উলটো বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে টাকা চায় আরসিবিসি | বিশ্ব | DW | 12.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

উলটো বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে টাকা চায় আরসিবিসি

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছে ফিলিপাইন্সের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংক, আরসিবিসি৷ ৮.১০ কোটি ডলার হ্যাকিংয়ের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ব্যাংকটিকে ‘অসৎ আক্রমণ’ করায় এই মামলা বলে জানিয়েছে তারা৷

এজন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে এখন ১৯ লাখ ডলারও দাবি করেছে আরসিবিসি৷ 

ফিলিপাইন্সের রাজধানী ম্যানিলার মাকাতি শহরের আঞ্চলিক আদালতে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে আরসিবিসি কর্তৃপক্ষ৷

আরসিবিসি দাবি করছে, সাইবার হামলার এই ঘটনায় কোনো সংশ্লিষ্টতা না থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশ ব্যাংক তাদেরকে অভিযুক্ত করে যাচ্ছে৷ অভিযোগপত্রে বলা হয়, ‘‘মানহানি, হয়রানি ও হুমকি প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক আরসিবিসির সুনাম, খ্যাতি ও ভাবমূর্তি নষ্টের পরিকল্পনায় নেমেছে৷ উদ্দেশ্য একটাই, আরসিবিসি যাতে বাংলাদেশ ব্যাংককে টাকা পরিশোধ করে৷ যদিও আরসিবিসির কাছে বাংলাদেশের কোনো টাকা পাওনা নেই৷’’ এর ফলে তাদের যে মানহানি হয়েছে তার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে ১০ কোটি পেসো বা কমপক্ষে ১৯ লাখ ডলার চেয়েছে আরসিবিসি৷ বিষয়টি তারা মঙ্গলবার এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে৷

এদিকে চুরি যাওয়া টাকা ফেরত পেতে গেল মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানহাটনে মামলা দায়ের করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক৷ এতে আরসিবিসিকে অর্থ আত্মসাতের ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার জন্য দায়ী করা হয়৷ মামলায় বাংলাদেশকে কারিগরি সব ধরণের সহযোগিতা দেয়ার কথা বলেছে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক৷

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে অজ্ঞাত হ্যাকাররা নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভে থাকা ৮.১০ কোটি ডলার চুরি করে৷ এই টাকা তারা ম্যানিলার মাকাতি শাখার চারটি অ্যাকাউন্টে সরায়৷ অর্থ স্থানান্তরকারী প্রতিষ্ঠান ফিলরেমের মাধ্যমে যা পরে ক্যাসিনোতে পাঠানো হয়৷ নির্দেশনা সত্ত্বেও আরসিবিসি তাদের অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা ছাড় করে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের অভিযোগ রয়েছে৷ ব্যাংকটির শাখা ব্যাবস্থাপক মায়া দিগুইতোর বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে দেশটির আদালতও৷ গত ১০ জানুয়ারি দেশটির আদালত তাকে ৩২ থেকে ৫৬ বছরের কারাদণ্ড ও ১০.৯ কোটি ডলারের জরিমানা করেছে৷

চুরি যাওয়া ৮.১০ কোটি ডলারের মধ্যে এখন পর্যন্ত ফিলিপাইন্সের কাছ থেকে ১.৫ কোটি ডলার পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক, যা মূলত দেশটির এক জুয়ার কারবারি ফেরত দিয়েছে৷

এফএস/জেডএ (রয়টার্স, এবিএস-সিবিএন, রেপলার)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন