ইটালির বন্ধ দরজা খুলতে কূটনৈতিক উদ্যোগ দরকার | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 10.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

ইটালির বন্ধ দরজা খুলতে কূটনৈতিক উদ্যোগ দরকার

বাংলাদেশিদের জন্য ইটালিতে প্রবেশে নিষিদ্ধ করেছে দেশটির সরকার৷ সেই সঙ্গে সেখানকার প্রবাসীরাও এখন স্থানীয়দের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির স্বীকার হচ্ছেন৷

ডয়চে ভেলে বাংলার ইউটিউব টকশো ‘খালেদ মুহিউদ্দীন জানতে চায়' অনুষ্ঠানে এমন তথ্য জানিয়েছেন ইটালি প্রবাসী সাংবাদিক পলাশ রহমান৷ তিনি বলেন, ইটালিতে বাংলাদেশিদের সুনাম ছিল৷ কিন্তু সাম্প্রতিক কিছু ঘটনায় দেশটির গণমাধ্যমে বাংলাদেশিদের নিয়ে ফলাও করে সংবাদ প্রচার হয়েছে৷ যার কারণে সেখানকার স্থানীয়রা এখন প্রবাসীদের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখছেন৷

সম্প্রতি বিশেষ ফ্লাইটে ইটালিতে ফিরেছেন কয়েকশো বাংলাদেশি৷ পলাশ বলেন, ‘‘প্রথম দুইটা ফ্লাইট যখন রোমে অবতরণ করে, ঐ যাত্রীদের তখন ১৪ দিনের হোম কোয়ারান্টিন করে বাড়িতে পাঠানো হয়েছিল৷ কারণ তারা জানিয়েছে যে তারা বাংলাদেশ থেকে পরীক্ষা করে এসেছেন৷ কিন্তু এক সপ্তাহের মধ্যে দেখা গেল বাংলাদেশি কমিউনিটিতে করোনা সংক্রমণ ব্যাপক আকারে বাড়তে শুরু করলো৷ তখন ইটালির প্রশাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ থেকে এরপর যে দুইটা ফ্লাইট আসে তাদের জন্য এয়ারপোর্টেই পরীক্ষার কড়াকড়ি আরোপ করে এবং সেখানে ১৩ শতাংশ যাত্রীর মধ্যে করোনা পজেটিভ পাওয়া যায়৷''

তিনি বলেন, আগে ফিরে আসাদের অনেকেই দেশটির কোয়ারান্টিনের নিয়ম মানেননি৷ অনেককে পরবর্তীতে পুলিশ গিয়ে তাদের দেয়া ঠিকানায় খুঁজে পায়নি৷ এমন তিনজনের নামে পরবর্তীতে বিজ্ঞপ্তি দেয় ইটালির পুলিশ ৷ এছাড়াও রোমে একজনকে পুলিশ ট্রাম স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করে৷ তিনি ১৪ দিনের হোম কোয়ারান্টিন অমান্য করে কয়েকটি শহর ঘুরেছেন৷ এর মধ্যে তিনি প্রায় এক হাজার কিলোমিটার অতিক্রম করেছেন৷ 

সাত জুন বাংলাদেশ থেকে আসা সব ফ্লাইট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় দেশটির সরকার৷ বাংলাদেশসহ ১৩ টি দেশে ছিলেন বা ভ্রমণ করেছেন এমন কাউকেই দেশটিতে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না, শুক্রবার নতুন এই সিদ্ধান্তের কথাও জানিয়েছেন ইটালির স্বাস্থ্যমন্ত্রী৷ এই পরিস্থিতি কিভাবে কাটিয়ে উঠা যায়া এমন প্রশ্নের জবাবে পলাশ বলেন, ‘‘বিষয়টি এখন আর বাংলাদেশি কমিউনিটির উপর নির্ভর করছে না৷ এক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয় সেটা হচ্ছে আমাদের কূটনৈতিক তৎপরতা৷ ইটালির সরকারের সাথে প্রশাসনের সাথে যোগাযোগটা বাড়াতে হবে৷ এবং তাদের যে ক্ষোভের জায়গাটা সেখানেই মনোযোগ দিতে হবে৷ তাদের সাথে সঠিকভাবে যোগাযোগটা করতে হবে, তাদেরকে বোঝাতে হবে মূল ব্যাপারটা কী৷’’

তিনি বলেন স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত বলেছেন যে করোনার নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে ভুল তথ্য দেয়া হয়েছে৷ এ ধরনের কোথায় বাংলাদেশি কমিউনিটির বিরুদ্ধে স্থানীয়দের উস্কে দেয়া হচ্ছে৷ তার মতে বাংলাদেশের সক্ষমতার যে অভাব ছিল সেটা না লুকিয়ে ভুল স্বীকার করা উচিত৷

অনুষ্ঠানের আরেক অতিথি হিসেবে গণস্বাস্থ্যের গবেষক দলের প্রধান ড. বিজন কুমার শীল৷ তাদের উদ্ভাবিত কিটের পরীক্ষার ফলাফল সম্পর্কে তার কাছ থেকে জানতে চাওয়া হয়৷ তিনি বলেন, ‘‘এই সমস্ত পরীক্ষায় যে থার্ড পার্টির পদ্ধতিটা অনুসরণ করবে সেটি বাংলাদেশে আগে ছিল না৷ ইউএসডিএ এফডিএ এর গাইডলাইন ওনারা এডাপ্ট করেছে ১৪ তারিখে৷ কিন্তু আমাদের স্টাডিটা তার আগেই হয়ে গিয়েছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ পরবর্তীতে আমাদের যখন এটা অনুসরণ করতে বলা হয়েছিল তখন আমাদের কিছুটা দেরি হচ্ছে এজন্য৷ আমাদের নতুন করে আরেকটা স্টাডি করতে হবে৷ আমরা আমাদের ল্যাবরেটরির কাজ শেষ করেছি৷ এখন থার্ড পার্টি কাজটা করবে৷ একইভাবে এন্টিজেনের ক্ষেত্রেও কোন গাইডলাইন ছিল না৷ আরেকটা গাইডলাইন তারা করেছে৷ দুটো পরীক্ষাই এখন নতুন করে করতে হবে৷ যেটা থার্ড পার্টি করবে যে এটা কতটা গ্রহণযোগ্য হবে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন