ইয়েমেনে বন্দিশালায় নারীদের চিৎকার | বিশ্ব | DW | 29.04.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইয়েমেন

ইয়েমেনে বন্দিশালায় নারীদের চিৎকার

ইয়েমেনে হুতি বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত অংশে তাদের বিরুদ্ধে আওয়াজ তোলা একের পর এক নারী হারিয়ে যাচ্ছেন৷ পরিবারের পক্ষ থেকে শুধু বলা হচ্ছে, তাঁরা বেড়াতে গেছেন৷ কিন্তু কোথায় গেছেন বা কবে ফিরবেন সে বিষয়ে মুখ খুলছেন না কেউ৷

পালিয়ে কায়রোতে আশ্রয় নেয়া এক নারী

পালিয়ে কায়রোতে আশ্রয় নেয়া এক নারী

সাহসী নারী, যারা শাসকদের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলতে ভয় পান না, ‍তাদের তো বটেই, এমনকি জনগণের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে কথা বলা নারীরাও হুতিদের দমন-নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন৷

সামেরা আল-হুরির অভিজ্ঞতা

রাজধানী সানাসহ ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চল হুতি বিদ্রোহীদের দখলে৷ তাদের কয়েকজন কর্মকর্তা একদিন হঠাৎ করে রাজধানীতে সামেরা আল-হুরিদের বাড়িতে হানা দেয় এবং তাকে ধরে নিয়ে যায়৷

তারা সামেরাকে একটি স্কুলের বেজমেন্টে নিয়ে যায়৷ সেখানে আরো কয়েকজন নারীকে আগে থেকেই বন্দি করে রাখা হয়েছিল৷ জিজ্ঞাসাবাদের সময়ে তাঁকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে ফেলা হতো, দেয়া হতো ইলেক্ট্রিক শক৷ চলতো আরো নানা শারীরিক নির্যাতন৷ তাকে মৃত্যুদণ্ডও দিয়ে দেওয়া হয়েছিল৷ একেবারে শেষ মুহূর্তে তা বাতিল হয়৷

৩৩ বছর বয়সি সামেরা আল-হুরিকে তিন মাস হুতি বিদ্রোহীরা বন্দি করে রাখে৷ পরে ক্যামেরার সামনে তাকে পতিতাবৃত্তিতে জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি দিতে বাধ্য করা হয়৷ ইয়েমেনে পতিতাবৃত্তি আইনের চোখে অপরাধ৷

সংবাদ সংস্থা এপিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সামেরা আল-হুরি নিজের ওই অভিজ্ঞতার বর্ণনা দেন৷ জানান, রাজধানীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এলাকা তাইজ স্ট্রিটে বিভিন্ন বাড়ি ও স্কুলে নারীদের বন্দি করে রাখার গোপন সেলগুলোর কথা৷

বলেন, ‘‘নানা শারীরিক নির্যাতনের পাশপাশি নারীদের ধর্ষণও করা হয়৷ সেখানে অনেকের অভিজ্ঞতা আমার চেয়েও খারাপ৷’’

২০১৯ সালের জুলাই মাসে কালাশনিকভ হাতে একদল মুখোশ পরা কর্মকর্তা সামেরাকে তুলে নিয়ে যায়৷ তিনি বলেন, "তাদের আয়োজন দেখে মনে হচ্ছিল আমি ওসামা বিন লাদেন৷ আমার অপরাধ, আমি তাদেরকে আমার সহযোদ্ধা মানবাধিকার কর্মীদের বিরুদ্ধে তথ্য দেওয়ার এবং গোয়েন্দাগিরি করার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলাম৷”

সামেরাকে তাইজ স্ট্রিটের পরিত্যক্ত স্কুল দার আল-হিলাল-এ বন্দি করে রাখা হয়েছিল৷ তার সঙ্গে সেখানে দেশটির পরিচিত কবি বারদিস আসাইয়াঘিসহ আরো ১২০জন নারী বন্দি ছিলেন৷

তিনি বলেন, ‘‘বন্দি নারীদের মধ্যে স্কুলের শিক্ষক, মানবাধিকার কর্মী, এমনকি কিশোরীরাও ছিল৷ তারা আমার মাথা এমনভাবে টেবিলে ঠুকে দিতো যে, মুক্তির পর আমার চোখে অস্ত্রোপচার করাতে হয়েছে৷’’

সানার ‍অপরাধ তদন্ত বিভাগের প্রধান সুলতান জাবিন তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতেন জানিয়ে সামেরা আল-হুরি আরো বলেন, ‘‘জাবিন দেখতে সুন্দর মেয়েদের স্কুলের বাইরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করতেন৷’’

জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরাও জাবিনের গোপন একটি বন্দিশালা থেকে দৌড়ে বের হওয়ার প্রমাণ পেয়েছেন৷ সেখানে মেয়েদের ধর্ষণ করা হতো৷

নেতৃত্বে নারী

দীর্ঘ ঐতিহ্য ও নানা সামাজিক সুরক্ষা নীতির কারণে আগে ইয়েমেনে নারীদের জিজ্ঞাসাবাদের নামে নিপীড়ন করা যেতো না৷ কিন্তু গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর ওই সব নিয়মের বালাই এখন আর নেই৷

গত ছয় বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধে দেশটির অনেক পুরুষ হয় মারা গেছেন বা জেলে রয়েছেন৷ ফলে রক্ষণশীলতা ভেঙে নারীরা এখন রাজনীতিতে আসতে শুরু করেছেন৷

অনেক সময় নারীরা বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করছেন, মিছিলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন৷ আন্তর্জাতিক নানা সংগঠনে কাজ করছেন, এমনকি দেশে শান্তি ফেরানোর উদ্যোগেও অংশ নিচ্ছেন৷

এমন একজন রাশা জারহুম৷ ‘পিস ট্র্যাক ইনিশিয়েটিভ’ এর প্রতিষ্ঠাতা এই নারী বলেন, ‘‘ইয়েমেনের নারীদের জন্য এটা সবচেয়ে অন্ধকার সময়৷ এক সময় এমনকি ট্রাফিক পুলিশ পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোনো নারীকে আটকাতে পারতেন না৷ আটকালে তা লজ্জার বলে গণ্য হতো৷’’

অথচ এখন এক সানাতেই ২০০ থেকে ৩৫০জন নারীকে জিজ্ঞাবাদের নামে আটকে রাখা হয়েছে বলে ‍দাবি কয়েকটি মানবাধিকার সংস্থার৷ অন্যান্য প্রদেশের প্রকৃত অবস্থা বা সংখ্যা জানা আরো কঠিন৷

উইমেন ফর পিস ইন ইয়েমেন কোয়ালিশন- এর প্রধান নূরা আল-জারউই বলেন, রাজধানীর দক্ষিণে ধামার প্রদেশে আরো শতাধিক নারীকে বন্দি করা হয়েছে৷

হুতি বন্দিশালা থেকে মুক্তি পাওয়া নারীদের জন্য মিশরের কায়রোতে একটি আন্তর্জাতিক সাপোর্ট গ্রুপ পরিচালনা করেন আল-জারউই৷ তিনি ৩৩ জন নারীর কথা জানান, যারা হুতি বন্দিশালায় ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ তাদের মধ্যে আটজন প্রচণ্ড নির্যাতনে প্রায় মরতে বসেছিলেন৷

এপির সাংবাদিকরা কায়রোতে এমন ছয়জন নারীর দেখা পেয়েছেন, যারা হুতি বন্দিশালা থেকে মিশরের কায়রো শহরে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন৷

পরিবার পাশে দাঁড়ায় না

কায়রোতে পালিয়ে যাওয়া নারীদের একজন ইতিহাসের এক সাবেক শিক্ষিকা৷ ইয়েমেনে থাকা পরিবারের সুরক্ষার স্বার্থে তিনি নিজের নাম প্রকাশ করতে চান না৷ তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সানার কাছেই কোনো একটা বাড়িতে তাকে রাখা হয়েছিল৷তার সঙ্গে ওই বাড়িতে আরো প্রায় ৪০ জন নারী বন্দি ছিলেন৷

‘‘রাতের বেলা আমি শুধু কুকুরের ডাক শুনতে পেতাম৷ মনে হতো এত দূরে আছি, যেন পৃথিবীতেই নেই৷

‘‘একবার আমার পায়ের নখ উপড়ে নেওয়া হয়েছিল৷ কর্মকর্তারা আমাকে ধর্ষণ করেছে৷ ধর্ষণের সময় নারী কারারক্ষীরা আমাকে চেপে ধরে রেখেছিল৷’’

২০১৮  সালের মার্চে তাঁকে একটি ফ্লাইওভারের নীচে ফেলে যাওয়া হয়৷ লজ্জায় তাঁর পরিবার তাকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়৷

‘‘আমার পরিবার মনে করে, যেহেতু আমি বিক্ষোভ করতে বাইরে গেছি, তাই এটা আমার পাওনা ছিল৷ আমার বিরুদ্ধেও পতিতাবৃত্তির অভিযোগ দায়ের করা হয়৷’’

হুতি সরকারের অস্বীকৃতি

তবে হুতি সরকারের মানবাধিকারমন্ত্রী রাদিয়া আব্দুল্লাহ সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ তিনি বলেন, "যদি এসব অভিযোগ সত্য হয় তবে আমরা এ সমস্যার সমাধান করবো৷’’

হুতি মন্ত্রিসভার দুই নারী মন্ত্রীর একজন তিনি৷ তবে তিনি স্বীকার করেছেন, পতিতাবৃত্তি দমন অভিযানে কয়েকটি ক্যাফে, অ্যাপার্টমেন্ট এবং নারীদের সমাবেশ থেকে কয়েকজন নারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ বলেন, "তারা সমাজকে অপরাধগ্রস্ত করেছে এবং শত্রুপক্ষের হয়ে কাজ করছে৷’’

২০১৭ সালের শেষ দিকে হুতিরা তাদের এক সময়ের মিত্র সাবেক শাসক আলি আব্দুল্লাহ সালেহকে হত্যা করে৷ সালেহর মৃতদেহ ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে ওই সময় নারীরা কয়েকটি জায়গায় বিক্ষোভ সমাবেশ করেছিল৷ তারপর থেকেই মূলত নারীদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের দমন অভিযান শুরু হয়৷

আল-জারউই বলেন, ‘‘প্রথমে তারা বিরোধীদলের নেতাদের, তারপর বিক্ষোভকারীদের এবং এখন তাদের বিরুদ্ধে কথা বলা যে কোনো নারীকে আটক করতে শুরু করেছে৷’’

আরেক নারীর অভিযোগ, তাকে ট্যাক্সি থেকে জোর করে নামিয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে প্রচুর মারধর করা হয়৷ লন্ডন ভিত্তিক একটি মানবাধিকার প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তাকে সানা পুলিশ স্টেশনে কয়েক সপ্তাহ আটকে রাখা হয় বলে দাবি করেন তিনি৷

৪৮ বছরের কম্পিউটার শিক্ষিকা বলেন, ১৮ জন অস্ত্রধারী তাঁর বাড়িতে হানা দিয়ে বাড়ির সবাইকে পেটায় এবং তাকে যৌন নির্যাতন করে৷

তিনি বলেন, ‘‘আমি রাজনীতি করি না৷ কিন্তু সরকার মাসের পর ‍মাস বেতন দিচ্ছে না- এ কথা জানিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছিলাম৷ তাতেই আমার ও পরিবারের উপর এমন নির্যাতন নেমে আসে৷’’

ওই ঘটনার পর পরিবার নিয়ে মিশরে পালিয়ে গেছেন তিনি৷

ইয়েমেন থেকে কায়রোতে পালিয়ে যাওয়া নারীরা পরষ্পরকে সাহায্য করছেন এবং সামনে এগিয়ে যাওয়ার সাহস দিচ্ছেন৷ তারা মাঝে মধ্যে সন্তানদের নিয়ে একজায়গায় জড়ো হন, খাবার খান এবং সুসময়ের স্মৃতি রোমন্থন করেন৷

আল-হুরি রাতে ঘুমাতে পারেন না৷ বলেন, ‘‘সেখানে এখনো অনেক নারী বন্দি আছেন৷ চোখ বুঁজলে আমি তাদের চিৎকার শুনতে পাই৷ আমি শুনতে পাই তারা চিৎকার করে বলছে, সামেরা আমাদের এখান থেকে নিয়ে যাও৷’’

এসএনএল/এসিবি (এপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়