ঈদের জামাতে করোনামুক্তির মোনাজাত | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 21.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ঈদের জামাতে করোনামুক্তির মোনাজাত

বাংলাদেশে করোনা বিধিনিষেধের মধ্যেই মসজিদে মসজিদে হাজারো মুসলমান ঈদের নামাজে অংশ নিয়েছেন৷ মোনাজাতে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা এবং ‘বালা মুসিবত' থেকে সুরক্ষা চাওয়া হয় আল্লাহর কাছে৷

ঢাকায় ঈদের জামাত

ঢাকায় ঈদের জামাত

ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানায়, সকাল ৭টায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে এবারের কোরবানির ঈদের প্রধান জামাত হয়৷ মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান ইমামতি করেন৷ মহামারির ষোল মাসে এর আগে তিনটি ঈদ হয়েছে৷ এবার কোরবানির ঈদ হচ্ছে বাংলাদেশে সংক্রমণের সবচেয়ে খারাপ এক সময়ে৷রোজার ঈদের তুলনায় বুধবার ঈদের জামাতে মানুষের সংখ্যা ছিল তুলনামূলকভাবে কম৷ নামাজের আগে মসজিদের মাইকে বারবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে জামাতে অংশ নিতে বলা হয়৷

বায়তুল মোকাররমে মসজিদের বাইরে ছিল নামাজে আসা মানুষের দীর্ঘ লাইন৷ ঈদ জামায়াতে শিশু ও বৃদ্ধদের অংশ নিতে নিরুৎসাহিত করা হলেও অনেকে সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে ঈদের নামাজে এসেছেন৷ প্রবীণরাও বায়তুল মোকাররমে নামাজে অংশ নিয়েছেন৷

বায়তুল মোকাররমে প্রথম জামাতে ঈদের নামাজ পড়েন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরপোরেশনের মেয়র ফজলে নূর তাপস৷

Bangladesch | Eid al-Adha

বায়তুল মোকাররম মসজিদের প্রবেশপথে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল পুলিশ

নামাজ শেষে সবাইকে ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি, ‘‘সবাই কোরবানির বর্জ্য পরিচ্ছন্ন কর্মীর হাতে দেবেন৷ অনেক পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিয়োজিত৷ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণ হবে৷’’ নিরাপত্তা জন্য বায়তুল মোকাররম এলাকায় পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি র‌্যাবের গাড়িও দেখা যায়৷

দেশে ঈদের প্রধান জামাতটি হয় ঢাকায় জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে৷ সেখানেই রাষ্ট্রপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ, কূটনীতিকসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ জামাতে নামাজ পড়েন৷ মহামারির কারণে গত তিনটি ঈদের মত এবারও তা করা যায়নি৷ তাছাড়া কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ার কিংবা দিনাজপুরের গোর-ই শহীদ ময়দানেও এবার ঈদের জামাত হয়নি৷

ঈদের আগের দিন করোনা ভাইরাস প্রাণ কেড়ে নিয়েছে বাংলাদেশের ২০০জনের প্রাণ৷ এ পর্যন্ত দেশে মোট ১৮ হাজার ৩২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্ত হয়েছে মোট ১১ লাখ ২৮ হাজার ৮৮৯ জন৷

ঈদের শুভেচ্ছা বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদ পালনেও স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলেছেন৷ রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, ‘‘করোনার কারণে দেশের জনগণের জীবন ও জীবিকা আজ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি৷ আমি দেশের আপামর জনগণের প্রতি কুরবানির মর্মার্থ অনুধাবন করে সংযম ও ত্যাগের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানাচ্ছি৷”  

এনএস/এসিবি (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়