‘ইহুদিরা জার্মানিতে ঝুঁকিতে আছেন’ | বিশ্ব | DW | 26.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

‘ইহুদিরা জার্মানিতে ঝুঁকিতে আছেন’

জার্মানির কেন্দ্রীয় ইহুদি পরিষদ মনে করে, দেশটির কিছু গুরুত্বপূর্ণ শহরে ইহুদিদের নিরাপত্তা পরিস্থিতির ‘অবনতি’ ঘটেছে৷ বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট রিভলিন৷

জার্মানিতে বসবাসরত ইহুদিদের কেন্দ্রীয় পরিষদের প্রধান ইওসেফ শ্যুয়েস্টার ‘ভেল্ট আম স্যোনটাগ' পত্রিকাকে বলেছেন যে ইউরোপের দেশটিতে গত কয়েক বছরে ইহুদিদের নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে৷

পত্রিকাটিকে রবিবার তিনি বলেন, ‘‘আমি সামগ্রিকভাবে বিষয়টিকে নাটকীয় করতে চাই না, তবে সবকিছু বিবেচনা করলে পরিস্থিতির সত্যিই অবনতি ঘটেছে৷ গত কিছুদিন ধরে কিছু বড় শহরের ক্ষেত্রে বিষয়টি এমন যে ইহুদিদের ইহুদি হিসেবে শনাক্ত করা গেলে তারা বিপদে পড়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়৷'' 

শ্যুয়েস্টার এমন এক সময়ে এই মন্তব্য করলেন যখন বার্লিনের ইহুদিবিদ্বেষ বিষয়ক কমিশনার ফিলিক্স ক্লাইনের এক সতর্ক বার্তা নিয়ে দেশটিতে বিতর্ক চলছে৷ তিনি ইহুদি সম্প্রদায়কে জার্মানির কিছু স্থানে প্রকাশ্যে তাদের ধর্মীয় প্রতীক হিসেবে পরিচিত টুপি পরা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন৷

জার্মানির ফুংক মিডিয়া গ্রুপকে শনিবার তিনি বলেন, ‘‘আমি ইহুদিদের জার্মানির সর্বত্র সবসময় কিপ্পাহ পরে থাকার পরামর্শ দিতে পারছি না৷''

ক্লাইনের এই মন্তব্যে প্রেক্ষিতে শ্যুয়েস্টার বলেন, ‘‘জার্মানির সর্বোচ্চ রাজনৈতিক পর্যায় থেকে যদি এই বিষয়টির দিকে মনোযোগ দেয়া হয় তাহলে তাকে স্বাগত জানানো হবে৷''

প্রসঙ্গত, জার্মানিতে ইহুদিদের উপর হামলার সংখ্যা ২০১৭ সালে ছিল ১,৫০৪টি৷ কিন্তু ২০১৮ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১,৬৪৬তে৷ অর্থাৎ এমন হামলার সংখ্যা এক বছরে দশ শতাংশ বেড়েছে

গত বছর ইহুদিদের প্রতীক ‘স্টার অব ডেভিড' পরিহিত এক ব্যক্তিকে বার্লিনে পেটানো হয়েছে৷ সেই ঘটনার কয়েক সপ্তাহ আগে এক ১৯ বছর বয়সি সিরিয়ান এবং তার সঙ্গীরা এক আর-ইসরায়েলির উপর হামলা চালায় যা নিয়ে গোটা জার্মানিতেই তোলপাড় সৃষ্টি হয়৷ দুই ঘটনাতেই ভুক্তভোগী ইহুদিদের ধর্মীয় টুপি পরা অবস্থায় ছিলেন৷

এদিকে, নিজের মন্তব্যের বিষয়ের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে ক্লাইন জানিয়েছেন যে তিনি জার্মানিতে ইহুদিদের নিরাপত্তা নিয়ে একটি বিতর্ক শুরু করতে চেয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি ইচ্ছাকৃতভাবে আমাদের দেশে ইহুদি সম্প্রদায়ের নিরাপত্তার বিষয়ে একটি বিতর্ক শুরু করতে চেয়েছি৷ অবশ্যই জার্মানিতে এমন কোন জায়গা নেই যেখানে ইহুদি বা অন্য কোন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ একেবারেই যেতে পারবেন না৷''

এআই/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন