ইন্টারনেটে মুক্ত পেশাজীবীদের জমজমাট কাজের বাজার | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 20.10.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ইন্টারনেটে মুক্ত পেশাজীবীদের জমজমাট কাজের বাজার

সোনিয়া শবনম সহজে বাড়ি থেকে বের হননা৷ না, কোন হুমকিধামকি নয়৷ রাজধানীর দূষিত পরিবেশ আর ট্রাফিক জ্যাম তাঁর কাছে অসহ্য লাগে৷ তাই, দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় কম্পিউটারে বসেই কাটিয়ে দেন তিনি৷

default

ভেবে বসবেন না, সোনিয়া বোধহয় এক বেকার তরুণী৷ ইন্টারনেটে চ্যাট করে সময় কাটে তাঁর৷ বিষয়টি মোটেই সেরকম নয়৷ তিনি একজন মুক্ত পেশাজীবী৷ ইন্টারনেটে বিদেশি প্রতিষ্ঠানের জন্য ওয়েব ডিজাইনের কাজ করেন সোনিয়া৷

ইন্টারনেটে কাজ

গত কয়েক বছরে বাংলাদেশে ইন্টারনেটে কাজ করার এমন প্রবণতা বেড়েছে৷ অবস্থা এমন যে, বাংলাদেশ এখন এই কাজে বিশ্বের মধ্যে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে৷ ডাটা এন্ট্রি, গ্রাফিক ডিজাইন, প্রোগ্রামিং, এমনকি কল সেন্টারের কাজ – সবই ঘরে বসে করছে তরুণরা৷ প্রয়োজন শুধু একটা ভালোমানের কম্পিউটার, সঙ্গে ইন্টারনেট সংযোগ৷ তথ্য প্রযুক্তি সংস্থা সামহোয়্যার ইন এর কর্মকর্তা আরিল ক্লোকেরহেল্গ এ প্রসঙ্গে জানান, এটা নির্ভর করে আমাদের স্কিলের ওপরে৷ আমি আগে থেকেই দেখেছি, অনেক প্রোগ্রামার অনলাইনে কাজ করে আয় করে৷ এখানে বুঝতে হবে, ক্লাইন্ট কি ধরণের কাজ অচেনা মানুষের কাছ থেকে নিতে পারে৷

মুক্ত পেশাজীবী

ইন্টারনেটে মুক্ত পেশাজীবী হিসেবে কাজ করাটা অনেকটাই ধৈর্যের ব্যাপার৷ দিনের পর দিন আপনাকে কাজের খোঁজে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে৷ কেননা, সেখানে এক একটা কাজের জন্য বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকেই ভিড় জমান মুক্ত পেশাজীবীরা৷ ফলে, সবার সঙ্গে প্রতিযোগিতার পর কাজটি শেষমেষ হাতে পেতে খানিকটা সময় লেগেই যায়৷ তবে বাংলাদেশিদের ক্ষেত্রে এই কাজ পাওয়ার সুযোগ বেশি বলেই মত আরিলের৷ তিনি বলেন, ডাল, ভাত, গাড়ি ভাড়া, বাড়ি ভাড়া এসব মিলিয়ে বাংলাদেশে খরচ বেশি লাগেনা৷ অন্যদিকে, ইংল্যান্ড বা জার্মানিতে এসবের খরচ অনেক বেশি৷ ফলে বাংলাদেশিরা একটু কম দামের কাজ চাইতে পারে৷ এতে করে ক্লায়েন্ট খুশি হয়৷

কয়েকটি ঠিকানা

বাংলাদেশের মুক্ত পেশাজীবীদের আনাগোনা দেখা যায় বিভিন্ন ওয়েবসাইটে৷ ওডেক্স ডট কম এক্ষেত্রে বেশ এগিয়ে৷ এই সাইটে টিম আকারে কাজ করার সুযোগ রয়েছে৷ রয়েছে ফ্রিলান্সার ডট কম৷ তবে এখান থেকে কাজ পেতে গেলে কমিশন দিতে হবে ১০ শতাংশ হারে৷ ফ্ল্যাশ ডেভেলপারদের জন্য একটি চমৎকার সাইট মচিমিডিয়া ডট কম৷ ছোট ছোট কম্পিউটার গেম তৈরি করে তা বিক্রি করা যাবে এই সাইটের মাধ্যমে৷ এছাড়া ভিওয়ার্কার ডট কম সাইটেও মুক্ত পেশাজীবীদের আনাগোনা দেখা যায়৷

NO FLASH Symbolbild Internet Sicherheit

এখনো কি সন্দিহান?

এখনও কি সন্দিহান আপনি? ইন্টারনেটে আদৌ এভাবে কাজ করা যায় নাকি? চলুন ঠিক এই প্রশ্নটাই করি আরিলকে৷ তিনি বলেন, এটা সত্যি, অন্য দেশের চেয়ে আমাদের আয়ের চাহিদা কম৷ আমরা যদি ক্লায়েন্টের প্রত্যাশা আর কোয়ালিটি ঠিক রাখতে পারি, তাহলে অবশ্যই অনলাইনে আয় সম্ভব৷

রোজগার কম হয়না

ইন্টারনেটে কাজ করে রোজগারও কিন্তু কম হয় না৷ নবীনদের শুরুতে কাজের জন্য কষ্ট করতে হলেও একসময় তা পাওয়াই যায়৷ তবে ধৈর্য ধরে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে৷ ঠিকঠাক কাজ পাওয়া গেলে বাংলাদেশে বসেই ঘন্টা প্রতি ২ থেকে ১০ ডলার পর্যন্ত আয় করা সম্ভব বলে মত বিশেষজ্ঞদের৷ আবার কাজের সময়ে বেশ তারতম্য রয়েছে৷ বাংলাদেশ সময় রাতের বেলা অনেক মুক্ত পেশাজীবী কাজ করেন৷ দিনটা তাঁদের কাটে নেহাত ঘুমিয়ে৷

মুক্ত পেশাজীবী হতে খুবই উচ্চ শিক্ষিত না হলেও চলবে বলে৷ সফটওয়্যার সংগঠন বেসিস এর সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমানের মত এমনটাই৷ তবে আগ্রহীকে অবশ্যই নির্দিষ্ট কোন কাজে দক্ষ হতে হবে৷ প্রয়োজনে নিতে হবে প্রশিক্ষণ৷ মোটের ওপর বিদেশি ভাষায় দক্ষতাও কাজ পেতে সহায়ক৷ সুতরাং আর দেরি কেন? নেমে পড়ুন এক্ষুনি৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

বিজ্ঞাপন