এবারের বিশ্বকাপ রাশিয়ার রাজনৈতিক হাতিয়ার? | বিশ্ব | DW | 08.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৮

এবারের বিশ্বকাপ রাশিয়ার রাজনৈতিক হাতিয়ার?

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ আয়োজন করতে যাচ্ছে রাশিয়া৷ ফুটবলের সর্বোচ্চ এই আসর রাজনৈতিকভাবে এর আগে কখনোই এতটা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠেনি৷ কখন বন্ধ হবে রাজনীতি, শুরু হবে খেলার মজা, ফুটবলপ্রেমীরা এখন সে অপেক্ষায়৷

একটি আধুনিক ও বহুজাতিক দেশ হিসেবে বিশ্বের সামনে নিজেকে তুলে ধরার এত বড় সুযোগ রাশিয়ার সামনে এর আগে আসেনি৷ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিনও রাজনীতির পাশাপাশি খেলাধুলাতেও বিশ্বের বৃহত্তম দেশটির গুরুত্ব তুলে ধরার সুযোগ হাতছাড়া করতে নারাজ৷

বিশ্বকাপকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন পুটিন৷ ২০১০ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় পুটিন বিশ্বকাপ আয়োজনে রাশিয়ার দাবির পক্ষে প্রচারণা চালাতে নিজেই জুরিখ গিয়েছিলেন৷ সে সময় ফিফা কর্মকর্তাদের ঘুষ দেয়ার অভিযোগও ওঠে রুশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে৷ বিশ্বকাপ আয়োজনের নিলাম প্রক্রিয়া নিয়ে ফিফাকে একাধিকবার তদন্তের সম্মুখীনও হতে হয়েছে৷

ঘুষ ও দুর্নীতির অভিযোগে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার প্রেসিডেন্ট পদেও এসেছিল পরিবর্তন৷ রাশিয়া অবশ্য বরাবরের মতোই সব অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে৷

২০১৪ সালে সোচিতে আয়োজিত শীতকালীন অলিম্পিকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় তত্ত্বাবধানে ডোপিংয়ের অভিযোগ ওঠে৷ এরপর পশ্চিমা বিশ্বের দৃষ্টিতে রাশিয়ার অপরাধের তালিকা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয়েছে৷ ইউক্রেন আক্রমণ, সিরিয়ায় আগ্রাসন, জার্মান সরকারের বিরুদ্ধে সাইবার আক্রমণ, যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের নির্বাচনে হস্তক্ষেপ কেবলই রাশিয়াকে করেছে কোণঠাসা৷

সাবেক গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপলের ওপর ‘আক্রমণ'ও পূর্ব–পশ্চিমের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরিয়েছে৷ তবে, পশ্চিম ইউরোপের চেয়ে আফ্রিকা, এশিয়া ও লাতিন আমেরিকাতে রাশিয়ার ভাবমূর্তি সম্পূর্ণ আলাদা৷

এই সব বিষয়েই অবগত রাশিয়ার উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা৷ রুশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের চেয়ারম্যান ভ্যালেন্টিনা মাতভিয়েঙ্কো অবশ্য পুরো দায় চাপিয়েছেন বিদেশি সাংবাদিকদের ওপর৷ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে রাশিয়ার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা হচ্ছে বলে দাবি তাঁর৷ এখন লাখ লাখ মানুষ আসছে রাশিয়ায়, সত্যিকার রুশদের দেখবে তাঁরা৷ তথ্যের যে যুদ্ধ চলছে রাশিয়ার বিরুদ্ধে, তা তাঁদের প্রভাবিত করবে না৷

এমনকি, পুটিনবিরোধী রাজনীতিক হিসেবে পরিচিত জনপ্রিয় ফুটল ধারাভাষ্যকার ভাসিলি উতকিনও খেলার সাথে রাজনীতি বেশি না মেশানোর আহ্বান জানিয়েছেন৷ ‘‘দেশের যে-কোনো ভোটারের মতো আমারও দেশের নেতৃত্ব নিয়ে আপত্তি আছে৷ কিন্তু কোনো দেশই বিশ্বকাপ বয়কট করেনি, রাশিয়ায় উপস্থিত হয়ে বিদেশি বন্ধুরা রাশিয়াকেই সমর্থন দিয়েছেন৷''

এডিকে/এসিবি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন