একাকীত্বের রাজধানী বার্লিন! | বিশ্ব | DW | 20.10.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

একাকীত্বের রাজধানী বার্লিন!

জার্মানির রাজধানী বার্লিনে বসবাসকারী অনেক মানুষই এখন নিঃসঙ্গতায় ভুগছেন৷ একাকী সময় কাটানোয় তাদের স্বাস্থ্যগত সমস্যা ছাড়াও এটি সমাজে মারাত্মক প্রভাব ফেলছে৷

এমতাবস্থায় খ্রিস্ট্রান ডেমোক্রেটরা একাকীত্ব মোকাবেলায় বার্লিনে বিশেষ কমিশনার নিয়োগের দাবি জানিয়েছেন৷ বার্লিনের প্রতি দুইটির মধ্যে একটি পরিবার একজনের৷ এখানে বয়স্কদের জন্য রয়েছে খোশগল্প করার হটলাইন৷ পেশাগতদের সময় কাটানোর আলাদা গ্রুপ ছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ফেসবুক গ্রুপ৷

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দলের (সিডিইউ) বার্লিন শাখা নিঃসঙ্গতার জন্য একজন অফিসিয়াল কমিশনার নিয়োগের দাবি জানিয়েছে৷

সিডিইউর মুখপাত্র মাইক পেন স্থানীয় পাবলিক ব্রডকাস্টার আরবিবিকে বলেন, ‘‘শহরের একাকীত্ব সমস্যা মোকাবেলায় স্বেচ্ছাসেবীর কাজগুলো যথেষ্ট নয়৷ সব কিছু সমন্বয় করতে পুরো সময়ের জন্য একজনকে দরকার৷৷ লাখ লাখ মানুষের মহানগর হিসেবে বার্লিনে এই পদক্ষেপ নেওয়া দরকার৷’’

পেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দলীয় রাজনীতির বাইরে গিয়ে বার্লিন শহরেরর একাকীত্ব মোকাবেলা করা প্রয়োজন৷ আমি আশা করি আমরা এখানে সব পক্ষের একাকী লোকদের জন্য কিছু করতে পরব, কারণ এটি তরুণ, বৃদ্ধ, ধনী, গরীব সবারই সমস্যা৷’’

বার্লিনের দৈনিক টাগেসস্পিগেলের ২০১৮ সালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একাকীত্বের কারণে গত বছর বার্লিনের এক হাজার ৩০০ মানুষ স্বেচ্ছাসেবীর কাজে যোগ দেন৷ এই শহরে ৩৬ লাখ মানুষ বাস করে এবং প্রতি বছর এই সংখ্যা বাড়ছে৷

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বার্লিনের কমপক্ষে ৩০০ মানুষ প্রত বছর তাদের অ্যাপার্টমেন্টে মৃত্যুবরণ করেন৷ সংবাদমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্লিনকে একাকিত্বের রাজধানী নামে অভিহিত করা হচ্ছে৷

গত মে মাসে ফেডেরাল সরকার পরিচালিত একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৪৫ থেকে ৮৪ বছর বয়সের জার্মানরা নিঃসঙ্গতা বোধ করেন এবং এই সংখ্যা এখন ১৫ শতাংশে ঠেকেছে৷

কোনো কোনো বয়সের ক্ষেত্রে এই সংখ্যাটি ৫৯ শতাংশে ঠেকেছ এবং প্রতি চারজনের মধ্যে একজন কিশোর মাঝে মাঝে একাকীত্ব বোধ করেন বলেও ওই প্রতিবেদনে বলা হয়৷

এলিজাবেথ শুমাখার/এসআই/কেএম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়