ইয়াসে ভাসল সুন্দরবন | বিশ্ব | DW | 26.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

ইয়াসে ভাসল সুন্দরবন

বাঁধ ভেঙেছে, গ্রামে ঢুকে গেছে নদীর জল। বাড়ি ও গাছ ভেঙেছে। এককথায় ইয়াসের তাণ্ডবে দক্ষিণ ২৪ পরগনা বিপর্যস্ত।

ভয়ঙ্কর ইয়াস যখন আছড়ে পড়ল।

ভয়ঙ্কর ইয়াস যখন আছড়ে পড়ল।

ভরা কোটালের মধ্যে আছড়ে পড়ল ইয়াস। ফলে তার জেরে দক্ষিণ ২৪ পরগনার নদীগুলির জল ভাসিয়ে দিল গ্রামের পর গ্রাম। সুন্দরবনে বাঁধ ভাঙল। কাকদ্বীপ, নামখানা, ধামাখালি, গোসাবা, কুলপি, ক্যানিং সর্বত্র গ্রাম ভাসল। অনেক বাড়ি ভেঙে পড়ল।

কোথাও হাতানিয়া দোয়ানিয়া, কোথাও বিদ্যাধরী নদীর জল ভাসিয়ে দিয়েছে একের পর এক গ্রাম। সাগরদ্বীপে কপিল মুনির মন্দিরের কাছেও অনেকখানি জল দাঁড়িয়ে গিয়েছিল।

ধামাখালিতে বিদ্যাধরী নদীর জল বাঁধ ভেঙে ঢুকে পড়েছে গ্রামে। জল অনেকখানি বেড়ে যাওয়ায় এনডিআরএফের কর্মীরা কোমরে দড়ি বেঁধে গ্রামের ভিতর ঢুকে বের করে নিয়ে এসেছেন মানুষদের।  কাকদ্বীপ, নামখানাতেও ছবিটা একই।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেোপাধ্যায় জানিয়েছেন, মোট ১৩৪টি বাঁধ ভেঙেছে। এটা প্রাথমিক রিপোর্ট। তার অনেকগুলিই দক্ষিণ ২৪ পরগনায়।  প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। সন্দেশখালি, হিঙ্গলগঞ্জ, হাসনাবাদ, নামখানা, পাথরপ্রতিমা, গোসাবা কুলপি, ক্যানিং ১ ও ২, বজবজ এই সব জায়গা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, একজন মারা গেছেন। তাকে ত্রাণশিবিরে নিয়ে আসা হয়েছিল। কিন্তু তারপর তিনি আবার মাছ ধরার জাল ফেলতে গিয়েছিলেন। তখন জলে ডুবে মারা যান।

সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে মমতার বৈঠকে উঠে এসেছে সুন্দরবনে চাষের খেতে নোনা জল ঢুকে যাওয়ার বিষয়টি। আমফানের সময় এই ঘটনা ঘটেছিল। আবার ইয়াসেও হলো। ফলে সুন্দরবনের মানুষ আবার বিপন্ন হয়ে পড়লেন।

জিএইচ/এসজি(পিটিআই, এএনআই)

সংশ্লিষ্ট বিষয়