উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স... | বিশ্ব | DW | 04.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভাইরাল ভিডিও

উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স...

‘নাইট্যশালা' নয়, থানা৷ চালচিত্রে গারদ৷ তাই বলে কি নাচা বারণ?

উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স, উর্দি ডান্স...

‘নাইট্যশালা' নয়, থানা৷ চালচিত্রে গারদ৷ তাই বলে কি নাচা বারণ?

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের একটি থানায় বলিউডের গানের সঙ্গে উদ্দাম নৃত্য করতে দেখা যায় এক উর্দিধারী পুলিশ অফিসারকে৷ তাঁরই এক সহকর্মী তা ফোনবন্দি করে রাখেন৷ ভিডিওতে দেখা যায়, উর্দি পরে কোমর দুলিয়ে নাচছেন ওই অফিসার৷ আর তাঁর মহিলা সহকর্মীরা রীতিমতো হাত তালি দিয়ে মজা নিচ্ছেন৷ মজা অবশ্য শেষপর্যন্ত থাকেনি৷ আসানসোল পুলিশ কমিশনারেট প্রাথমিকভাবে ওই অফিসারকে ‘ক্লোজ' করেছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তও শুরু হয়েছে৷ ভারতীয় পুলিশ আইন অনুযায়ী, কোনও কর্মী বিভাগের সম্মানহানি ঘটালে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিধান আছে৷ সেই আইনেই তদন্ত শুরু হয়েছে৷ কিন্তু সোশ্যাল নেটওয়ার্কে রসিকদের মন্তব্য, ‘‘পুলিশ বলে কি মানুষ নয়? ওই অফিসার তো কেবল নেচেইছেন, অবমাননাকর তো কিছু করেননি!''

মধ্য ভারতের আরেকটি পুলিশ লাইনে অবশ্য আরও সাংঘাতিক ঘটনা ঘটেছে৷ সেখানে ভোজপুরি গানের সঙ্গে নাচতে দেখা গেয়েছে বেশ কয়েকজন মহিলা পুলিশ কর্মীকে৷ তাঁদের গায়ে উর্দি থাকলেও কারো কারো মতে, খানিক অশ্লীলভাবেই তা ব্যবহৃত হয়েছে৷ সোশ্যাল নেটওয়ার্কে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, পশ্চিমবঙ্গের এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলেও মহিলা পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে কেন কোনও ব্যবস্থা নেয়া হলো না৷ দু'টি ভিডিও-ই ভাইরাল হয়েছে৷

ভিডিওগুলি দেখে কারও কারও মনে পড়েছে, বছরখানেক আগের কথা৷ সেবার কলকাতায় পুলিশের একটি অনুষ্ঠানে শাহরুখ খান নাচতে নাচতে কোলে তুলে নিয়েছিলেন এক উর্দিধারী মহিলা পুলিশ অফিসারকে৷ তা নিয়েও কম বিতর্ক হয়নি৷ ভাইরাল হয়েছিল সেই ভিডিও-ও৷

এসজি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন