ইরান হামলা থেকে পিছু হটলেন ট্রাম্প! | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 21.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র-ইরান

ইরান হামলা থেকে পিছু হটলেন ট্রাম্প!

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার হরমুজ প্রণালির কাছে গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করার জবাবে ইরানে বিমান হামলার সিদ্ধান্ত নেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ তবে বিষয়টি খোলাসা করতে চাননি ট্রাম্প৷

দেশটির বেশ কয়েকটি সূত্র থেকে জানা গেছে, আক্রমণ চালাতে আকাশে ছিল বিমানের টহল আর সাগরে জাহাজগুলো ছিল নিজ নিজ অবস্থানে৷ কিন্তু ছোঁড়া হয়নি কোনো মিসাইল৷ বিষয়টি নিয়ে হোয়াইট হাউস কিংবা পেন্টাগনের পক্ষ থেকেও কিছুই জানানো হয়নি৷

গতকাল দিনের শেষভাগে এসে, যুক্তরাষ্ট্রের বিমানগুলোকে হামলা না করার জরুরি আদেশ পাঠায় দেশটির বিমান চলাচল প্রশাসন৷

তার আগে, কংগ্রেসের ডেমোক্র্যাট আর রিপাবলিকান নেতাদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ ঘণ্টাখানেক ধরে চলে আলোচনা৷ সেখানে ডেমোক্র্যাট নেতারা বলেন, ইরানের বিরুদ্ধে সামরিক আক্রমণ চালাতে হলে, কংগ্রেসের অনুমোদন নিতে হবে৷

এমনকি, ধীরে সুস্থে বুঝে শোনে পরিস্থিতি সামাল দিতেও ট্রাম্পের প্রতি অনুরোধ জানান ডেমোক্র্যাট নেতারা৷ তবে, ওই আলোচনার জের ধরেই ট্রাম্প পিছু হটেছেন কি-না, তা এখনো পরিস্কার হয়নি৷

যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে, কৌশলি সিদ্ধান্ত নিতে ট্রাম্পের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি৷ তিনি বলেন, ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ করার ‘ক্ষুধা' নেই মার্কিন জনগণের৷

পেলোসির দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন সিনেটে ডেমোক্র্যাটদের নেতা চাক সুমার৷ কংগ্রেসে আলোচনার মধ্য দিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত বলে তাঁর মত৷ আইনপ্রণেতাদের মাধ্যমে পরবর্তী করণীয় ঠিক করতে, ‘মুক্ত আলোচনা'র প্রস্তাবও রাখেন তিনি৷

মার্কিন সংবিধানে বলা আছে, যুদ্ধ ঘোষণা ও তা অনুমোদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেবে কংগ্রেস৷ কিন্তু সামরিক বাহিনীকে ব্যবহারের ক্ষমতা নিয়ে ২০০১ সালের আইনের দোহাই দিয়ে, আগের প্রশাসনগুলোও কংগ্রসের অনুমতি ছাড়াই বর্হিবিশ্বে হস্তক্ষেপ করেছে৷

৯/১১ হামলার পর , মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সামরিক বাহিনী ব্যবহারের ক্ষমতা দিয়ে একটি আইন তৈরি করা হয়৷ ট্রাম্পের সমালোচকরাও সেদিকেই ইঙ্গিত করছেন৷ ওই আইনের বলে, ইরান হামলার বৈধতা এবং কংগ্রেসকে এড়িয়ে যাওয়ার পথ পাবেন ট্রাম্প৷

তবে রিপাবলিকান আইন প্রণেতাদের সমর্থন গেছে প্রেসিডেন্টের পক্ষে৷ সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠদের নেতা মিচ ম্যাককনেল বলেছেন ট্রাম্প প্রশাসেনর উচিত উপযুক্ত জবাব দেয়া৷ আরো একধাপ বাড়িয়ে বলেছেন কেভিন ম্যাকার্থি৷ তার দাবি, ঘটনার ওপর ট্রাম্প ও তার নিরাপত্তা বাহিনীকে পরিস্কার দৃষ্টি রাখতে হবে৷ ইরান আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে৷

ট্রাম্পের মিত্র হিসেবে পরিচিত সাউথ ক্যারোলিনার রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম বলেন, ‘ইরান যদি যুদ্ধের জন্য খোঁচাতে থাকে, তাহলে তারা সমুচিত জবাব পাবে৷' টিএম/কেএম (রয়টার্স, এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন