উত্তর প্রদেশে দলিত ধর্ষিতার মৃত্যু | বিশ্ব | DW | 29.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

উত্তর প্রদেশে দলিত ধর্ষিতার মৃত্যু

দুই সপ্তাহ ধরে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছিলেন তিনি। উত্তর প্রদেশের হাথরাসের উনিশ বছরের ধর্ষিতা। মঙ্গলবার তাঁর লড়াই থেমে গেল।

দিল্লির এইমসে মারা গেলেন ধর্ষিতা দলিত নারী। দিল্লির নির্ভয়ার মতোই তাঁকে চারজন মিলে ধর্ষণ করার পর অকথ্য অত্যাচার করে। পুরোটাই হয়েছে দিনেদুপুরে, ক্ষেতের মধ্যে। কাছেই ছিলেন তাঁর মা ও বোন। তারপরেও তাঁকে এ ভাবে ধর্ষিত হতে হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত জীবনও গেল।

হাথরাসের এই দলিত পরিবার মাঠে গিয়েছিলেন ঘাস কাটতে। মা, দুই বোন এবং ভাই। সকলে একই জায়গায় কিছুটা ছড়িয়ে ছিটিয়ে ঘাস কাটছিলেন। কিছুটা ঘাস কাটার পর ভাই তা বেঁধে বাড়িতে রাখতে যান। সেই সময় চার-জন উচ্চবর্ণের যুবক এসে মেয়েটির ওড়না ধরে টান মেরে প্রথমে মুখ বেঁধে ফেলে। তারপর তাঁকে পাসে বাজরা খেতে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণ করে।

বেশ কিছুক্ষণ পর মায়ের খেয়াল হয় যে, মেয়ের সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি খুঁজতে গিয়ে দেখেন অজ্ঞান অবস্থায় মেয়ে পড়ে আছে। জিভ কাটা। দেহের প্রচুর জায়গায় আঘাত।

ধর্ষিতার বোন জানিয়েছেন, প্রথমে পুলিশ কোনো সহযোগিতা করছিল না। পরে জনরোষ বাড়তে থাকায় তারা নড়েচড়ে বসে। এখন চার জন ধর্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছে, তারা প্রথমে একজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। তার কাছ থেকে বাকি তিনজনের নাম পাওয়া যায়। তাদেরও গ্রেপ্তার করা হয়।

যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধীরা বেশ কিছুদিন ধরে সোচ্চার। উত্তর প্রদেশে খুন, ধর্ষণ সহ বিভিন্ন অপরাধ বাড়ছে। পুলিশের বিরুদ্ধে ফেক এনকাউন্টারের প্রচুর অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু তারপরেও অপরাধ কমছে না। হাথরাসের এই ঘটনা সেটাই দেখিয়ে দিলো।

জিএইচ/এসজি(পিটিআই, এএনআই)

বিজ্ঞাপন