ইবোলা রোগী পালিয়ে প্রার্থনাসভায়, কঙ্গোতে সতর্কতা জারি | বিশ্ব | DW | 25.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

কঙ্গো

ইবোলা রোগী পালিয়ে প্রার্থনাসভায়, কঙ্গোতে সতর্কতা জারি

কঙ্গোয় ইবোলায় আক্রান্ত দুই রোগী হাসপাতাল থেকে পালিয়ে একটি প্রার্থনাকক্ষে আশ্রয় নেন৷ কিন্তু তাঁদের কারণে সেখানে উপস্থিত সকলেরই এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ পালাতে সাহায্যকারীরাও আছেন আক্রান্তের তালিকায়৷ 

ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত মৃত্যু পথযাত্রী দু'জন রোগী স্বজনদের সহযোগিতায় মোটর সাইকেলে চড়ে কঙ্গোর একটি হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান৷ এরপর তাঁদের নিয়ে যাওয়া হয় একটি প্রার্থনাকক্ষে, যেখানে আরও ৫০ জনের মতো মানুষ ছিলেন৷ এবার ঐ ৫০ জনেরই ইবোলার মতো প্রাণঘাতী ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে৷

হাসপাতাল থেকে পালানোর সময়ই ঐ দুই রোগী বারবার বমি করছিলেন৷ বলা বাহুল্য, ইবোলা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে দু'জনেই ছিলেন মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে৷ প্রার্থনাকক্ষে পৌঁছানোর কয়েক ঘণ্টা পরই কঙ্গোর নদী বন্দর বানডাকা থেকে দু'জনের মৃতদেহ পাওয়া যায়৷ জানান ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স-এর জরুরি সেবা বিভাগের সমন্বয়ক জঁ-ক্লিমঁ কাবরোল৷

আক্রান্ত রোগীর শরীর নিঃসৃত যে কোনো তরল পদার্থ থেকে মারাত্মক ছোঁয়াচে এই ইবোলা ভাইরাস ছড়াতে পারে৷ এর মধ্যে ঘাম বা বমিও আছে৷ তাই কঙ্গোর সরকারকে এ মুহূর্তে রীতিমত যুদ্ধকালীন পরিস্থিতির মতো সজাগ থাকতে হচ্ছে, যাতে ইবোলা মহামারির আকার ধারম করতে না পারে৷

এরইমধ্যে কঙ্গোর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বিকোরো শহর এবং ইবোকো নামের একটি গ্রামে নতুন করে দু'জন রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে, যাঁরা ইবোলায় আক্রান্ত৷

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নতুন এই দু'জন রোগী নিয়ে মোট ৩১ জন ইবোলা আক্রান্ত রোগীকে সন্দেহের তালিকায় থাকা ৫২ জন রোগীর মধ্যে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে৷

কঙ্গোতে এই নিয়ে নবমবারের মতো ইবোলা ভাইরাস আক্রমণ করল৷ এ দফায় ইতিমধ্যে ২২ জন মারা গেছেন বলে বুধবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে কঙ্গো সরকার৷ যদিও এর আগে তারা ইবোলায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীর সংখ্যা ২৭ বলেছিল৷

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তারা জানিয়েছে, প্রথমে ২৭ জনের কথা বলা হলেও পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে বাকি পাঁচজন অন্য রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন৷

দুর্গত এলাকা ঘুরে এসে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস-এর জঁ-ক্লিমঁ কাবরোল বলেন, ‘‘পরিবারের সহায়তা নিয়ে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান দু'জন ইবোলা রোগী৷ মোটরবাইকে করে তাদের নিয়ে যাওয়া হয়, কেননা পালানোর সময় রোগীরা খুবই দুর্বল ছিলেন এবং হাঁটতে পারছিল না৷’’

তিনি বলেন, ‘‘ঐ দু'জনকে একটি প্রার্থনাকক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷ যেখানে আরও ৫০ জন ছিলেন প্রার্থনার জন্য৷ সকালে তাঁদের দু'জনকে খুঁজে পাওয়া যায়৷ একজন তারমধ্যেই মারা গিয়েছেন৷ আর আরেকজন মৃতপ্রায় ছিলেন, অসম্ভবব বমি করছিলেন৷ প্রার্থনাকক্ষে থাকা ঐ ৫০ জনেও এখন ইবোলায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷’’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) ইমারজেন্সি রিসপন্স বিভাগের প্রধান পিটার সালামা জানান, মোটর বাইকে করে ঐ দুই ইবোলা রোগীকে পালাতে যাঁরা সাহায্য করেছেন, তাঁদের শনাক্ত করার চেষ্টা করছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা৷ কেননা, ছোঁয়াচে ইবোলা হয়ত সাহায্যকারীদের মাধ্যমেই মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়বে৷ তিনি বলেন, ‘‘ঐ দুইজন পালানোর পর থেকেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং অন্যান্য সহযোগী সংস্থা রোগীদের সম্ভাব্য সংস্পর্শে এসেছেন এমন সব মানুষের ওপর কড়া নজরদারি করছে৷’’

এদিকে ইবোলা মোকাবেলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাদের ত্রৈমাসিক তহবিল বাড়িয়ে ৫ কোটি ৭০ লাখ ডলার করেছে, যা এর আগের ঘোষণার তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ৷

পিটার সালামা বলেন, ‘‘ধরা যাক, কোনো আক্রান্ত ব্যক্তি কঙ্গো নদী ধরে হাঁটা শুরু করলেন৷ তখন ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় একইসাথে ইবোলা দেখা দেবে৷ আসলে যে কোনো সময় এটা ঘটতে পারে৷ এ কারণেই বাজেট বাড়ানো হয়েছে৷’’

এ সময় তিনি কঙ্গো নদীর তীরের জনপদ, অর্থাৎ বন্দর নগরী বানডাকা থেকে রাজধানী কিনশাসায় বসবাসকারী প্রায় ১ কোটি মানুষ এ রোগের ঝুঁকিতে রয়েছেন বলে আশঙ্কার কথা জানান৷

২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পশ্চিম আফ্রকায় ইবোলা ছড়িয়ে পড়ে৷ তারপর থেকে অবশ্য এর চিকিৎসায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে৷ বিশেষ করে চিকিৎসা বা সেবাকর্মীরা যাতে আক্রান্ত না হন, সে জন্য একটি পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিনও চালু হয়েছে ইতিমধ্যে৷

কিন্তু স্থানীয় আফ্রিকানদের মধ্যে ইবোলা নিয়ে ভীতি বা পলায়ন মনোবৃত্তি রয়েছে৷ পাশাপাশি তাঁদের মধ্যে আক্রান্ত ব্যক্তিকে আলাদা না রাখার ব্যাপারেও সংস্কার রয়েছে৷ ফলে এর চিকিৎসা এখনো জটিলতা কাটিয়ে উঠতে পারেনি৷

অতীতে দেখা গেছে, ইবোলা আক্রান্ত রোগী মারা যাওয়ার পর, তাঁর স্বজনেরা আবেগের বশে রোগীকে জড়িয়ে ধরেছেন এবং পরে নিজেরাই ইবোলায় আক্রান্ত হয়েছেন৷

এইচআই/ডিজি (আরটিআরই, রয়টার্স)

২০১৪ সালের ৮ আগস্টের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন