একদিকে হুমকি, অন্যদিকে সংলাপের প্রস্তাব দিলেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 08.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

একদিকে হুমকি, অন্যদিকে সংলাপের প্রস্তাব দিলেন ট্রাম্প

শত্রুর দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে হুঙ্কার দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ জাপানের পর দক্ষিণ কোরিয়ায় এসে তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতৃত্বকে সতর্ক করে দিয়েও আলোচনার পথ খোলা রেখেছেন৷

খারাপ আবহাওয়ার কারণে দুই দেশের সীমান্ত পরিদর্শন করতে পারেননি ট্রাম্প৷ ঘন কুয়াশার কারণে তাঁর হেলিকপ্টার সেখানে নামতে পারেনি৷ তাই এমন নাটকীয় মঞ্চ ছেড়ে উত্তর কোরিয়ার উদ্দেশ্যে বার্তার জন্য তিনি সংসদে তাঁর ভাষণকেই হাতিয়ার করতে বাধ্য হন৷

ট্রাম্প সে দেশের উদ্দেশ্যে বলেন, একের পর এক নতুন অস্ত্র তাদের মোটেই নিরাপদ করে তুলছে না, উলটে তাদের প্রশাসন ঘোর বিপদে পড়ছে৷ বিশেষ করে পরমাণু অস্ত্র প্রয়োগের হুমকি একেবারেই মেনে নেওয়া যায় না৷ উত্তর কোরিয়াকে একঘরে করে তুলতে তিনি সব দেশের উদ্দেশ্যে আবেদন করেন৷ ট্রাম্প বলেন, উত্তর কোরিয়ার প্রশ্নে অ্যামেরিকা এতকাল যে সংযম দেখিয়ে এসেছে, তাকে দুর্বলতা হিসেবে গণ্য করলে চলবে না৷

তবে সংঘাতের বদলেসংলাপের মাধ্যমে এই সংকট সমাধানের পথও খোলা রাখছেন ট্রাম্প৷ উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উন-এর উদ্দেশ্যে তিনি কিছুটা নমনীয় কণ্ঠে বলেন, বর্তমানে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, তাঁর পিতামহ এমন এক দেশের স্বপ্ন দেখেননি৷ আলোচনার ক্ষেত্রে যথেষ্ট অগ্রগতির উল্লেখ করলেও তাঁর প্রশাসন উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সরাসরি আলোচনা চাইছে কিনা, সে বিষয়ে অবশ্য তিনি কোনো সরাসরি মন্তব্য করেননি৷ উল্লেখ্য, এর আগে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেবার হুমকিও দিয়েছিলেন৷

এর আগে জাপান সফরের সময়েও তিনি অ্যামেরিকা ও তার সহযোগী দেশগুলির সুরক্ষার উপর জোর দেন৷ জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এমন দুর্দিনের সময়ে ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক আরও জোরদার করে তুলতে কোনো উদ্যোগ বাকি রাখেননি৷

ট্রাম্প চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে এসে পৌঁছেছেন৷ উত্তর কোরিয়াকে বশে আনতে চীনের গুরুত্ব সম্পর্কে তিনি যথেষ্ট সচেতন৷ চীন যথেষ্ট আন্তরিকভাবে উত্তর কোরিয়ার উপর চাপ সৃষ্টি করলে কিম জং উন-এর প্রশাসন সত্যি কঠিন সংকটে পড়বে বলে মনে করা হয়৷ শুধু জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা নয়, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আর্থিক সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য বেইজিংয়ের উপর আরও চাপ দিতে চান ট্রাম্প৷ কোরীয় উপদ্বীপে বেড়ে চলা উত্তেজনার কারণে গোটা অঞ্চলে চীনের নিজস্ব কৌশলগত স্বার্থ বিপন্ন হচ্ছে৷ এই অবস্থায় ট্রাম্পের সফর বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷

এসবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন