এক সুদানি কিকবক্সারের স্বপ্ন | অন্বেষণ | DW | 20.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

এক সুদানি কিকবক্সারের স্বপ্ন

ক্যানাডায় কিকবক্সিং শিখে আন্তর্জাতিক স্তরে নাম করার পর পুরো ওকেলো ফিরে এসেছেন স্বদেশ দক্ষিণ সুদানে, জুবায় কিকবক্সিং শেখাচ্ছেন৷

কিকবক্সিং-এর ট্রেনিং দিচ্ছেন পুরো ওকেলো৷ তাঁর কাছে শিখতে পাওয়া একটা বিরাট ব্যাপার, দক্ষিণ সুদানের রাজধানী জুবায় পুরোর শিক্ষার্থীরা সেটা জানেন৷ পুরো ওকেলো এককালে অ্যামেরিকায় পেশাদার বক্সার ছিলেন৷ তিনি দক্ষিণ সুদানে ফেরেন ২০০৮ সালে৷

ওকেলো শোনালেন, ‘‘আমি যখন বড় হচ্ছিলাম, তখন আমি ব্রুস লি, চাক নরিস, এদের নিয়ে পাগল ছিলাম৷ আমার শিক্ষার্থীদের জন্য আমি নিজেই আজ জ্যাকি চান বা ব্রুস লি; আমি ওদের পথ দেখাতে পারি, চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে কী করতে হবে, তা বলতে পারি৷''

পুরো ওকেলো নব্বই-এর দশকের গোড়ায় সুদানের গৃহযুদ্ধ থেকে পালিয়ে ক্যানাডায় চলে যান – তখন তাঁর বয়স ছিল ১৪৷ ভ্যানকুভারে কিকবক্সিং শুরু করে শীঘ্রই তিনি একটির পর একটি টুর্নামেন্টে জিততে শুরু করেন৷ ওকেলো শোনালেন সে কাহিনী: ‘‘আমি কারাটে আর শোতোকানে থার্ড ডিগ্রি ব্ল্যাক বেল্ট ও জিউ জিৎসু আকিদো-তে ফার্স্ট ডিগ্রি ব্ল্যাক বেল্ট৷ এককালে পেশাদার বক্সার ও উত্তর অ্যামেরিকার ফুল কন্ট্যাক্ট চ্যাম্পিয়ন ছিলাম৷ আমার ৭৫ কিলোগ্রাম ওজন বিভাগে আমি অপরাজিত৷'' 

নতুন প্রজন্ম

পুরো ওকেলো দক্ষিণ সুদানে কিকবক্সারদের একটি নতুন প্রজন্মকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন৷ নিজেই সাজসরঞ্জাম উদ্ভাবন করে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেন৷ সাফল্যও এসেছে৷ পুরো-র কল্যাণে দক্ষিণ সুদান আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিয়ে থাকে৷ পুরো-র শিক্ষার্থীরা কেনিয়া, উগান্ডা, ইথিওপিয়া ও মিশরে কিকবক্সিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেন৷ কিন্তু তিন বছর আগে গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়া যাবৎ দক্ষিণ সুদানে কিকবক্সিং-এর সংক্ষিপ্ত সাফল্যের কাহিনির অবসান ঘটেছে৷

ওকেলো জানালেন, ‘‘২০১৪ সাল পর্যন্ত এই কেন্দ্রের ছেলেরা সেরা ফাইটারদের মধ্যে ছিল৷ ওদের মধ্যে একজন, জেমস কুওল, ছিল কিকবক্সিং-এর বিশ্ব ব়্যাংকিং-এ ন'নম্বর৷ কিন্তু যুদ্ধের কারণে সে আর এখানে নেই৷ সে বেন্টিউ-তে কোথাও একটি প্রোটেকশন অফ সিভিলিয়ানস সাইটে রয়েছে৷ আমার তাতে খারাপ লাগলেও আমি বলেছি, আমি ছেড়ে দিতে পারি না৷''

মহিলারাও আছেন

পুরো ওকেলো মেয়েদের প্রশিক্ষণ দেবার কথাও ভাবছেন৷ উইনি নাতাশা যৌন হয়রানির হাত থেকে মুক্তি পাবার জন্য কিকবক্সিং শিখছেন৷ উইনি ট্রেনিং করতে করতে এমন একটা পর্যায়ে পৌঁছেছেন যে, তিনি আজ আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে থাকেন৷

উইনি জানালেন, ‘‘২০১৩ সালের জুলাই মাসে আমি এক ইটালীয় মহিলার সাথে লড়ি – সেটা ছিল দক্ষিণ সুদানের স্বাধীনতার দ্বিতীয় বার্ষিকী৷ সেটা ছিল আমার প্রথম ম্যাচ – যে আমি ম্যাচে জিতি৷''

গৃহযুদ্ধ সত্ত্বেও উইনি ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে দক্ষিণ সুদানের হয়ে কেনিয়ায় প্রতিযোগিতায় নেমেছেন৷ পুরো তাঁর শিক্ষার্থীদের পরস্পরকে সম্মান করতে শেখান – তাঁর কেন্দ্রে দক্ষিণ সুদানের বিভিন্ন জাতি ও সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীরা আছেন৷

ওকেলো বলেন, ‘‘আমি এখানে আছি এটা নিশ্চিত করার জন্য যে, এই সব কম বয়সের ছেলেমেয়েরা দক্ষিণ সুদানে যা ঘটছে, তার অনুসরণ বা পুনরাবৃত্তি করবে না৷''

তবে তাঁর মতো মানুষদের প্রেরণার ফলে যে গৃহযুদ্ধের বিভীষিকার অন্ত ঘটবে, সে ধরনের অলীক আশা পুরো রাখেন না৷ তবে যুদ্ধ সমাপ্তির পর তাঁর স্বদেশকে নতুন করে গড়ে তোলায় সাহায্য করতে চান পুরো ওকেলো৷

পাট্রিক ওইয়েট/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক