উইগুর মুসলিমদের নির্যাতনের সাফাইয়ে চীনা পত্রিকা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 13.08.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

চীন

উইগুর মুসলিমদের নির্যাতনের সাফাইয়ে চীনা পত্রিকা

জাতিসংঘের একটি প্রতিবেদনে লাখ লাখ উইগুর মুসলিমকে বন্দি শিবিরে আটকে রাখা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশের পর শিনচিয়াংয়ে চীনের নীতির পক্ষে যুক্তি দিয়েছে দেশটির ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির একটি পত্রিকা৷

শিনচিয়াংয়ের পশ্চিমাঞ্চলে উইগুরদের বিরুদ্ধে চীনের কঠোর নিরাপত্তা নীতি ওই এলাকাকে ‘বড় ধরনের অস্থিরতা' থেকে রক্ষা করেছে বলে দাবি করেছে পত্রিকাটি৷

চীন উইগুরদের নিয়ে তাদের নীতির পশ্চিমা সমালোচনা প্রত্যাখ্যান করে আসছে

বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে শুক্রবার জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদন প্রকাশের পর সোমবার গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকীয়তে প্রথম এ বিষয়ে জবাব দেওয়া হয়েছে৷

জাতিসংঘ বলছে, লাখ লাখ উইগুরকে আটকে রাখা হয়েছে, যা ‘বড় ধরনের গোপন বন্দি শিবিরে' রূপ নিয়েছে৷

জবাবে সম্পাদকীয়তে বলা হয়, ‘‘চীনা কমিউনিস্ট পার্টির শক্তিশালী নেতৃত্ব, দেশের জাতীয় শক্তি এবং স্থানীয় কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীল আচরণে শিনচিয়াংকে বড় অস্থিরতা থেকে রক্ষা করা গেছে৷ ‘চীনের সিরিয়া' বা ‘চীনের লিবিয়া' হওয়ার নিয়তি থেকে তাকে রক্ষা করা গেছে৷''

চীনের ওপর বাইরে থেকে চাপ দেওয়া এবং বাস্তব পরিস্থিতি ‘বুঝতে না পারার' জন্য পশ্চিমাদের সমালোচনা করা হয়েছে সম্পাদকীয়তে৷ শিনচিয়াং থেকে অস্থিরতা দূরে রাখাকে ‘বিরাট মানবাধিকার' হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে৷

গ্লোবাল টাইমস লিখেছে, ‘‘শিনচিয়াং নিরাপত্তা পরিস্থিতির উত্তরণ একটি বড় ধরনের ট্র্যাজেডি ও অসংখ্য মানুষের প্রাণ বাঁচিয়েছে৷ চীনের শক্তিশালী আইন এবং ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টিকে অভিনন্দন৷ পশ্চিমারা যে হুজুগ তোলে, তাতে অনেক দেশ ও এলাকা ধ্বংস হয়ে গেছে৷ শিনচিয়াংয়ে যখন একই ধরনের শয়তানের প্রভাব ছড়াচ্ছিল, তখন তা চূড়ান্তভাবে থামানো গেছে৷''

জাতিসংঘের একটি মানবাধিকার প্যানেল বলছে, স্বায়ত্তশাসিত উইগুর অঞ্চলে ‘ইসলামের প্রতি বিদ্বেষ' ও কমিউনিস্ট পার্টির প্রতি আনুগত্য আনতে লাখ লাখ উইগুর মুসলিমকে ‘রাজনৈতিক শিবিরে' জোর করে আটকে রাখা হয়েছে বলে তাদের কাছে তথ্য রয়েছে৷

এ ধরনের কোনো ঘাঁটির কথা স্বীকার না করে গ্লোবাল টাইমেসর সম্পাদকীয়তে বলা হয়, ‘‘শিনচিয়াংয়ে আজকের শান্তি ও স্থিতিশীলতার পেছনে কঠোর নিয়ম-নীতির ভূমিকা রয়েছে৷ শিনচিয়াংয়ের সব জায়গায় পুলিশ ও নিরাপত্তা চৌকি দেখা যায়৷''

শিনচিয়াং ইসলামপন্থি উগ্রবাদী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হুমকির মুখে রয়েছে বলে চীনের অভিযোগ৷ তাদের ভাষ্যমতে, ওই অঞ্চলে টার্কিক ভাষাভাষী উইগুর এবং হান চীনা সম্প্রদায়ের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টির লক্ষ্যে অনেকবার হামলা চালানো হয়েছে৷

অপরদিকে উইগুরদের অসন্তোষের জন্য তাদের প্রতি সংঘটিত দমন-পীড়ন ও বৈষম্যকে দায়ী করে মানবাধিকার গ্রুপগুলো৷

কয়েকশ' উইগুর জঙ্গি ইরাক ও সিরিয়ায় আইএস এবং অন্যান্য জঙ্গি গোষ্ঠীতে যোগ দিয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷ তারা শিনচিয়াংয়ে ফিরে সমস্যা তৈরি করতে পারে বলে শঙ্কা রয়েছে৷

এএইচ/ এসিবি (এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন