এবার ক্যারি লামের পদত্যাগ দাবিতে হংকংয়ে বিক্ষোভ | বিশ্ব | DW | 17.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

হংকং

এবার ক্যারি লামের পদত্যাগ দাবিতে হংকংয়ে বিক্ষোভ

প্রত্যর্পণ বিল স্থগিত করার পর এবার হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি লামের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন বিক্ষোভকারীরা৷ তবে, হংকংয়ের কেন্দ্রীয় সরকার চীন তাঁর পদত্যাগের পক্ষে নেই বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম৷

আগের দিন প্রায় ২০ লাখ লোকের বিক্ষোভের পর সোমবারও রাস্তায় নামে হংকংয়ের হাজার হাজার মানুষ৷ শুরুতে বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করলেও পুলিশের অনুরোধে রাস্তা ছেড়ে দেন তাঁরা৷

এরপর ক্যারি লামের কার্যালয়ের সামনে সরে গিয়ে তাঁর পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন আন্দোলনকারীরা৷ এ সময় পদত্যাগ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন তারা৷

এর মধ্যে বিকেলে হংকংয়ের তরুণ নেতা জোসুয়া ওংকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া হলে নতুন মাত্রা পায় চলমান বিক্ষোভ৷ ২০১৪ সালে হংকংয়ে ব্যাপক বিক্ষোভের পর ওই ‘আন্দোলনের মুখ' ওংয়ের বিরুদ্ধে অবমাননার অভিযোগ আনা হয়েছিল৷

ওই অভিযোগে এক মাস আগে তাঁকে দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল৷ সাম্প্রতিক বিক্ষোভের কারণে সাজার মেয়াদ এক মাস বাকি থাকতেই সোমবার মুক্তি পেলেন তিনি৷ জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর সরাসরি নগর কার্যালয়ের সামনের বিক্ষোভে যোগ দেন ওং৷

বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে মিলে এই তরুণ নেতাও ক্যারি লামের পদত্যাগের দাবি জানান৷ ‘‘আমব্রেলা মুভমেন্টের পর বলেছিলাম, আমরা আবারও রাস্তায় ফিরব৷ শেষ পর্যন্ত পাঁচ বছর পর আমরা ঠিকই এসেছি,'' সেখানে বলেন তিনি৷

ওং আরো বলেন, ‘‘এটা সৌভাগ্যের যে, বেইজিং আর ক্যারি লাম একটি তরুণ প্রজন্মকে সাধারণ নাগরিক থেকে তাদের বিরোধী হিসাবে রূপান্তরিত করেছে৷ এর মূল্য বেইজিংকে পরিশোধ করতেই হবে৷''

২০১৪ সালে ‘আমব্রেলা মুভমেন্ট' নাম পাওয়া আন্দোলনে টানা এক সপ্তাহ হংকংয়ের রাস্তায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছিলেন হাজার হাজার মানুষ৷ সে সময় সরাসরি ভোটে নেতা নির্বাচনের পথ বন্ধ করার জন্য হতে চলা আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছিলেন তারা৷

৯ জুন বন্দি প্রত্যর্পণ বিল প্রস্তাব করার পর থেকেই হংকংয়ে বিক্ষোভ শুরু হয়৷ চীনের প্রস্তাব করা এ বিলটি নিয়ে গত বুধবার সকালে সংসদে বিতর্ক হওয়ার কথা ছিল৷ আইনটি পাস হলে চীন, তাইওয়ান ও ম্যাকাওয়ে আদালত আদেশের মাধ্যমে কোনো অভিযুক্তকে সেসব দেশে ফেরত পাঠাতে পারবে হংকং৷

বিক্ষোভে ও সংঘর্ষের মধ্যে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে বিলটি পাসের উদ্যোগ অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করার ঘোষণা দেন ক্যারি লাম৷ বিলটি পুরোপুরি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ চলছে৷

১৯৯৭ সালে ব্রিটেনের কাছ থেকে শহরের দায়িত্ব চীনের কাছে হস্তান্তরের পর প্রস্তাবিত প্রত্যর্পণ বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভটিই ছিল সবচেয়ে বড়৷

‘লামকে পদত্যাগ করতে দেবে না চীন'

এদিকে ক্যারি লাম পদত্যাগ করতে চাইলেও চীন তা ‘হতে দেবে না‘ বলে তাঁর ঘনিষ্ঠ একজনের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স৷

হংকং স্বায়ত্বশাসনে চললেও ক্যারি লামের বিরুদ্ধে চীনের ইচ্ছার বাস্তবায়ন করার অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে করে আসছে বিরোধীরা৷

বিক্ষোভের কারণে লাম সরে যাওয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তার বরাতে জানায় রয়টার্স৷ ‘‘তবে এটা শেষ পর্যন্ত হচ্ছে না,'' রয়টার্সকে বলেন তিনি৷

ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘‘তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা মনোনীত৷ এ কারণে তাঁর পদত্যাগের জন্য উচ্চপর্যায়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্তের প্রয়োজন৷‘‘

এমবি/কেএম (এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন