একেবারে বন্দুক ঠেকিয়ে বিয়ে, বরের কান্না | বিশ্ব | DW | 08.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

একেবারে বন্দুক ঠেকিয়ে বিয়ে, বরের কান্না

গিয়েছিলেন বন্ধুর বিয়েতে৷ কে জানত, বন্ধু নয়, মালা পড়তে হবে তাকেই! জীবন বাঁচাতে সইতে হলো বিয়ের ‘অত্যাচার'!

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বিহার রাজ্যের পান্ডারার্ক জেলায়৷ এক বন্ধুর বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যান তিনি৷ গিয়ে দেখেন আয়োজন আছে ঠিকই৷ কিন্তু আবিষ্কার করেন বর আসলে তিনিই৷

বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় উত্তম মধ্যমও খেয়েছেন৷ পরে বন্দুক ঠেকিয়ে বিয়ের পিড়িতে বসতে হয় তার৷

ঘটনার শিকার যুবকের নাম বিনোদ কুমার৷ বয়স ২৯৷ বিহারের পাটনায় সদ্যই এক ইস্পাত কারখানায় চাকরি নিয়েছেন৷

গেল মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটলেও শুক্রবার অধিকাংশ ভারতীয় গণমাধ্যমের নজর কাড়ে বিষয়টি৷ এনডিটিভি, ইন্ডিয়া টিভিসহ অনেক গণমাধ্যমসহ অনেকেই ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করেন৷

একদিনেই সবগুলো ভিডিওতে লাখের ওপরে ক্লিক পড়েছে৷

ভিডিওতে দেখা যায়, বর বিনোদকে জোর করে বিয়ের মন্ডপে বসানো হয়েছে৷ তিনি অঝোরে কাঁদছেন৷ কেউ একজন তাঁর চোখ মুছে দিচ্ছেন৷

আর তাঁকে হুমকি দেবার পাশাপাশি বলা হচ্ছে, ‘‘কেঁদে আর কী হবে, যা হবার তা তো হয়েই গেছে৷''

পরে অবশ্য ঘটনায় মামলা দায়ের করেছেন বিনোদ৷ তাঁর অভিযোগ, সুরেন্দ্র যাদব নামের তাঁর বাবার এক বন্ধু পুরো ঘটনাটি সাজিয়েছেন৷

পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে৷

ভারতে জোরপূর্বক বিয়ে দেবার বিষয়টি নতুন নয়৷ তবে মেয়েদের ক্ষেত্রেই তা বেশি ঘটে৷

জেডএ/এসিবি (এনডিটিভি, ইন্ডিয়াটিভি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন