উত্তর কোরিয়া থেকে মুক্তি পাওয়া মার্কিন শিক্ষার্থী মারা গেছেন | বিশ্ব | DW | 20.06.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

উত্তর কোরিয়া থেকে মুক্তি পাওয়া মার্কিন শিক্ষার্থী মারা গেছেন

উত্তর কোরিয়ায় প্রায় এক বছর বন্দি থাকার পর গত সপ্তাহে মুক্তি পাওয়া মার্কিন শিক্ষার্থী অটো ওয়ার্মবিয়ার সোমবার মারা গেছেন৷ প্রোপাগান্ডা পোস্টার চুরির অভিযোগে তাঁকে ১৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷

ওয়ার্মবিয়ারের পরিবার এক বিবৃতিতে তাঁর মৃত্যুর খবর জানিয়েছে৷ সাবেক মার্কিন বাস্কেটবল তারকা ডেনিস রডম্যানের অনানুষ্ঠানিক উত্তর কোরিয়া সফরের পর গত সপ্তাহে দেশটি ওয়ার্মবিয়ারকে মুক্তি দিয়েছিল৷ এরপর তাঁকে যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইওতে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল৷ কারণ মুক্তির সময় ওয়ার্মবিয়ার কোমায় ছিলেন৷ ‘মানবিক কারণে' ২২ বছরের এই মার্কিন শিক্ষার্থীকে ছাড়া হয়েছে বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া৷

কমিউনিস্ট এই দেশ থেকে প্রোপাগাণ্ডা পোস্টার পাচারের চেষ্টার অভিযোগে গত বছর ওয়ার্মবিয়ারকে ১৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷ তাঁর বিরুদ্ধে রায় দেয়ার আগে একটি স্বীকারোক্তিমূলক ভিডিও প্রকাশ করে দেশটি৷ ভিডিওতে ওয়ার্মবিয়ার বলেন, তিনি ‘জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল' করেছেন৷

ছেলের মৃত্যুর সংবাদ জানিয়ে দেয়া বিবৃতিতে ওয়ার্মবিয়ারের পরিবার বলেছে, ‘‘উত্তর কোরিয়ায় আমাদের ছেলের উপর যে ধরণের নির্যাতন করা হয়েছে, তার প্রেক্ষিতে অন্য কিছু হওয়া সম্ভব ছিল না৷''

ওহাইওতে ওয়ার্মবিয়ারকে চিকিৎসা দেয়া ডাক্তারও বলেন, উত্তর কোরিয়ায় বন্দি থাকা অবস্থায় তাঁর মস্তিষ্ক দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ওয়ার্মবিয়ারের পরিবারের প্রতি ‘গভীর সমবেদনা' প্রকাশ করেছেন৷ এই সময় তিনি উত্তর কোরিয়া সরকারের ‘নিষ্ঠুরতা'র উল্লেখ করেন৷

মার্কিন আইনপ্রণেতারা উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

উল্লেখ্য, ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর  উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে উত্তেজনা বেড়েছে৷ তবে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে দেখা করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন