ইসরায়েলকে ইহুদি রাষ্ট্র ঘোষণার নিন্দা | বিশ্ব | DW | 20.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল

ইসরায়েলকে ইহুদি রাষ্ট্র ঘোষণার নিন্দা

ইসরায়েলকে ইহুদি রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণায় নিন্দার ঝড় উঠেছে দেশটিতেই৷ নিন্দা জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ কয়েকটি দেশও৷

বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলেছে যে, শুধু ইহুদিদের স্বীকৃতি দিয়ে ইসলায়েলের সংসদ যে আইন পাশ করেছে তা ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের দুই জাতিরাষ্ট্রের সমাধানকে আরো জটিল করবে৷

কয়েক মাস ধরে চলে আসা বিতর্কের পর বৃহস্পতিবার সকালে ইসরায়েল ‘জাতিরাষ্ট্র' আইন পাশ করেছে৷ এরপর থেকে এই সিদ্ধান্ত কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েছে দেশটির আরব সংখ্যালঘু ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে৷

‘‘আমরা শঙ্কিত৷ বিষয়টি নিয়ে আমাদের শঙ্কার কথা এর আগেও আমরা ইসরায়েল কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরেছি৷'' ইইউ'র পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোঘেরিনির এক মুখপাত্র সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেন৷
‘‘একটা বিষয়ে আমাদের পরিষ্কার মত হলো যে, দ্বি-জাতিরাষ্ট্রই হলো সেখানকার সমস্যা সমাধানের একমাত্র পথ৷ এই সমাধানকে আরো জটিল করে তোলে বা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে এমন যে কোনো সিদ্ধান্ত থেকেই বিরত থাকতে হবে,'' বলেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার পাশ হওয়া আইনটিতে বলা আছে, ‘‘ইসরায়েল হলো ইহুদিদের ঐতিহাসিক মাতৃভূমি এবং এখানে তাদেরই কেবল আত্মস্বীকৃতি বা আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার আছে৷''

আইনে আরবি ভাষাকেও দেশটির রাষ্ট্রীয় ভাষার মর্যাদা থেকে নামিয়ে ‘বিশেষ' ভাষা করা হয়েছে৷ এর অর্থ ইসরায়েলি দপ্তরগুলোতে এ ভাষা চলবে, কিন্তু হিব্রুর মতো এটি রাষ্ট্রীয় ভাষার মর্যাদা পাবে না৷

ইসরায়েলে ৯০ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে আরবদের সংখ্যা প্রায় ১৮ লাখ৷ অর্থাৎ, প্রায় ২০ ভাগ৷

কিন্তু দ্বি-জাতিরাষ্ট্রে গাজা ও ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক নিয়ে আলাদা রাষ্ট্রের যে সমাধানের কথা বলা হয়েছে, তার সম্ভাবনা ছিল, নতুন আইনের ফলে তা আরো ক্ষীণ হয়ে গেছে৷

এদিকে, এই সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে তুরস্ক৷ তাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘এই সিদ্ধান্ত আইনের সার্বজনীনতার ওপর আঘাত এবং ইসরায়েলে ফিলিস্তিনি নাগরিকদের অধিকার ক্ষুন্ন করেছে৷

প্রেসিডেন্ট এর্দোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন একে ‘বর্ণবাদী পদক্ষেপ' বলে অভিহিত করেছেন৷

আইনটি পাশ হবার পরপরই একে জাতিবিদ্বেষের চূড়ান্ত বহিঃপ্রকাশ বলে উল্লেখ করেছেন ইসরায়েলের বিরোধীদলগুলো৷ আরব জয়েন্ট লিস্ট জোটের প্রধান আয়মান ওদেহ এই বিলটিকে ‘গণতন্ত্রের মৃত্যু' বলে উল্লেখ করেছেন৷

সংসদ সদস্য ইউসেফ জাবারিন বলেন, ‘‘এই আইন শুধু বৈষম্যকেই নয়, বর্ণবাদকেও উস্কে দেয়৷''

প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের মহাসচিব সায়েম এরেকাত একে ‘ভয়ঙ্কর ও বর্ণবাদী' আইন বলে চিহ্নিত করে বলেন, ‘‘এটি আরবদের প্রতি জাতিবৈষম্য ও ইসরায়েলে বৈষম্যমূলক সিস্টেমকে আইনগতভাবে বৈধতা দেয়৷''

এর আগে বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের সংসদে ৬২-৫৫ ভোটে এই আইনটি পাশ হয়৷ পাশ হবার পর দেশটির প্রেসিডেন্ট বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, ‘‘এটিই আমাদের দেশ, ইহুদিদের দেশ৷ কিন্তু সম্প্রতি অনেকেই আমাদের অস্তিত্ব ও আমাদের অধিকারকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছিলেন৷''

জেডএ/এসিবি (রয়াটর্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন