‘ইসরায়েলি ফুটবলে জাতিবাদ রুখতে হবে’ | খেলাধুলা | DW | 12.02.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

খেলাধুলা

‘ইসরায়েলি ফুটবলে জাতিবাদ রুখতে হবে’

বলেছেন বাইতার জেরুসালেম ক্লাবের সমর্থকরা এবং প্রাক্তন খেলোয়াড়রা৷ দু’জন মুসলিম খেলোয়াড়কে দলে নেওয়ার পর শুক্রবার বাইতারের অফিসে কে বা কারা আগুন ধরায়৷ খেলোয়াড় দুজন চেচনিয়ার৷

এর মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে চারজন বাইতার ফ্যানের বিরুদ্ধে চেচনিয়া থেকে আসা ঐ দু'জন নতুন খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে জাতিবাদী স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ আনেন সরকারি কৌঁসুলি৷

শুক্রবার সকালে বাইতারের অফিসে অগ্নিকাণ্ডে মূলত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ক্লাবটির মিউজিয়াম৷ অন্যান্য ট্রফি ও ছবির সঙ্গে পুড়ে গেছে বাইতার ও ইসরায়েলের প্রাক্তন তারকা এলি ওহানা'র বুট ও জার্সি৷

ওহানা কিন্তু বলেছেন, এই ঘটনার থেকে যদি বাইতারের ফ্যানদের একাংশের বহু বছরের বহিরাগত বিদ্বেষের অন্ত ঘটে, তবে তার মূল্য দিতে কোনো আপত্তি নেই৷ ফ্যানদের মুখ্য ওয়েবসাইটেও বলা হয়েছে, ‘‘ওরা আমাদের অতীতকে পুড়িয়ে দিয়েছে৷ ওদের আমাদের ভবিষ্যৎকে পুড়তে দেওয়া চলবে না৷''

Palästina - Fußball am Strand

১৯৩৬ সালে ব্রিটিশ শাসিত প্যালেস্টাইনে বাইতার নামধারী একটি দক্ষিণপন্থি জিওনিস্ট যুব আন্দোলন থেকে এই ক্লাবের সৃষ্টি

প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বাইতারের অফিসে অগ্নিসংযোগের ঘটনাকে ‘‘লজ্জাকর'' বলে অভিহিত করেছেন৷ রবিবার তিনি বলেন, ‘‘সম্প্রতি আমরা উগ্রপন্থার কিছু নমুনা দেখেছি, যা গ্রহণযোগ্য নয়৷ এগুলোকে অবশ্য করে খেলাধুলার জগৎ থেকে উৎখাত করা উচিত৷''

‘‘প্রধানমন্ত্রী যে এই প্রথমবার বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন, তা'তে আমি খুশি,'' মন্তব্য করেছেন এলি ওহানা, যিনি ১৯৯৮ সালে সক্রিয় ফুটবল থেকে অবসর নেন৷ ‘‘এ'তে প্রমাণ হয় যে, বিষয়টি সর্বোচ্চ মহলে পৌঁছেছে৷''

বাইতার ও ইসরায়েলের আরেক সাবেক তারকা, মিডফিল্ডার ড্যানি নয়ম্যান বলেছেন, সমস্যাটা পাঁচ'শো থেকে এক হাজার ফ্যানের একটি গোষ্ঠীকে নিয়ে৷ এরা ‘‘লা ফ্যামিলিয়া'' নামধারী একটি ফ্যান গ্রুপের সদস্য, যারা মাঠে উপস্থিত ফ্যানদের প্রায় দশ শতাংশ৷ ‘‘এদের বমি করে বার করে দিতে হবে,'' একটি বেতার সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেছেন নয়ম্যান৷

পুরো গোলমালটা শুরু হয় বিগত ২৬শে জানুয়ারি, যখন বাইতারের মালিক, রুশ-ইসরায়েলি কোটিপতি আর্কাদি গাইদামাক দু'জন চেচেন প্লেয়ার সংগ্রহ করার কথা জানান: জাউর সাদায়েভ ও গাব্রিয়েল কাদিয়েভ৷ সেইদিনই একটি খেলা চলাকালীন হার্ডকোর বাইতার ফ্যানরা আরব-বিরোধী স্লোগান তোলে এবং ‘‘বাইতার, চিরকালই নির্মল'' লেখা শালু ওড়ায়৷

আরো বলা দরকার, বাইতার হচ্ছে ইসরায়েলের একমাত্র ক্লাব, যারা তাদের ৭৭ বছরের ইতিহাসে কখনো কোনো আরব প্লেয়ার ভাড়া করেনি৷ ১৯৩৬ সালে ব্রিটিশ শাসিত প্যালেস্টাইনে বাইতার নামধারী একটি দক্ষিণপন্থি জিওনিস্ট যুব আন্দোলন থেকে এই ক্লাবের সৃষ্টি৷

রবিবার বেনেই সাখনিন আরব দলের বিরুদ্ধে খেলতে নামে বাইতার জেরুসালেম৷ ১৯ বছর বয়সি গাব্রিয়েল কাদিয়েভ মাঠে নামলে হাজার হাজার দর্শক হর্ষধ্বনি করে, উঠে দাঁড়িয়ে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান৷ জাতিবাদ আর সহিষ্ণুতার লড়াইয়ে এ'রাউন্ডে যে কার জিত হয়েছে, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ থাকার কথা নয়৷

এসি / এসবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন