ইস্তাম্বুলে বিমান দুর্ঘটনা: নিহত তিন | বিশ্ব | DW | 06.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

তুরস্ক

ইস্তাম্বুলে বিমান দুর্ঘটনা: নিহত তিন

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে একটি বিমান রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়লে তিন জন নিহত ও ১৭৯ জন আহত হয়৷

১৮৩ জন যাত্রী নিয়ে বুধবার বন্দর শহর ইজমির থেকে ইস্তাম্বুলের সাবিহা গোকেন বিমানবন্দরে নামছিল তুরস্কের পেগাসাস এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি৷ এ সময় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় গতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় এটি ভেঙে পড়ে৷

পেগাসাস এয়ারলাইনস তুরস্কের একটি সুলভ বিমানসংস্থা৷ গত মাসেও তাদের একটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ একই বিমানবন্দরে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে৷ তবে সেসময় হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি৷ 

তার আগে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে একটি পেগাসাস বোয়িং ৭৩৭ তুরস্কের ট্র্যাবসন বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে৷ এসময়ও হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি৷

বুধবারের দুর্ঘটনার বিষয়ে ইস্তাম্বুলের গভর্ণর আলি ইয়েরলিকায়া জানান, অবতরণের সময় পাইলট বিমানটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ব্যর্থ হলে তা রানওয়ে থেকে ছিটকে গিয়ে ৩০ মিটার গভীর একটি খাদে আছড়ে পড়ে৷

যাত্রীদের বেশিরভাগই ছিল তুরস্কের নাগরিক৷ বিমানটিতে আরো ২২ বিদেশি নাগরিক এবং বেশ কয়েকজন শিশুও ছিল৷

দুর্ঘটনার সময়ের কথা স্মরণ করে ওই বিমানের যাত্রী ডোগাস বিলজিক বলেন, রানওয়েতে নামার ২০-৩০ সেকেন্ড পর বিমানটি হঠাৎ রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে৷ আচমকা সিটের পাশে একটি ফাটল তৈরি হলে তিনি বেরিয়ে আসতে পারেন৷ 

এদিকে দুর্ঘটনার পর পর জরুরি উদ্ধার কাজ শুরু করে উদ্ধারকর্মীরা৷ ঘটনার পর বিমানবন্দরে সব ধরনের অবতরণ বন্ধ করে দেওয়া হয়৷

তুরস্কের বেসামরিক বিমান পরিবহন এবং এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷ কীভাবে এ ধরনের বোয়িং ভেঙে পড়ল তা জানার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে কর্মকর্তারা৷

উল্লেখ্য, ২০ বছর ধরে বিমান পরিচালনায় জড়িত থাকা পেগাসাস এয়ারলাইন্সের ৮৩টি এয়ারক্রাফট, ৪৭টি বোয়িং ও ৩৬টি এয়ারবাস রয়েছে৷ 

আরআর/কেএম (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন