ইয়েমেনে দুর্ভিক্ষ আসন্ন: জাতিসংঘের হুঁশিয়ারি | বিশ্ব | DW | 24.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

ইয়েমেনে দুর্ভিক্ষ আসন্ন: জাতিসংঘের হুঁশিয়ারি

ইয়েমেনের ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ খুব শিগগিরই ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের ত্রাণ কর্মকর্তারা৷ গৃহযুদ্ধের কারণে দেশটিতে মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে৷

জাতিসংঘের ত্রাণবিভাগের প্রধান মার্ক লোকক জানিয়েছেন, ইয়েমেনের জনসংখ্যার অর্ধেক দুর্ভিক্ষের কবলে পড়তে যাচ্ছে এবং তাঁদের আর কিছুদিন পর পুরোপুরি ত্রাণের উপর নির্ভর করতে হবে৷ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘‘ইয়েমেনের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে এটা পরিষ্কার যে, দেশটিতে দুর্ভিক্ষ আসন্ন এবং এ ধরনের কাজে আমরা যারা নিয়োজিত আছি, তারা সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে যাচ্ছি৷'' এ সময় তিনি হোদাইদাহ বন্দর দিয়ে ত্রাণ প্রবেশ করতে না দেয়ার সমালোচনা করে বলেন, স্থানীয় রাজনৈতিক দলগুলো আন্তর্জাতিক মানবিক আইনের লঙ্ঘন করছে৷ ইয়েমেনের ৯০ শতাংশ খাবার আমদানি করতে হয়৷

সবশেষ পরিসংখ্যান বলছে,ইয়েমেনের ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ভয়াবহ পুষ্টিহীনতা, খাদ্যাভাব, এমনকি মৃত্যুর মুখে পড়বে৷  লোকক বলেন, এই ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ রোধ করতে হলে অবিলম্বে মানবিকতার স্বার্থে যুদ্ধবিরতি প্রয়োজন, যাতে দেশটিতে আন্তর্জাতিক ত্রাণ প্রবেশ করতে পারে৷

গত ২০ বছরে জাতিসংঘ মাত্র দু'বার দুর্ভিক্ষ ঘোষণা করেছিল৷ ২০১১ সালে সোমালিয়ায় এবং গত বছর দক্ষিণ সুদানে৷ লোকক বলেন, ইয়েমেনের পরিস্থিতি ওই দুই দুর্ভিক্ষের চেয়েও ভয়াবহ হবে৷

আরব বসন্তের সময় থেকেইয়েমেনে গৃহযুদ্ধ পরিস্থিতি বিরাজ করছে৷২০১৪ সাল থেকে পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে৷ সে বছর হুতি বিদ্রোহীরা রাজধানী সানা'র নিয়ন্ত্রণ নেয়৷ ২০১৫ সালে সৌদি আরব শিয়া বিদ্রোহীদের দমনে সামরিক হামলা শুরু করে৷ তখন থেকে এ পর্যন্ত হামলায় ১০ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে, লাখো মানুষ গৃহহীন হয়েছে৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন