উপহারের টিকায় চীনাদের প্রাধান্য | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 16.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

উপহারের টিকায় চীনাদের প্রাধান্য

চীন থেকে উপহার হিসেবে পাওয়া সিনোফার্মের টিকায় বাংলাদেশে বসবাসকারী চীনা নাগরিকরা প্রাধান্য পাচ্ছেন৷ সেই সঙ্গে চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বাংলাদেশের শিক্ষার্থী ও চীনের সঙ্গে যুক্ত ব্যবাসায়ীরাও এই টিকা পেতে চান৷ 

চীনের রাষ্ট্রদূত এরইমধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে ৩০ হাজার ডোজ টিকা চেয়েছেন বাংলাদেশে বসবাসরত চীনা নাগরিকদের জন্য৷ দেশটির নাগরিকদের টিকা দেয়ার জন্য ঢাকার আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালকে তারা বেছে নিয়েছে৷ ৩০ হাজার ডোজ টিকা ওই হসাপাতালের কাছে হস্তান্তরের অনুরোধ করেছে দূতাবাস৷ তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে তারা এখনো টিকা হাতে পাননি৷

চীনা ভ্যাকসিন কবে থেকে দেয়া শুরু হবে তা এখনো ঠিক করেনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর৷ নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ জানান, ‘‘চীনা ভাকসিন জেলা পর্যায়ে পাঠানো হবে কী-না তা আমাদের এখনও জানানো হয়নি৷ আমাদের কাছে অল্প কিছু অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন আছে দ্বিতীয় ডোজের জন্য৷’’

চীনের উপহারের পাঁচ লাখ টিকা ঢাকায় এসেছে ১২মে৷ এই টিকা এখন কেন্দ্রীয় ঔষধাগারে আছে৷ আর এই টিকা কারা পাচ্ছেন তাও অনেকটা স্পষ্ট হচ্ছে৷

অডিও শুনুন 01:24

‘চীনের টিকা দেয়া হলে আমরা যেতে পারব’

বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রকল্পে চীনের প্রায় ১৫ হাজার নাগরিক কাজ করেন৷ তাদের একেক জনের জন্য দুই ডোজ করে ৩০ হাজার ডোজ এরই মধ্যে নিশ্চিত হয়ে গেছে৷ এর আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিদেশি নাগরিকদের অক্সফোর্ডের টিকা দিতে চাইলেও চীনারা আগ্রহ দেখায়নি৷

এদিকে চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা যারা করোনার কারণে দেশে আটকা পড়েছেন তারাও চীনা ভ্যাকসিনে অগ্রাধিকার চান৷ তারা মনে করছেন এর ফলে দেশটিতে যাওয়া সহজ হবে৷ বাংলাদেশি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েন ইন চায়না এজন্য স্বাস্থ্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আদেন করেছে৷

গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে চীনের উহান থেকে দেশে আসেন হুবেই ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির ছাত্র হাবিবুর রহমান হাবিব৷ তিনি এখনও দেশেই অবস্থান করছেন৷ হাবিব বলেন, ‘‘আমরা তিন হাজারের মতো ছাত্র দেশে আটকা পড়েছি৷ এখন আমাদের অনলাইনে ক্লাস হচ্ছে৷ কিন্তু ওখানে গত সেপ্টেম্বর থেকে চীনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি ক্লাস শুরু হয়েছে৷ আমরা এখন সেখানে গিয়ে সরাসরি ক্লাস ও পরীক্ষা দিতে চাই৷ চীনের টিকা আমাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেয়া হলে আমরা চীন যেতে পারব৷’’

অডিও শুনুন 01:49

‘চীনা নাগরিক ছাড়াও শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে’

এদিকে বাংলাদেশের যেসব ব্যবসায়ীদের নিয়মিত ব্যবসার কাজে চীন যেতে হয় তারাও আগ্রাধিকার ভিত্তিতে চীনা টিকা দাবি করেছেন৷ তারা মনে করেন এই টিকা নিলে তাদের চীনে যাতায়াত সহজ হবে৷

পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ব্যবসায়ী ও ছাত্রদের আবেদন বিবেচনা করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে৷ বাংলাদেশ চীন থেকে পাঁচ কোটি ডোজ টিকা আনতে চায়৷ সেটা যাতে জুনের মধ্যেই পাওয়া যায় তার চেষ্টা চলছে৷ বাংলাদেশের তিনটি প্রতিষ্ঠান চীন ও রাশিয়ার টিকা উৎপাদনের পথে এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে৷

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলাম জানান, চীনের উপহারের টিকায় তারা কিছু অগ্রাধিকার বিবেচনা করছেন৷ তবে সাধারণ নীতিমালা আগের মতোই আছে৷ বাংলাদেশে চীনা নাগরিক ছাড়া চীনে যে সব বাংলাদেশি ছাত্র বিশেষ করে টেকনোলজি নিয়ে পড়াশোনা করেন, এখন দেশে আছেন তাদের প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসে অংশ নেয়ার সুযোগ দিতে তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে৷’’

তিনি জানান, এই টিকা কবে থেকে দেয়া শুরু হবে তার পরিকল্পনা চলছে তবে এখনো চূড়ান্ত হয়নি৷ যদিও সেটি ২৮ দিনের মধ্যে দেয়ার একটি সময়সীমা রয়েছে৷ তিনি বলেন, চীন থেকে পাঁচ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন যত দ্রুত সম্ভব আনার চেষ্টা হচ্ছে৷ 

এদিকে ভারত থেকে আনা অক্সফোর্ড-আস্ট্রাজেনেকার টিকার দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে চীনা ভ্যাকসিন ব্যবহার করা যাবে না৷ বর্তমানে টিকাটির আট লাখ ডোজ মজুদ আছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়