ঈদের আনন্দ কেড়ে নিলো করোনা আর বন্যা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 20.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ঈদের আনন্দ কেড়ে নিলো করোনা আর বন্যা

এমনিতেই এখানে ঈদ হয় ঢিলেঢালা, তার ওপর এবার পড়েছি বন্যার কবলে৷ এর আগে বন্যার পানি দেখেছি রাইনের আশেপাশে৷ এবার বাড়িতে পানি ঢোকায় জীবনে প্রথম দেখলাম বন্যা কত ভয়ঙ্কর!

 প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ঈদের দিনটি আমাদের অন্যান্য দিনের মতোই কাটে, অর্থাৎ, সারাদিন অফিস করি৷ রাতে সেমাই পোলাও রান্না হয় আর ছুটির দিনে হয়ত কয়েকটি পরিবার কোনো বাড়িতে মিলিত হই, হয় খাওয়া-দাওয়া, আড্ডা৷ এমনটাই চলছে বহুদিন ধরে৷ কিন্তু গত বছর করোনা এসে পাল্টে দিয়েছে সে নিয়ম৷ আর এবারের ঈদে বাধ সেধেছে বন্যা৷

জার্মানিতে আসার পর পর দেখেছি বাংলাদেশকে বন্যা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগের দেশ হিসেবেই জার্মানরা চেনেন৷ সময়ের সাথে বন্যার জায়গা নিয়েছে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প৷ সত্যি বলতে কি, আমি সেই বন্যার দেশের মেয়ে হলেও দেশের উঁচু এলাকা ময়মনসিংহ শহরে বেড়ে ওঠায় বানের পানির সাথে কখনো সরাসরি পরিচয় ঘটেনি আমার৷ 

তবে এবার পরিচয় হলো! গত বুধবার হঠাৎ করেই আমাদের মেয়ে ফোন করে জানালো ওর বাড়ির সামনের পুরো রাস্তা পানিতে ডুবে গেছে৷ আমি তো হতভম্ব! আমরা যেন কিছুতেই ওখানে না যাই, সাবধান করে দিলো সে৷ আসলে কয়েকদিন থেকে অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছিল, তাই বলে এমন ভয়ঙ্কর অবস্থা হতে পারে কোনোদিন কল্পনাও করিনি৷

আমাদের বাড়ি থেকে ওর বাড়ি খুবই কাছে, হেঁটেও যাওয়া যায়৷ এখানে অবশ্য বন্যার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি৷ যা-ই হোক, ঘন্টা খানেক পরে পানি কিছুটা  কমে গেলে আমরা ওখানে যাই৷ পরিস্থিতি বুঝে ওঠার আগেই  কয়েক মিনিটের মধ্যে আবার পুরো রাস্তা ডুবে গেল ! আরেকটু বৃষ্টি হলেই হয়ত বাড়ির ভেতরে, মানে বসার ঘরে পানি ঢুকে যেতো! গ্রাউন্ড ফ্লোরে পানি না ঢুকলেও আমাদের চোখের সামনেই বাড়ির বেজমেন্টে পানি ঢুকতে শুরু করেছে৷ বাড়ির জানালা বন্ধ থাকা সত্ত্বেও জানালার পাশ দিয়ে আসা পানির প্রবল চাপ আমাকে নায়াগ্রা ফলসের কথাই মনে করিয়ে দিচ্ছিল ৷ বলাই বাহুল্য যে, ঐ বাড়িটিতে এর আগে আমরা পুরো পরিবার কুড়ি বছর ছিলাম, কিন্তু কখনো এমনটা দেখিনি!  আসলে আমরা দেখছি সারা বিশ্বে বন্যার প্রকোপ যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে গরম৷ আবার শীতও বেড়েছে কোনো কোনো অঞ্চলে৷ আর সেই সাথে সারা বিশ্বে করোনার আগমন! জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবই নাকি এর মূল কারণ, দাবি বিশেষজ্ঞদের৷

যা বলছিলাম, এর আগে জার্মানিতে বন্যা কিছুটা দেখলেও এমন ভয়ঙ্কর বন্যা জীবনে প্রথম দেখলাম, সেটাও আবার নিজেদের বাড়িতে৷ বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে দেখছিলাম হাঁটু জলে নেমে প্রতিবেশীরা একে অপরের খবর নিচ্ছেন, বাড়ির ভেতরের পানি পাম্প করে বাইরে ফেলতে  সাহায্য করছেন৷ ফায়ার সার্ভিস এসেছে সাথে সাথেই, বাড়ি চেক করে চলে গেছে যাদের বেশি প্রয়োজন, তাদের কাছে৷ কারণ, একই সময়ে কোলনে প্রায় নয়শ বাড়িতে বৃষ্টির পানি ঢুকেছে৷ পানি পাম্পের কাজে সাহায্য করতে মেয়ের জার্মান বন্ধুরা গভীর রাতেই এসেছে, পরের দিনও এসেছে অনেকে৷ আসলে মানুষের জীবনে ভালো বন্ধু এবং প্রতিবেশীদের সাথে ভালো সম্পর্ক থাকা যে কতটা প্রয়োজন, তা এমন দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে বেশ বোঝা যায়৷

Nurunnahar Sattar, DW-Mitarbeiterin Bengali Programm

নুরুননাহার সাত্তার, ডয়চে ভেলে

এদেশে বাড়ির বেজমেন্টে দরকারি-অদরকারি বহু জিনিসই রাখা হয়৷ সেরকমই অনেক জিনিস ছিল৷ পানিতে ফার্নিচার, ফ্রিজসহ অনেক কিছুরই ক্ষতি হয়েছে, বেজমেন্ট থেকে ফেলতে হয়েছে জামা কাপড়সহ প্রচুর জিনিস৷ তাতে আমাদের কন্যা খুব বেশি বিচলিত নয়৷ ওর ভাষ্য, " শতাধিক মানুষ মারা গেছেন, শিশুসহ বহু মানুষ আহত হয়েছে৷ বাড়ি-ঘর হারিয়েছেন অনেক মানুষ৷ এতে শারীরিক এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে অনেকে৷ সে তুলনায় আমাদের ক্ষতি তেমন বড় কিছু নয়, কাজেই এত আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই৷”

 ওর এই ভাবনা মা-বাবা হিসেবে কিছুটা হলেও আমাদের আশ্বস্ত করেছে৷ 

গত ঈদগুলোতে করোনা আমাদের ঘরবন্দি রেখেছিল৷ এবার দুটো ভ্যাকসিন দেওয়ার পরে ভেবেছিলাম ঈদে বন্ধুবান্ধদের নিয়ে একটু হৈ হুল্লোড় করবো, আনন্দ করবো৷ করোনায় ঘরবন্দি জীবনের জমে থাকা কষ্টগুলো খানিকটা লাঘব হবে৷ কিন্তু তা আর হলো কোথায়! বানের পানিতে নষ্ট হয়ে যাওয়া জিনিসগুলোর সাথে ভেসে গেছে আমাদের ঈদের আনন্দটুকুও৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন