1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
সমাজচীন

ইলেকট্রিক গাড়ির বাজার কেন চীনের দখলে

১৯ মার্চ ২০২৪

ডেটা ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তিতে ভর করে এবার ইভি বা ইলেকট্রিক গাড়ির বাজারে এগোচ্ছে চীনা সংস্থা শিয়াওমি ও হুয়াওয়ে৷

https://p.dw.com/p/4dtxX
শিয়াওমির প্রথম ইলেকট্রিক গাড়ি এসইউ৭ এর ছবি তুলছেন দর্শনার্থীরা
ইলেকট্রিক গাড়ির বাজারে এগোচ্ছে চীনা সংস্থা শিয়াওমি ও হুয়াওয়েছবি: Florence Lo/REUTERS

তিন বছর আগে প্রথম বার ব্যাটারিচালিত স্পোর্টস কার তৈরির প্রস্তাব দিয়েছিল চীনা সংস্থা শিয়াওমি৷ তিন বছর পর, ২৮ মার্চ তাদের প্রথম ইলেকট্রিক গাড়ি প্রকাশ পেতে চলেছে৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থাদের এবার পাল্লা দিতে হবে এই চীনা সংস্থাদের সাথেও৷

বাজারে আসতে চলা গাড়িটির নাম এসইউ৭, অর্থাৎ ‘স্পিড আল্ট্রা'৷ মাত্র দুই দশমিক ৭৮ সেকেন্ডেই ১০০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টাবেগে দৌড়তে পারবে গাড়িটি৷ গাড়িটির সর্বোচ্চ গতি হবে ২৬৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা৷

একবার চার্জ দিলে এই গাড়ির ব্যাটারি সহজেই পাড়ি দেবে ৮০০ কিলোমিটারের পথ৷ এসইউ৭ গাড়ির দাম পড়বে ৩৩ হাজার ইউরোর কাছাকাছি (৪০ লাখ বাংলাদেশি টাকা), যা টেসলা ৩ গাড়ির সমান ও পোর্শের টেকান গাড়ির দামের এক তৃতীয়াংশ৷

শিয়াওমি প্রধান লেই জুন বলেন, ‘‘আমরা সমঝোতা বা মধ্যম মানের পণ্য চাই না৷ আমরা এমন একটি স্বপ্নের গাড়ি বানাতে চাই যা টেসলা ও পোর্শেকে টেক্কা দেবে৷''

স্মার্টফোন থেকে এবার গাড়ি

অনেক দিন ধরে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইলেকট্রিক গাড়ি প্রস্তুতকারী রাষ্ট্র চীন৷ যেসব কোম্পানি আগে এমন গাড়ি বানাতো না, তাদের ছাড়াও ইলেকট্রিক পরিবহনের এমন অগ্রগতি অভাবনীয়৷

শিয়াওমি মূলত বাসায় ব্যবহৃত ইন্টেলিজেন্ট সিস্টেমস বানিয়ে থাকে, কিন্তু ইউরোপে এই সংস্থাটির খ্যাতি তার স্মার্টফোনের কারণেই৷ স্মার্টফোনের দুনিয়া থেকে ইলেকট্রিক গাড়ির জগতে পা রেখেছে আরেকটি চীনা সংস্থা, হুয়াওয়ে৷ ২০২১ থেকে এআইটিও বা আইটো নামে তাদের ইলেকট্রিক এসইউভি গাড়িও বাজারে এসেছে৷

কিন্তু এই প্রবণতা শুধু চীনেই দেখা যাচ্ছে, এমনটা নয়৷ ১৪ বছর আগেই গাড়ি বানানোর চিন্তা করা শুরু করে অ্যাপল৷ কিন্তু ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে তারা জানায় যে এই পরিকল্পনা তারা আপাতত বন্ধ করছে৷ এই প্রকল্পে অ্যাপল খরচ করেছিল মোট ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার৷

চীনে ইলেক্ট্রিক কারের দোকান
যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির গাড়ি প্রস্তুতকারীদের এবার চীনের সঙ্গে পাল্লা দিতে হবেছবি: Costfoto/picture alliance

গাড়ি বাজারে চীনের দখল

গাড়ির বাজারে জার্মানির শীর্ষ স্থানকে প্রশ্নের মুখে ফেলছে চীনা কোম্পানিগুলি৷ কনসালটিং ফার্ম কেপিএমজির সদস্য বের্নড ডিপেনজাইফেন বলেন, ‘‘লিথিয়াম ব্যাটারি সরবরাহ করতে পারার শীর্ষে চীন৷''

এই খাতে প্রযুক্তি ও বিক্রি সব মাপকাঠিতেই চীনের অগ্রণী ভূমিকা দেখা গেছে৷ ডিপেনজাইফেন বলেন, ‘‘এশিয়ার সরবরাহকারীরা এই ক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন এখন পর্যন্ত৷ কাঁচামাল উৎপাদন বা ব্যাটারি উৎপাদনের ক্ষেত্রে জার্মান সরবরাহকারীরা যে তেমন সুযোগ দেখছেন, তা নয়৷''

ফেব্রুয়ারি মাসে জেনেভায় আন্তর্জাতিক মটর শোতে আরো স্পষ্ট হয়ে গেলো যে চীনের গাড়ি প্রস্তুতকারীরা মানে কোনো খামতি রাখছেন না৷ জার্মানি থেকে একটি সংস্থাও ছিল না সেখানে, অথচ চীন থেকে ছিল বেশ কয়েকটি সংস্থা৷

নতুন প্রজন্মের গাড়ি আনছে চীন

চীনের গাড়ি শিল্পে গাড়িকে শুধুই নিছক চলাচলের মেশিন হিসাবে দেখা হয় না৷ তারা নজর দিচ্ছে ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় হবে এমন সব দিকে৷ যেমন অটোমেশন বা স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, পরিবেশবান্ধব পরিবহন ও প্রযুক্তিগত উন্নয়নের দিকেও জোর দিচ্ছে এই সব সংস্থা৷

এটাই করতে চাইছে শিয়াওমি ও হুয়াওয়ের মতো প্রযুক্তি সংস্থাগুলি৷ শিয়াওমি প্রধান লেই-এর মতে, ‘‘বর্তমানে, গাড়ি কেবলই একটি চলমান ডেটা সেন্টারের মতে৷ আগামীর অটোমেটিভ শিল্প খাত থেকে উঠে আসবে অত্যাধুনিক সংযুক্ত ব্যবস্থা বা কানেক্টেড স্পেইস৷''

গাড়িকে ‘চাকার ওপর বসার ঘর' নাম দিয়েছে চীনা ইলেকট্রিক গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থা এনআইও৷

তথ্যনির্ভর ভবিষ্যৎ?

‘‘উৎপাদন ও ভবিষ্যৎবান্ধব গাড়ির জন্য আমাদের মন্ত্র হোক ‘স্মার্ট', বলেন ২০২৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত আউডি সংস্থার চীন কার্যালয়ের প্রধান ইয়ুর্গেন উনজার৷ তিনি আরো বলেন, ‘‘আমাদের সমাজের জন্য, এমনকি জার্মানির জন্যেও, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে আমরা তথ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে আরেকটু মুক্তভাবে ভাবি৷''

এআই-এর ব্যবহার অনস্বীকার্য, স্বীকার করে উনজার বলেন যে নজর দিতে হবে গাড়ির চালকদের তথ্যের ভাণ্ডারের দিকেও৷

২০১৮ সালে চীনের সাথে স্বয়ংক্রিয় ও সংযুক্ত ড্রাইভিং বিষয়ে একটি যৌথ বিবৃতিতে স্বাক্ষর করে জার্মান সরকার৷ এই নথি অনুযায়ী, দুটি রাষ্ট্রই চায় ‘বিদ্বেষমুক্ত, বহুমুখী তথ্য ব্যবস্থাপনা, তথ্য সরবরাহ ও আইটি বিষয়ক মান ও যোগ্যতা নির্ধারণ' করতে৷

কিন্তু তথ্য ভাগ করে নেওয়া এত সহজ নয়৷ ইইউ কমিশনের মতে, বেশ কিছু ইউরোপিয়ান সংস্থা ইতিমধ্যে তাদের চীনা সহকারী সংস্থা থেকে তথ্য পাওয়া নিয়ে নালিশ জানিয়েছে৷

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের চীনে ডেটা সেন্টার চালাতে হয়, যা মূল সংস্থার ডেটাবেসের সাথে ক্লাউড প্রযুক্তির মাধ্যমে সংযুক্ত করা থাকে৷

ইউরোপেরশিল্পের জন্য চীনের তথ্য ও সাইবার নিরাপত্তা বিধিগুলি ‘সমস্যাজনক', এমনটাই মনে করছে ব্রাসেলস নেতৃত্ব৷ চীন থেকে তথ্য দেশের বাইরে পাঠাতে দেশটির সাইবার নিরাপত্তা পরিচালনা সংস্থা সিএসি'র অনুমতি নিতে হয়, যারা সব ‘গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের যাতায়াতের' ওপর নজর রাখে৷

এই সমস্যা সম্পর্কে জার্মান কর্তৃপক্ষও ওয়াকিবহাল৷ দেশটির ডিজিটাল প্রযুক্তি মন্ত্রী ফোলকার ভিসিং ২০২৩ সালে চীন-জার্মানি সরকারি আলোচনা চলাকালীন দুই দেশের মধ্যে অবাধ তথ্য চলাচলের ওপর জোর দেন৷

বর্তমানে, ইইউ ও চীন এই খাতের জন্য মান নির্ধারণ বিষয়ে আলোচনা করছে৷ এখনও দুই পক্ষের মধ্যে সীমান্তহীন তথ্যের যাতায়াত নিয়ে কোনো ঐকমত্য আসেনি৷

দাং ইউয়ান/এসএস