

বিশ্বে বনভূমির পরিমাণ দিন দিন কমছে, তবে এই প্রবণতা থেকে সরে আসার চেষ্টা করছে ইউরোপের দেশগুলো৷ ইউরোপে প্রতিদিন দেড় হাজার ফুটবল মাঠের সমান এলাকায় বনায়ন হচ্ছে এবং ফ্রান্স এতে অগ্রগামী ভূমিকায় রয়েছে৷

ফ্রান্সের তিনভাগের একভাগ বনভূমি রয়েছে৷ ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে সুইডেন, ফিনল্যান্ড এবং স্পেনের পরেই ফ্রান্সে বেশি বনভূমি রয়েছে৷ ১৯৯০ সাল থেকে ফ্রান্সের সামগ্রিক বনভূমির পরিমাণ বেড়েছে সাত শতাংশ৷

ফ্রান্সের এনার্জি ফার্ম ‘টোটাল'-এর প্রধান জানিয়েছেন, তারা নতুন বন সংরক্ষণ ও পুনর্বনায়ন প্রকল্পে বছরে ১০০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে৷ কোম্পানিটির চিফ এক্সিকিউটিভ প্যাট্রিক পুইয়েন বলেন, ‘‘আমরা বন সংরক্ষণ প্রকল্পগুলোতে বিনিয়োগের জন্য একটি ইউনিট স্থাপন করতে চাই, কারণ, কার্বন নির্মূলে এটাই সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি৷''

বিশ্বের ৫২০টি বড় শহরে পরিচালিত জুরিখ ইউনিভার্সিটির এক সমীক্ষা অনুসারে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এখন থেকে ২০৫০ সাল পর্যন্ত নাতিশীতোষ্ণ এলাকার নগর অঞ্চলগুলো এক হাজার কিলোমিটার দক্ষিণে সরে যাবে৷

জুলাই মাসে প্রকাশিত তাদের এক সমীক্ষায় বলা হয়, বন সংরক্ষণে ব্যাপক প্রচারণা চালালে তা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করতে পারে৷

জো হার্পার/এসআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন