উত্তর কোরিয়ায় ইয়োনমির দুঃসহ স্মৃতি | বিশ্ব | DW | 06.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

উত্তর কোরিয়ায় ইয়োনমির দুঃসহ স্মৃতি

২০০৭ সালে মাত্র ১৪ বছর বয়সে উত্তর কোরিয়া থেকে পালিয়ে চীনে, পরে দক্ষিণ কোরিয়ায় আশ্রয় নেন ইয়োনমি পার্ক৷ তারও সাত বছর পর ২০১৪ সালে বিশ্ব শুনতে পায় তাঁর জীবনের এক করুণ গল্প৷ যাঁরা সে গল্প এখনও জানেন না, এ লেখা তাঁদের জন্যই৷

তিন বছর আগেও ইয়োনমিকে কেউ চিনতেন না৷ প্রতি বছরের মতোই ২০১৪ সালেও ওয়ান ইয়ং ওয়ার্ল্ড আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে আয়োজন করে বিশ্ব যুবা সম্মেলন৷ বিশ্বের নানা সমস্যা ও তার সমাধান নিয়ে আলোচনা করতে আমন্ত্রণ পান বিভিন্ন দেশের তরুণ-যুবকরা৷ তাঁদের একজন ছিলেন উত্তর কোরিয়ার ইয়োনমি৷

কোরিয়ার ঐতিহ্যবাহী পোশাক পড়ে মঞ্চে আসেন তিনি৷ কথা শুরুর আগেই কান্নায় ভেঙে পড়েন ইয়োনমি৷ ধীরে ধীরে বর্ণনা করেন কী দুঃসহ স্মৃতি৷

ইয়োনমি বলেন, বেড়ে ওঠার পুরো সময়টাতেই নারী-পুরুষের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক তিনি দেখেননি৷ কোনো বইয়েও এর উল্লেখ থাকতো না, কোনো গানেও না৷ ‘‘ওখানে কোনো রোমিও এবং জুলিয়েট নেই৷ প্রতিটি গল্পেই শুধু স্বৈরাচারি কিমদের প্রোপাগান্ডাই থাকতো৷’’

 

১৯৯৩ সালে উত্তর কোরিয়ার রিয়াংগাং প্রদেশের হিয়েসেনে জন্ম হয় ইয়োনমির৷ কখনও বোঝেননি স্বাধীনতা কী জিনিস৷ ইয়োনমির সবচেয়ে কাছের বন্ধুর মাকে হলিউডের সিনেমা দেখার অপরাধে প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়৷ তাঁর বয়স তখন মাত্র ৯ বছর৷

উত্তর কোরিয়া থেকে চীনে সপরিবারে পালিয়ে গিয়েও সহজে বাঁচতে পারেননি তাঁরা৷ চীনে পলাতক অবস্থাতেই বাবা মারা গেলে তাঁকে গোপনে কবর দেয়া হয়৷ এমনকি, উত্তর কোরিয়ার ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হবে, এই ভয়ে কাঁদতেও পারেননি ইয়োনমি৷

যেদিন উত্তর কোরিয়া থেকে পালান ইয়োনমি, সেদিন তাঁর সামনেই ধর্ষণের শিকার হন তাঁর মা৷ ধর্ষকেরা ছিল চীনা নাগরিক৷ সেই ভয়াবহ দিনের কথা দর্শকদের সামনে তুলে ধরেন ইয়োনমি৷ ‘‘তারা আমাকেই ধর্ষণ করতে চেয়েছিল৷ কিন্তু আমার বয়স ছিল মাত্র ১৩, আমি ছিলাম দুর্বল৷ আমার মা আমাকে বাঁচাতে নিজেকে তাদের হাতে তুলে দেন৷’’

প্রায় ৮ মিনিটের এ বক্তব্যে বিশ্ববাসী ও রাজনৈতিক নেতাদের উত্তর কোরিয়ার জনগণকে মুক্ত করতে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান৷

দুই বছর আগের ঘটনা হলেও, স্বাধীনতা, মতপ্রকাশের ইস্যুগুলিতে এখনও ক্রমাগত ওঠে আসে ইয়োনমির এই বক্তব্য৷ মাত্র দু'দিনেই এই ভিডিও পৌঁছে যায় পাঁচ কোটি মানুষের কাছে৷ তবে এখন বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজে ছড়িয়ে গেছে এই ভিডিও৷ দেখেছেন প্রায় ১০ কোটিরও বেশি মানুষ৷

এডিকে/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন