উত্তরপ্রদেশে আবার সাংবাদিক খুন | বিশ্ব | DW | 25.08.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

উত্তরপ্রদেশে আবার সাংবাদিক খুন

গত মাসে সাংবাদিক খুন হয়েছিলেন গাজিয়াবাদে। এ বার হলেন বালিয়ায়। পুলিশ অবশ্য দাবি করছে, সম্পত্তির কারণেই খুন। যা মানতে নারাজ পরিবার।

উত্তরপ্রদেশের বালিয়ায় এক সাংবাদিককে ধাওয়া করে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হলো। তাঁর নাম রতন সিং। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের স্থানীয় প্রতিনিধি ছিলেন তিনি। সোমবার রাত নয়টা নাগাদ ৪২ বছর বয়সী এই সাংবাদিককে তাঁর গ্রামের বাড়ির কাছেই হত্যা করা হয়।

পুলিশের দাবি, পেশার কারণে তাঁকে খুন হতে হয়নি। সম্পত্তি নিয়ে ঝামেলার কারণেই এই হত্যা। তাঁর বাড়ির কছে একটা জমি সহ বাড়ি নিয়ে বিরোধ চলছিল। সম্প্রতি জনাকয়েক দুষ্কৃতী সেই বাড়ি ও জমি ঘিরে পাঁচিল তুলে দেয়। জমিতে খড়ের গাদাও রেখে দেয়। মনোজ সিং সেই খড় সরিয়ে দেন। তারপর বিরোধ চরমে ওঠে এবং ওই তিনজন তাঁকে হত্যা করে।

কিন্তু মনোজ সিং-এর বাবা বিনোদ সিং পুলিশের এই দাবি কিছুতেই মানতে চাননি। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন. আপনারা ঘটনাস্থলে গিয়ে জেনে আসুন সম্পত্তি নিয়ে কোনো ঝগড়া ছিল কি না। পুলিশ গল্প বানাচ্ছে বলে তাঁর অভিযোগ। তাঁর দাবি, মনোজকে ভুয়ো কারণ দেখিয়ে গ্রামে ডেকে পাঠিয়ে খুন করা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, গত কয়েক বছর ধরেই মনোজ সিং-এর গ্রামের বাড়িতে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলছে। সোমবার মনোজ তাঁর গ্রামের বাড়িতে যান। সেখানেই ঝামেলার পর তিনজন মিলে তাঁকে খুন করে। তিনজনকেই পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজমগড় রেঞ্জের ডিআইজি সুভাষ দুবে জানিয়েছেন, এটা পুরোপুরি সম্পত্তি নিয়ে ঝগড়ার ফল।

উত্তরপ্রদেশে নিয়মিত সাংবাদিকরা আক্রান্ত ও খুন হচ্ছেন। গতমাসে দিল্লি ঘেঁষা গাজিয়াবাদে হয়েছেন। বাচ্চা দুই মেয়েকে নিয়ে মোটরসাইকেলে যাওয়ার সময় আক্রান্ত হন বিক্রম জোশী। তাঁকে গুলি করে হত্যা করে দুষ্কৃতীরা।

এমনিতেই উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রায়ই প্রশ্ন তোলেন বিরোধী নেতারা। কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে এ নিয়ে বিজেপি নেতাদের বহুবার কথার লড়াই হয়েছে। যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে সাংবাদিক, সাধারণ মানুষের খুনের একাধিক ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের বিরুদ্ধেও ভুয়ো এনকাউন্টার করে মারার অভিযোগ রয়েছে।

জিএইচ/এসজি(এএনআই, এনডিটিভি)