উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন সামরিক হামলার ইঙ্গিত | বিশ্ব | DW | 18.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া

উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন সামরিক হামলার ইঙ্গিত

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে বিশ্বনেতাদের সামনে ভাষণ দিতে চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ উপস্থিত থাকছেন উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীও৷ অ্যামেরিকা সে দেশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপের ইঙ্গিত দিচ্ছে৷

উত্তর কোরিয়াকে বশে আনতে কূটনৈতিক উদ্যোগ এখনো তেমন সফল হয়নি৷ জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ সর্বসম্মতিক্রমে সে দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় সায় দিলেও চীন ও রাশিয়া এই সংকটের মুখে নিজেদের স্বার্থকে প্রাধান্য দিচ্ছে৷ শুক্রবার উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর সোমবার উত্তর কোরিয়ার কাছেই এই দুই দেশ যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়ে শক্তি প্রদর্শন করছে৷ ওখোটস্ক সাগরের দক্ষিণে দুই দেশের নৌবাহিনী দ্বিতীয় পর্বের মহড়া চালাচ্ছে৷ এর আগে বাল্টিক সাগরে প্রথম পর্বের মহড়া হয়েছিল৷ অ্যামেরিকা ও দক্ষিণ কোরিয়ার সমরসজ্জাকে চীন ও রাশিয়া হুমকি হিসেবে দেখছে৷ তাই উত্তেজনা কমাতে সব পক্ষকেই সামরিক আস্ফালন কমানোর প্রস্তাব দিচ্ছে এই দুই দেশ৷

এমনই প্রেক্ষাপটে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে বিশ্বনেতারা অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে কোরীয় উপদ্বীপে সংকট নিয়েও আলাপ-আলোচনা করতে চলেছেন৷ তাঁদের বক্তব্য কার্যকর করার কোনো বাধ্যবাধকতা না থাকা সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়ার হুমকির প্রশ্নে যত বেশি সম্ভব দেশের সমর্থন আদায় করতে চায় অ্যামেরিকা৷

মঙ্গলবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জাতিসংঘে তাঁদের সামনে ভাষণ দেবেন৷ জাতিসংঘের উপর তেমন আস্থা না দেখালেও ট্রাম্প প্রশাসন উত্তর কোরিয়া সংকটের আন্তর্জাতিক মাত্রা তুলে ধরতে চায়৷ ট্রাম্প বলতে চান, এই সংঘাত অ্যামেরিকা ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে নয়, উত্তর কোরিয়া গোটা বিশ্বকে হুমকি দিচ্ছে৷ জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হেলি বলেছেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের হাতে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবার আর কোনো পথ বাকি নেই৷ সে দেশের পরমাণু কর্মসূচি বন্ধ করতে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কেই শেষ পর্যন্ত পদক্ষেপ নিতে হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন তিনি৷

ট্রাম্পের ভাষণের সময় প্রথম সারিতে উপস্থিত থাকবেন উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিরা৷ সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং-হো সর্বোচ্চ প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে আলোচনা করবেন৷ উল্লেখ্য, তিনি শুক্রবার এই অধিবেশনে ভাষণ দেবেন৷ গুতেরেস বলেছেন, রাজনৈতিক পথেই এই সংকটের সমাধানসূত্র খুঁজতে হবে৷ সামরিক সংঘাত হলে কয়েক প্রজন্মকে তার পরিণতি সামলাতে হবে৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের সঙ্গে রবিবার আলোচনা করেছেন৷ তবে সেই বৈঠকে সিরিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউক্রেন সংকটের পাশাপাশি উত্তর কোরিয়া নিয়ে আলোচনা হয়েছে কিনা, তা স্পষ্ট নয়৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

১৮ এপ্রিলের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়