ইটালির সরকারের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত, সিদ্ধান্ত সোমবার | বিশ্ব | DW | 14.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইটালি

ইটালির সরকারের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত, সিদ্ধান্ত সোমবার

সোমবার ইটালির সেনেট জোট সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আগাম নির্বাচন ডেকে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবার আশা করছেন৷ ইউরোপেও দুশ্চিন্তা দেখা দিচ্ছে৷

ইটালির দক্ষিণপন্থি জোট সরকারের অস্তিত্ব নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরে সংশয় চলছে৷ শরিক লিগ দলের নেতা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাটেও সালভিনি সরকার ভেঙে দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব নির্বাচন আয়োজন করতে চান৷ সে-ক্ষেত্রে মাত্র ১৪ মাস পর সরকারের পতন ঘটবে৷ জোটসঙ্গী ফাইভ স্টার মুভমেন্ট দলের সঙ্গে চরম মতপার্থক্যের জের ধরে তিনি এই চেষ্টা চালাচ্ছেন৷ তাঁর মতে, কোনোমতে আর আপোশ সম্ভব নয়৷

অনাস্থা ভোটের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটিয়ে সেই পথ প্রশস্ত করতে চান সালভিনি৷ জনমত সমীক্ষায় নিজের লিগ দলের প্রতি জোরালো সমর্থনের জোয়ারের ফায়দা তুলে আগাম নির্বাচনে তিনি সংসদে বাড়তি আসন জয়ের স্বপ্ন দেখছেন বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা মনে করছে৷ সে-ক্ষেত্রে তিনি দেশের আগামী প্রধানমন্ত্রী হতে চান৷ আগামী অক্টোবর মাসেই আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে৷

কিন্তু সংসদ তড়িঘড়ি করে এমন পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত নয়৷ উচ্চ কক্ষ সেনেটের সব রাজনৈতিক দলের নেতারা আগামী সোমবার মিলিত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের তারিখ স্থির করতে চান৷ মঙ্গলবার সেনেটের পূর্ণ অধিবেশনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হবে৷ অনাস্থা ভোটে সরকারের পরাজয় হলে নির্দল প্রধানমন্ত্রী জুসেপে কন্টে-কে পদত্যাগ করতে হবে৷ তিনি সম্ভবত আগামী ২০শে আগস্ট সেনেটে ভাষণ দেবেন৷ কন্টে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি মন্ত্রিসভার সদস্যদের বিরুদ্ধে সালভিনির কটু মন্তব্য আর সহ্য করবেন না৷

নিজের সরকারের পতন ঘটাতে সালভিনি এত মরিয়া হয়ে উঠেছেন যে, সোমবার তিনি জোটসঙ্গী ফাইভ স্টার মুভমেন্টের প্রস্তাব মেনে সংস্কারের মাধ্যমে সংসদ সদস্যদের সংখ্যা কমাতেও রাজি হয়েছেন৷

ইটালিতে রাজনৈতিক অস্থিরতা বিরল ঘটনা নয়৷ তবে বর্তমান সংকট ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে উঠছে৷ শরণার্থীদের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নিয়ে বারবার ব্রাসেলসের সঙ্গে তাঁর সংঘাত ঘটছে৷ ইটালির মাত্রাতিরিক্ত ঋণের বোঝা সত্ত্বেও বর্তমান সরকারের ব্যাপক ব্যয়ের পরিকল্পনাও ইউরোপে চরম বিরোধিতার মুখে পড়েছে৷ ইউরো এলাকা ও সামগ্রিকভাবে ইইউ-র সঙ্গে ইটালির বিচ্ছেদেরও হুমকি দিয়েছেন সালভিনি৷

এমন কট্টরপন্থি নেতা আগাম নির্বাচনে জিতে প্রধানমন্ত্রী হলে ব্রাসেলসের সঙ্গে আরো সংঘাতের সম্ভাবনা দেখা দেবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ সালভিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, নির্বাচনে জিতে সরকার গঠন করলে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাজেট সংক্রান্ত নিয়মের তোয়াক্কা না করে করের হার কমাবেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন