ইমরান খানের মতো হতে চান না মাশরাফি | বিশ্ব | DW | 15.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ইমরান খানের মতো হতে চান না মাশরাফি

তিনি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট তারকা হতে পারেন, কিন্তু তাই বলে নিজেকে আরেক ইমরান খান মনে করেন না মাশরাফি বিন মর্তুজা৷ সম্প্রতি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন একসময় নিজের দেশকে বিশ্বকাপ এনে দেয়া ক্রিকেট তারকা খান৷

বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে একটি আসন থেকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা৷ মূলত ক্রীড়াঙ্গনের আরো উন্নতি এবং দাতব্য কাজে নিজেকে আরো সম্পৃক্ত করতে রাজনীতিতে জড়িয়েছেন বলে জানান তিনি৷ তরুণদের রাজনীতিতে আসাটা জরুরি বলেও মনে করেন এই ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব৷

ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেন, ‘‘সত্যি বলতে কী, ইমরান খান যে পর্যায়ে পৌঁছেছেন, মানুষ চাইলেও সবসময় সেই পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে না৷''

তিনি বলেন, ‘‘আমি যেহেতু একজন ক্রীড়াবিদ, তাই ক্রীড়াঙ্গনের জন্য কিছু করার আগ্রহ আছে আমার৷ আমার আশা এখানে সমীবাদ্ধ৷ আমি আমার অঞ্চলের উন্নয়নে কাজ করতে আগ্রহী৷''

বাংলাদেশের নড়াইল জেলার ছেলে মাশরাফি বিন মর্তুজা৷ সেখানকার একটি আসন থেকেই নির্বাচনে লড়ছেন তিনি৷ ইতোমধ্যে এলাকায় ‘নড়াইল এক্সপ্রেস' নামের একটি দাতব্য সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি৷ সংস্থাটি বিভিন্ন হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স দান করাসহ কৃষকদের উচ্চ ফলনশীল ধানের বীজ সরবরাহ পর্যন্ত নানা উন্নয়নমূলক কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে৷

প্রসঙ্গত, ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিবিদে রূপান্তরের বিষয়টি দক্ষিণ এশিয়ায় নতুন কিছু নয়৷ তবে খেলা থেকে পুরোপুরি অবসর নেয়ার আগেই রাজনীতিতে সরাসরি প্রবেশের বিষয়টি বিরল৷ বর্তমানে বাংলাদেশের একদিনের ক্রিকেটের জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফি৷ আসন্ন বিশ্বকাপেও দলকে নেতৃত্ব দেয়ার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি৷

ইনজুরির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে সাফল্যের সঙ্গে ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাওয়া এবং তাঁর দেশপ্রেমের কারণে কোটি ভক্তের হৃদয় জয় করে নিয়েছেন তিনি৷ অধিনায়ক হিসেবেও তাঁর সুখ্যাতি রয়েছে৷ তবে, তিনি সরাসরি রাজনীতিতে অংশ নেয়ার ঘোষণা দেয়ার পর অনেকের কাছ থেকে বিরুপ প্রতিক্রিয়াও পেয়েছেন৷ 

ভিডিও দেখুন 00:27

‘অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক এবং বৈষম্যহীন বাংলাদেশ চাই’

অনলাইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাশরাফির পাতাগুলোতে এই বিষয়ে নেতিবাচক মন্তব্যের সংখ্যাই বেশি৷ তাঁর অনেক ভক্ত চান না বাংলাদেশের তাদের ভাষায় ‘অত্যন্ত নোংরা' এবং ‘নর্দমার-মতো' রাজনৈতিক অঙ্গনে নিজেকে সম্পৃক্ত করুক মাশরাফি৷ কেউ কেউ আবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দলে তিনি অংশ নেয়ার বিষয়টি পছন্দ করছেন না কেননা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তাঁর রাজনৈতিক বিরোধীদের জেলে পাঠানো এবং ভিন্নমতাবলম্বীদের কণ্ঠরোধের অভিযোগ রয়েছে৷

মাশরাফি অবশ্য এসব সমালোচনায় পিছু হটতে রাজি নন৷ আবার সমালোচকদের সমালোচনা করতেও আগ্রহী নন তিনি৷ অভিজ্ঞ এই ক্রীড়াবিদ বলেন, ‘‘আমি শুধু এটুকুই বলতে চাই, যেসব মানুষ অন্য দল কিংবা অন্য রাজনৈতিক চেতনায় বিশ্বাসী, তাদের আমি অসম্মান করি না৷''

তিনি বলেন, ‘‘যদিও আমি আমার দলকে হৃদয়ের সর্বস্ব দিয়ে সমর্থন করি, আমার তাদের (সমালোচকদের) প্রতিও শতভাগ সম্মান রয়েছে এবং সেটা ভবিষ্যতেও থাকবে৷''

এআই/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন