‘ইসলামিক স্টেটের′ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শীর্ষ নেতা নিহত | বিশ্ব | DW | 17.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ইসলামিক স্টেটের' দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শীর্ষ নেতা নিহত

আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘ইসলামিক স্টেট' বা আইএস-এর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রধানের নিহত হওয়ার ঘটনা জঙ্গি গোষ্ঠীটির উপর এক বড় আঘাত৷ তবে প্রধান নিহত হলেও জঙ্গি গোষ্ঠীটি এক বড় হুমকি হিসেবেই রয়ে গেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

আইএস-এর আঞ্চলিক প্রধান ইসনিলন হ্যাপিলন সোমবার ভোরে ফিলিপাইন্সের দক্ষিণাঞ্চলে নিরাপত্তা বাহিনীর এক অভিযানে নিহত হয় বলে জানা গেছে৷ মারাউয়ি শহরে গত কয়েকমাস ধরে অভিযান চালাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী৷ ইসলামিক স্টেটের জঙ্গিরা শহরটি দখল করে নিয়েছিল৷ উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ইতোমধ্যে কয়েক শত মানুষ প্রাণ হারিয়েছে৷

হ্যাপিলন ছিল ফিলিপাইন্সের মুক্তিপণ আদায়ের জন্য মানুষকে অপহরণকারী গোষ্ঠী আবু সায়েফের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷ গতবছর আইএস-এর প্রধান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি৷ এরপর মে মাসে তার বাহিনী মারাউয়ির দখল নিয়ে নেয়৷

হ্যাপিলনের মৃত্যু ফিলিপাইন্সে আইএস-এর উপর বড় আঘাত হিসেবে বিবেচিত হলেও বিশ্লেষকরা মনে করছেন যে, জঙ্গিগোষ্ঠীটি এখনো এক বড় হুমকি হিসেবে রয়ে গেছে৷ সিঙ্গাপুরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবাদ বিশেষজ্ঞ কুমার রামকৃষ্ণ এই বিষয়ে বলেন, ‘‘শুধুমাত্র মারাউয়ি আইএস জঙ্গিদের দখল থেকে মুক্ত করার অর্থ এই নয় যে হুমকি শেষ হয়ে গেছে৷আইএস সম্পৃক্ত জঙ্গিরাআবারো ঐক্যবদ্ধ হবে৷ শুরুতে হয়ত তারা নিজেদের অবস্থান জানান দেবে না, কেননা সেসময় নিজেদের পুর্নগঠন করবে৷''

উল্লেখ্য, সিরিয়া এবংইরাকে ইসলামিক স্টেটের দখলকৃত এলাকাগুলো একের পর এক মুক্ত করছে পশ্চিমা সমর্থিত বিভিন্ন বাহিনী৷ ফলে সেসব অঞ্চল থেকে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার জঙ্গিরা নিজেদের দেশে ফিরে গিয়ে জঙ্গি তৎপরতায় যুক্ত হতে পার বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

এআই/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন