উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিরা আবার বিদেশে যেতে পারবেন | বিশ্ব | DW | 09.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিরা আবার বিদেশে যেতে পারবেন

অলিম্পিক গেমসের প্রতিনিধি দলে অংশ নেয়ার জন্য উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দলের বেশ কিছু সদস্যের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে জাতিসংঘ৷ এতদিন তাঁদের বিদেশে যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা ছিল৷

সে সময় গ্রিসের নগর রাষ্ট্রগুলির মধ্যে যুদ্ধ লেগেই থাকতো৷ বহু চেষ্টা করেও বৈরিতায় রাশ টানা যেতো না৷ অলিম্পিক গেমস শুরু হয়েছিল সেই যুদ্ধ থামানোর জন্যই৷ এবং কী আশ্চর্য, যুদ্ধের দামামা খানিকটা হলেও কমেছিল সেই কয়েক শতাব্দী আগে৷

একই পথে কি হাঁটছে উত্তর এবং দক্ষিণ কোরিয়া? যুদ্ধ এবং দু'দেশের রক্তক্ষয়ী ভাগ দেখেছে ইতিহাস৷ দেখেছে, যে কোনো ঘটনায় দু'দেশের মধ্যে যুদ্ধকালীন পরিস্থিতি৷ গত একবছরে উত্তর কোরিয়া অ্যামেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিরুদ্ধে পারমানবিক অস্ত্র ব্যবহারেরও হুমকি দিয়েছে৷ এক সময় মনে হয়েছিল, অ্যামেরিকা এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে উত্তরের যুদ্ধ লাগলো বলে৷

অথচ উইন্টার অলিম্পিক্স বা শীতকালীন অলিম্পিক সেই সমস্ত বৈরিতায় সাময়িক জল ঢেলে দিয়েছে৷ দলে দলে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিরা পৌঁছে গিয়েছেন দক্ষিণে৷ শুধু তাই নয়, উত্তর কোরিয়ার যে সমস্ত রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধির অন্য দেশে যাওয়ার ওপর জাতিসংঘ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল, তা-ও সাময়িকভাবে তুলে নেওয়া হচ্ছে৷

চো হুই উত্তর কোরিয়ার জাতীয় ক্রীড়া অ্যাকাডেমির চেয়ারম্যান৷ এর আগে দেশের অন্যান্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বও তিনি সামলেছেন৷ এবং সে সময়েই প্রোপাগান্ডা করার অভিযোগে জাতিসংঘ তাঁর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করে৷ কিন্তু অলিম্পিকে তিনি উত্তর কোরিয়ার অন্যতম অতিথি৷ ফলে দক্ষিণ কোরিয়া জাতিসংঘের কাছে আবেদন করে যে, চো'য়ের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হোক৷ জাতিসংঘও সেই আবেদনে সাড়া দেয়৷ শুধু তাই নয়, উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিদের অন্য দেশ থেকে বিলাসী সামগ্রী কেনার উপরেও নিষেধাজ্ঞা ছিল৷ সাময়িক সময়ের জন্য সেই নির্দেশও শিথিল করা হয়েছে৷ সবচেয়ে বড় কথা, কিম জং উনের সবচেয়ে ছোট বোন স্বয়ং দক্ষিণ কোরিয়ায় আসছেন অলিম্পিক্স উপলক্ষ্যে৷ সে দেশের ইতিহাসে এ এক বিরল ঘটনা৷

সব মিলিয়ে এক সুন্দর মৈত্রীভাব তৈরি হয়েছে উইন্টার অলিম্পিক্সকে ঘিরে৷ এখন দেখার, অলিম্পিক গেমসের পরেও এই সৌহার্দ্য বজায় থাকে কিনা!

এসজি/ এসিবি (ডিডাব্লিউ,রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন