ইসলাম ধর্মে অঙ্গদান | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 17.10.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

ইসলাম ধর্মে অঙ্গদান

অঙ্গদান ও প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে অনেক মরণাপন্ন রোগীর জীবন রক্ষা করা যেতে পারে৷ কিন্তু তবু অঙ্গদানের ক্ষেত্রে অনেক দেশের মানুষেরই অনীহা লক্ষ্য করা যায়৷ ইসলামি দেশগুলিতে ধর্মীয় বিধিনিষেধের কথাও বলা হয় এক্ষেত্রে৷

default

চিকিত্সার প্রয়োজনে অঙ্গদান করা মুসলিম-প্রধান দেশগুলিতে একটি সংবেদনশীল বিষয়৷ অথচ কারো ব্রেইন ডেথ বা মস্তিষ্কের মৃত্যু হলে তার সুস্থ হার্ট, লিভার বা কিডনি দিয়ে অন্য কোনো মৃত্যুপথযাত্রী রোগীর জীবন রক্ষা করা যেতে পারে৷ আধুনিক চিকিত্সার এই বিষয়টি নিয়ে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে সুস্পষ্ট কোনো ব্যাখ্যাও নেই৷ এ বিষয়ে আলেমদের দেয়া ফতোয়াতেও একটির সঙ্গে আরেকটির মিল খুঁজে পাওয়া যায়না৷ যারা অঙ্গদানকে প্রত্যাখ্যান করেন, তাঁরা ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে বিষয়টির ব্যাখ্যা দিতে চান৷ নেদারল্যান্ডস'এর লাইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামবিদ মোহাম্মদ ঘালি এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘তাঁরা মনে করেন মানব দেহকে মৃত্যুর পরেও রক্ষা করা উচিত৷ পবিত্র কোরান ও নবীদের বক্তব্যে খুঁজে পাওয়া যাবে এই ধরনের নীতিকথা৷ একারণে কোনো অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কেটে বের করা জায়েজ নয়৷ বিশেষ করে মৃত্যুর পর, যখন কারো পক্ষে বাধা দেয়া আর সম্ভব নয়৷''

Organtransplantation in Jena

অঙ্গদান কি অন্যের প্রতি সহানুভূতির পরিচায়ক?


মানব দেহের মালিক কে?

মানুষের শরীরের আসল অধিকারী কে, তা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে এখানে৷ ইসলামের দৃষ্টিতে মানুষের আসল মালিক ও রক্ষাকর্তা হলেন আল্লাহ৷ অঙ্গদানের সমালোচকরা এইরকম যুক্তিই তুলে ধরেন৷ ধর্মতাত্ত্বিক ঘালি বলেন, ‘‘অঙ্গদানের সমালোচকদের মতে, মানুষ শুধু সেটাই দান করতে পারে, যার মালিকত্ব তার আছে৷ কিন্তু মানুষ নিজের শরীরের মালিক নয়, বরং এর মালিক তার সৃষ্টিকর্তা৷''

তবে মৃতদেহ নিয়ে কী করা হবে, তা নিয়ে ধর্মের কোথাও সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়নি৷ জানিয়েছেন ইসলাম ধর্মতত্ত্বের প্রফেসর সাইম ইয়েপ্রেম৷ ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী কোথাও পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা না থাকলে তা অনুমোদনযোগ্য৷ এই নীতি সম্পর্কে যাদের কোনো ধারণা নেই, তারা অঙ্গদানের ব্যাপারেও দ্বিধায় পড়েন৷ এ কারণে মানুষকে সঠিক তথ্য দিতে হবে৷ প্রফেসর ইয়েপ্রেমের ভাষায়, ‘‘সমাজ যদি মানুষকে সচেতন করে তুলতে পারে, বুদ্ধিদীপ্ত ধর্মবিদ ও শিক্ষাবিদরা মানুষের চোখ খুলতে পারেন, তাহলে অঙ্গদানের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে৷''

কেননা বহু ইসলামি দেশেই অঙ্গদান অনুমোদিত ও বাস্তবায়িতও হচ্ছে৷ এক্ষেত্রে আইনগত ও পারিপার্শ্বিক কিছু বিষয় বিবেচনা করতে হবে বলে মনে করেন প্রফেসর ইয়েপ্রেম৷ তিনি বলেন, ‘‘অঙ্গদানকে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করা চলবেনা৷ নৈতিক বিধি বিধান ও ইসলামের মৌলনীতির বিরুদ্ধে যাওয়া যাবেনা৷’’

Superteaser NO FLASH Deutschland Nierentransplantation

মৃতদেহ নিয়ে কী করা হবে, তা নিয়ে ইসলাম ধর্মের কোথাও সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞার কথা কিন্তু বলা হয়নি...

অঙ্গদানের ব্যাপারে আলেমদের ঐক্যমত

২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত ইসলামবিশারদদের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীরা অঙ্গদানের ব্যাপারে মতৈক্যে পৌঁছন৷ তাঁরা হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া ও মস্তিষ্কের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া এই দুই অবস্থাকেই মৃত্যু বলে মনে করেন৷ এ ছাড়া তাঁরা অঙ্গদানকে মৃতের প্রতি অসম্মান বলে মনে করেননা৷ বরং অঙ্গদান অন্যের প্রতি সহানুভূতিরই পরিচায়ক৷ স্বাস্থ্যের ক্ষতি না হলে জীবিত মানুষও অঙ্গদান করতে পারে৷

সেই ৫০-এর দশকেই ইসলামি দেশগুলিতে অঙ্গদানের ব্যাপারে আলোচনা শুরু হয়েছিল৷ বলেন মোহাম্মদ ঘালি৷ এ বিষয়ে দেশভেদে তারতম্যও রয়েছে৷ ইসলামবিদ ঘালির ভষায়, ‘‘আমার ধারণা দক্ষিণ এশীয় দেশগুলি অঙ্গদানকে কিছুটা নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখে, যেমনটি লক্ষ্য করা যায় পাকিস্তান ও ভারতে৷ এ সব দেশে কিছু কিছু ফতোয়ায় অঙ্গদান নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ এ ব্যাপারে আলোচনার ভিতটাও খুব শক্ত নয়৷ সৌদি আরবে কিন্তু অঙ্গদান বেশ প্রচলিত৷'' ঘালি জানান, ‘‘এদিক দিয়ে দেখলে সৌদি আরবকে ইসলামি দেশগুলির মধ্যে সবচেয়ে আধুনিক বলা যায়৷ দেশটি অঙ্গদানকে বৈধতা দিয়েছে৷ ৭০ ও ৮০ -এর দশকে ফতোয়ার মাধ্যমে অনুমোদন দেয়া হয় বিষয়টিকে৷ পরে এটির বাস্তবায়নও করা হয়৷''

Marokko Organspende Krankenhaus

বহু ইসলামি দেশেই বর্তমানে অঙ্গদান অনুমোদিত ও বাস্তবায়িতও হচ্ছে

এর ফলাফল আজ চোখে পড়ে৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডাব্লিউএইচও-র তথ্য অনুযায়ী গত কয়েক বছরে দেশটিতে অঙ্গদান ও অঙ্গ প্রতিস্থাপনের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে৷ বহু মানুষের জীবনও রক্ষা পাচ্ছে এতে৷

বাংলাদেশে অঙ্গদান

‘মানবদেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন, ১৯৯৯' নামে বাংলাদেশের আইনটিতে বলা হয়েছে, অসুস্থ ব্যক্তিকে তাঁর নিকট আত্মীয়রা অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান করতে পারবেন৷ তবে বাংলাদেশে মৃত ব্যক্তিদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংগ্রহ করা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার৷ কেননা, মৃত্যুর আগে কেউ তাঁর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দানের অঙ্গীকার করলেও মারা যাওয়ার পর তাঁর স্বজনরা এ ব্যাপারে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আগ্রহী হননা৷ এ ছাড়া এই ব্যাপারটি নিয়ে তেমন মাথাও ঘামানো হয়না৷ তাই সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের সুস্থ লিভার বা কিডনি সংগ্রহ করা সম্ভব হয় না৷ বাংলাদেশে ১৯৮২ সালে কিডনি প্রতিস্থাপন শুরু হয়৷ তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে জীবিত ব্যক্তিদের দান করা কিডনিই ব্যবহৃত হচ্ছে৷

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন