উগান্ডায় প্লাস্টিক সরিয়ে জায়গা করে নিচ্ছে কাগজের থলে | অন্বেষণ | DW | 23.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

উগান্ডায় প্লাস্টিক সরিয়ে জায়গা করে নিচ্ছে কাগজের থলে

প্লাস্টিকের লাগামহীন ব্যবহার যে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি করছে, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ উগান্ডায় কেনাকাটার জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগের ব্যবহার পুরোপুরি নিষিদ্ধ করে পরিবেশবান্ধব কাগজের থলে ব্যবহারের উদ্যোগ চলছে৷

উগান্ডায় প্লাস্টিক ব্যাগের ব্যাপক ব্যবহার হয়৷ তবে রাজধানী কাম্পালার একটি রেস্তোরাঁ একটি ব্যতিক্রম৷ স্থানীয় ভাষায় ‘কাভিরা’ নামের এই প্লাস্টিক ব্যাগের বদলে এই রেস্তোরাঁয় কাগজের থলে ব্যবহার করা হয়৷ রেস্তোরাঁর ম্যানেজার ফিলিপ ডিসুজা বলেন, ‘‘আমরা অত্যন্ত পরিবেশবান্ধব এবং আমরা কাভিরা ব্যবহার করে পরিবেশের ক্ষতি করতে চাই না৷ তাই এটি শুধু আমাদের জন্য নয়, আমাদের সন্তানসন্ততিদের জন্যও অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য৷’’

চলতি বছর উগান্ডায় কেনাকাটার জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগ নিষিদ্ধ করার কথা চলছে৷ তার বদলে বায়োডিগ্রেডেবেল কাগজের থলে চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে৷ এমন প্রবণতার ফলে স্থানীয় নারীদের এক গোষ্ঠী কাগজের থলি বানানোর কাজে আরও উৎসাহ পাচ্ছে৷ স্থানীয় কলাগাছের তন্তু দিয়েই সেগুলি তৈরি হচ্ছে৷

ভিডিও দেখুন 02:46

উগান্ডায় প্লাস্টিকের জায়গা নিচ্ছে কাগজের থলে

উগান্ডার অনেক খামারে কলার তন্তুকে বর্জ্য হিসেবে গণ্য করা হয়৷ কিন্তু এই গোষ্ঠী তা দিয়ে কাগজ তৈরি করছে৷ পেপার ক্রাফট আফ্রিকা লিমিটেড কোম্পানির হ্যারিয়েট নানটালে বলেন, ‘‘আমরা কাঁচি দিয়ে এগুলি কাটি৷ তারপর পানিতে ফোটাই৷ তারপর প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে মিশ্রণ তৈরি করা হয়৷ আমরা তা মণ্ডে পরিণত করি, বিশাল আধারে পানির সঙ্গে তা ঢেলে দেই৷ পাতলা স্ক্রিন বা ছাঁকনিতে সেগুলি তুলে নিয়ে পানি ঝরিয়ে ফেলি৷ ফলে তন্তু উপরে থেকে যায়৷ তারপর ব়্যাকে ঝুলিয়ে সেগুলি শুকানো হয়৷’’

কমপক্ষে ৬ ঘণ্টা রোদে শুকানোর পর সেটি শক্ত কাগজে পরিণত হয়৷ নারীরা সাবধানে সেই কাগজ কাজে লাগিয়ে একাধিক পণ্য তৈরি করেন৷ সাধারণ কাগজ থেকে শুরু করে কেনাকাটার থলে, বই ও গ্রিটিং কার্ড ইত্যাদি তৈরি হয়৷ হ্যারিয়েট নানটালে জানান, ‘‘গত বছর আমরা ক্যানাডায় রপ্তানির জন্য প্রায় ৫,০০০ কার্ড তৈরি করেছিলাম৷ তারপর অ্যামেরিকার জন্য প্রায় ২,০০০ কার্ড৷ নানা রকম মানুষ এখানে এসে এই পণ্য দেখে কিছু অর্ডার দেন৷ আমরা উৎপাদন করে তা পাঠিয়ে দেই৷’’

কাম্পালায় তাঁদের প্রধান খদ্দের হলো ক্রাফটের দোকান. রেস্তোরাঁ ও সুপারমার্কেট৷ প্লাস্টিক ব্যাগ নিষিদ্ধ হলে তাঁদের জন্য আরও সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে এই নারীদের আশা৷

জুলিয়াস মুগাম্বওয়া/এসবি

গতবছরের ছবিঘরটি দেখুুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন