এবার করোনা টিকা দেয়া শুরু | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 26.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

এবার করোনা টিকা দেয়া শুরু

ভারতের উপহারের ২০ লাখসহ মোট ৭০ লাখ ডোজ অক্সফোর্ড টিকা এখন বাংলাদেশের হাতে৷ তা দিয়েই বুধবার শুরু করোনা টিকাদান কর্মসূচি৷

কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তবে বুধবার, ২৭ জানুয়ারি শুরু হলেও ব্যাপকভাবে টিকা দেয়া হবে আগামী মাস থেকে৷

বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়ালি এই কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন৷ প্রথম দিন  ২০-২৫ জনকে টিকা দেয়া হবে৷ পরের দিন ঢাকার পাঁচটি হাসপাতালে আরো ৫০০ জনকে এই টিকা দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে৷ শুরুতে যারা টিকা পাচ্ছেন, তাদের উপহারের টিকা থেকে দেয়া হচ্ছে৷

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক এবং করোনা টিকা কর্মসূচির মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলাম জানান, ‘‘প্রথম যে ২০-২৫ জন টিকা পাচ্ছেন, তাদের মধ্যে স্বাস্থ্যকর্মী ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন পেশার ফ্রন্ট লাইনার আছেন৷ তাদের তালিকা মন্ত্রণালয় থেকে করা হয়েছে৷ পরের দিন পাঁচটি হাসাপাতালে শুধু ৫০০ স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকা দেয়া হবে৷’’

এরপর সাত দিন বিরতি দেয়া হবে৷ ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে টিকা দেয়া শুরু হবে৷ সেটাই মূল কর্মসূচি৷

অডিও শুনুন 02:09

পরের দিন শুধু ৫০০ স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকা দেয়া হবে: ডা. নাজমুল ইসলাম

বুধবার উদ্বোধনের পর ঢাকার যে পাঁচটি হাসপাতালে বৃহস্পতিবার টিকা দেয়া হবে সেগুলো হলো: ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, কুয়েত মৈত্রী জেনারেল হাসপাতাল , বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ও কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৷
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, টিকায় পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে এটা ধরে নিয়েই টিকা দেয়া হচ্ছে৷ জাতীয় ইম্যুনাইজেশন কর্মসূচির চিকিৎসক ও  স্বাস্থ্যকর্মীদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ আছে৷ করোনা টিকার জন্য বাড়তি সতর্কতা নেয়া হয়েছে৷ যেসব হাসপাতালে টিকা দেয়া হবে, সেখানে মেডিক্যাল টিম থাকবে৷ ওই টিমে বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকবেন৷

বুধবার থেকে ভ্যাকসিনের নিবন্ধন অ্যাপটি কাজ শুরু করবে৷ এই অ্যাপে ভ্যাকসিন পেতে হলে নিবন্ধন করতে হবে বলে জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর৷ ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে শুরু হতে যাওয়া টিকা কর্মসূচিতে ৪২ হাজার কর্মী কাজ করবেন৷ তার মধ্যে ১৪ হাজার টিকা দেবেন৷ বাকিরা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করবেন৷ স্বেচ্ছাসেবকরা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির৷ আর যেসব হাসপাতালে এই টিকা দেয়া হবে তাদের জনবলও এই কর্মসূচিতে যুক্ত থাকছে৷

এদিকে করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে বাংলাদেশের কিছু মানুষের মধ্যে এখনো দ্বিধা-দ্বন্দ্ব আছে৷ নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্লোবাল হেলথ ইনস্টিটিউটের এক জরিপে দেখা গেছে, ৭৪.৬ শতাংশ নাগরিক একটি কার্যকর, নিরাপদ, চিকিৎসক কর্তৃক সুপারিশকৃত টিকা নিতে চায় বিনামূল্যে৷ ৭.৮ শতাংশ নাগরিক একেবারেই টিকা নিতে ইচ্ছুক নন এবং ১৭.৬ শতাংশ নাগরিক টিকা নেবেন কিনা এ ব্যাপারে দ্বিধাগ্রস্ত৷ ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে ৩ হাজার ৬৪৭ জন নাগরিকের ওপর পরিচালিত জরিপ থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে৷

অডিও শুনুন 05:09

টিকা নিতে চান না এমন মানুষ সারা বিশ্বেই আছে: ডা. লেলিন চৌধুরী

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ‘‘টিকা নিতে চান না, দ্বিধাগ্রস্ত এরকম মানুষ সারা বিশ্বেই আছে৷ আবার টিকা দেয়া শুরু হলে এদের সংখ্যা কমে আসে৷ টিকার কার্যকারিতা আস্থা বাড়িয়ে দেয়৷’’

তিনি বলেন, কেউ কেউ মনে করেন, টিকার কার্যকারিতা থাকবে ছয় মাস থেকে এক বছর, তাহলে টিকা নিয়ে লাভ কী? এই চিন্তা ঠিক নয়৷ কারণ, এই সময়ে টিকার কারণে করোনা সংক্রমণ কমে যাবে৷ ফলে করোনাও কমে যাবে৷ এক সময়ে করোনা গুরুত্বহীন সর্দি-কাশির মতো হয়ে যাবে৷

তার মতে, ‘‘এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে টিকার প্রস্তুতি ভালো৷ তবে নিবন্ধনের জন্য অ্যাপের বিকল্প থাকতে হবে৷ আর জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়াও অন্য বিকল্প ডকুমেন্ট গ্রহণ করা উচিত৷'' তিনি বলেন, অনেকেরই অ্যাপ থেকে নিবন্ধন করার মতো ফোন বা প্রযুক্তি নেই৷ আর যার কোনো ডকুমেন্ট নেই, সে যেন ইউপি চেয়ারম্যানের সনদ নিয়ে নিবন্ধিত হতে পারে৷

বাংলাদেশে বেক্সিমকোর মাধ্যমে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে মোট তিন কোটি ডোজ ভ্যাকসিন কিনছে৷ তার ৫০ লাখ ডোজ সোমবার এসেছে৷ এরপর প্রতিমাসে ৫০ লাখ ডোজ আসবে৷ আরো হাতে আছে উপহারের ২০ লাখ ডোজ৷ ৭ ফেব্রুয়ারি  প্রথম দফায় ৬০ লাখ মানুষকে টিকা দেয়ার কথা রয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন