ইরাকি উদ্বাস্তুদের দেশে ফেরায় সাহায্য করতে চায় জার্মানি | বিশ্ব | DW | 24.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরাকি উদ্বাস্তুদের দেশে ফেরায় সাহায্য করতে চায় জার্মানি

ইরাকি উদ্বাস্তুদের স্বদেশে অস্তিত্ব গড়ে তোলার ব্যাপারে জার্মানি ও ইরাক সহযোগিতা বাড়াবে, জার্মান উন্নয়ন সাহায্য মন্ত্রী গ্যার্ড ম্যুলার জানিয়েছেন৷প্রায় ১০,০০০ ইরাকি উদ্বাস্তুকে দেশে ফিরতে সাহায্য করা হবে, ম্যুলার জানান৷

যে সব ইরাকি উদ্বাস্তু জার্মানিতে রাজনৈতিক আশ্রয় পেতে ব্যর্থ হয়েছেন, তাদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনে সাহায্য করার জন্য বার্লিন ও বাগদাদ আরো ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করবে, বলে জার্মান উন্নয়ন সাহায্য মন্ত্রী ম্যুলার রবিবার ঘোষণা করেন৷

‘‘লক্ষ্য হলো, জার্মানি থেকে স্বদেশে ফেরা প্রায় দশ হাজার অবধি ইরাকি উদ্বাস্তুদের নিজের পায়ে দাঁড়াতে ও নতুন কিছু গড়ে  তুলতে সাহায্য করা,'' বাগদাদে ইরাকি কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পর বলেন ম্যুলার৷

ম্যুলার বলেন যে, ইরাকিদের স্বেচ্ছায় স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের সুযোগ থাকা উচিত – শুধু ‘‘ব্যর্থ অভিবাসী'' হিসেবে নয়৷ ইরাকি কর্তৃপক্ষ ও বিভিন্ন ইরাকিকোম্পানির সঙ্গে সহযোগিতায় স্বদেশে প্রত্যাবর্তনকারী ইরাকিদের জন্য শিক্ষা ও চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করা হবে, বলে ম্যুলার জানান৷ তাঁর সর্বাধুনিক ইরাক সফরে ম্যুলার উত্তরের কুর্দ-শাসিত এরবিল শহরে প্রত্যাবর্তনকারী উদ্বাস্তুদের পরামর্শদান সংক্রান্ত একটি কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন৷ বাগদাদেও অনুরূপ একটি কেন্দ্র খোলার পরিকল্পনা রয়েছে৷

ভিডিও দেখুন 01:16
এখন লাইভ
01:16 মিনিট

নির্ঘণ্ট নিয়ে সমস্যা থাকায় ম্যুলার ও ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদির মধ্যে একটি সাক্ষাৎ স্বল্প মেয়াদে বাতিল করতে হয়েছে৷

দাতা দেশ

শনিবার ইরাক যাত্রার আগে ম্যুলার দেশটির অবকাঠামো, বিশেষ করে স্কুল ও অপরাপর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নতুন করে গড়ে তোলার গুরুত্বের কথা বলেন – ‘‘যাতে সন্ত্রাসবাদ আবার শিকড় না গাড়তে পারে৷''

জার্মান উন্নয়ন সাহায্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি অনুযায়ী, যে ২ লাখ ৪০ হাজার  ইরাকি বর্তমানে জার্মানিতে অবস্থান করছেন, তাদের মধ্যে প্রায় বারো হাজারের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রাপ্তির আবেদন ব্যর্থ হয়েছে৷

জার্মানি ইরাকের দ্বিতীয় বৃহত্তম দাতা দেশ৷ ২০১৪ সালে যাবৎ জার্মানি ইরাককে প্রায় ১,৩০০ কোটি ইউরো বা ১,৬০০ কোটি ডলার পরিমাণ অর্থসাহায্য দিয়েছে, বলে বার্লিনের উন্নয়ন সাহায্য মন্ত্রক জানিয়েছে৷ এছাড়া জার্মানি ইরাককে সামরিক সরঞ্জাম প্রদান করেছে এবং ইরাকি নিরাপত্তা বাহিনী ও তাদের মিত্রদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে৷

পুনর্গঠন চলেছে, তবে ধীরগতিতে

প্রধানমন্ত্রী আল-আবাদি গতবছর ইরাকে ‘ইসলামিক স্টেট' গোষ্ঠীর পরাজয়ের কথা ঘোষণা করেন৷ অতঃপর ইরাক সরকার আইএস-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধে ধ্বংসপ্রাপ্ত এলাকাগুলির পুনর্গঠনকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন৷

কিন্তু দেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পূর্বাপর নাজুক এবং সারা দেশে সন্ত্রাসী আক্রমণের সম্ভাবনা পুরোমাত্রায় বর্তমান৷ এ বছরের সূচনায় বাগদাদে একটি দ্বিবিধ আত্মঘাতী বোমা আক্রমণে ৪০ জন ব্যক্তি প্রাণ হারান, আইএস যে আক্রমণের জন্য নিজেদের দায়ী বলে ঘোষণা করে৷ রাজ্যাঞ্চল খোয়ানো সত্ত্বেও ইরাকে আইএস-এর দৌরাত্ম্য চালু থাকবে বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ. ইপিডি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়