ইটালিতে বাঁশঝাড়ের গোলকধাঁধার মাঝে শিল্প সংগ্রহ | অন্বেষণ | DW | 26.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ইটালিতে বাঁশঝাড়ের গোলকধাঁধার মাঝে শিল্প সংগ্রহ

কোথাও আমার হারিয়ে যাবার নেই মানা – মনে মনে নয়, বাস্তবেই পথ হারানোর সুযোগ করে দিচ্ছে বাঁশঝাড়ের এক গোলকধাঁধা ইটালিতে সেই বাগানের সঙ্গে রয়েছে অভিনব শিল্প সংগ্রহ দেখার সুযোগ৷

ইউরোপের সবচেয়ে বড় গোলকধাঁধার মধ্যে প্রায় তিন কিলোমিটার পথ ছড়িয়ে রয়েছে৷ সেই বাঁশঝাড়ে ঢুকলে পথ হারাতেই হবে৷ প্রায় ৭০,০০০ বর্গ মিটার এলাকার কারণে এটিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় গোলকধাঁধা৷ ইটালির উত্তরে পারমা শহরের কাছে অবস্থিত এই বাগানে দর্শকরা দিশাহারা হয়ে ওঠেন৷

প্রকাশনার কাজ থেকে অবসর নিয়ে ফ্রাংকো মারিয়া রিচি নিজের জমিতেই এই বাগান গড়ে তুলে একটি স্বপ্ন পূরণ করেছেন৷ সেখানে প্রায় দুই লাখ বাঁশের ঝাড় রয়েছে৷ এই উদ্ভিদ দ্রুত বেড়ে ওঠে, সবসময় সবুজ থাকে এবং ১৫ মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে৷ ফলে হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা৷

গোলকধাঁধায় প্রবেশ ও বের হবার আলাদা দ্বার রয়েছে৷ মাঝের অসংখ্য অলিগলিতে সহজেই পথ হারানো যায়৷ ডিডাব্লিউ সাংবাদিক হেন্ডরিক ভেলিং নিজে সেখানে গিয়ে হাঁটাচলা করে বলেন, ‘‘এখানে সবকিছু একই রকম দেখতে লাগছে৷ খালি মনে হবে – আরে, এই পথ তো আমি চিনি! পরে বোঝা যাবে এটা একেবারেই আলাদা এক জায়গা, আলাদা পথ৷ কোথায় যে আছি, সে বিষয়ে আমার কোনো ধারণা নেই৷’’

ভিডিও দেখুন 04:24

ইটালিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় গোলকধাঁধা

‘লাবিরিন্তো দেলা মাসোনে’ নামের এই বাগানের বিন্যাস অত্যন্ত জ্যামিতিক, অনেকটা রোমান আমলের মোজাইকের মতো৷ ফলে সেখানে নিজের অবস্থান বোঝা বেশ কঠিন৷ একই সঙ্গে মনে বিস্ময় ও বিভ্রান্তি কাজ করে৷ তবে বিপদ থেকে উদ্ধারের ব্যবস্থাও রয়েছে৷ সব জায়গায় অবস্থান সংক্রান্ত তথ্য লেখা আছে৷ টেলিফোনে সেটা জানালে এদোয়ার্দো পেপিনো নিজে এসে পথভ্রষ্ট মানুষকে উদ্ধার করেন৷

তিনি এই গোলকধাঁধার প্রধান কর্ণধার৷ তিনিই পথ দেখিয়ে বিশাল এই এস্টেটের কেন্দ্রস্থলে নিয়ে গেলেন৷ সেখানে নব্য ক্লাসিকাল যুগের বেশ কয়েকটি ভবনের সমষ্টি শোভা পাচ্ছে৷ সব যুগেই মানুষ গোলকধাঁধা সম্পর্কে রোমাঞ্চ বোধ করে এসেছে৷ সাহিত্যেও তার উল্লেখ রয়েছে৷ এদোয়ার্দো পেপিনো বলেন, ‘‘ল্যাবিরিন্থ শব্দটির মূল অর্থ কিন্তু অত্যন্ত সিরিয়াস ও গুরুত্বপূর্ণ৷ সেটি আমাদের জীবনের প্রতীক – অর্থাৎ আমাদের সামনে কঠিন বিষয়, জীবনের কঠিন পথ, উদ্ধারের পথ সম্পর্কে আমাদের বিশ্বাস, মোক্ষপ্রাপ্তির আশা৷’’

ইটালির শিল্পের পৃষ্ঠপোষক ফ্রাংকো মারিয়া রিচি জায়গাটি উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিলেন৷ দ্রুতগতির গাড়ির প্রতি তাঁর ভালবাসা ছাড়াও সেখানে তাঁর সম্মিলিত সাহিত্যকর্ম শোভা পাচ্ছে৷ বর্ণাঢ্য বই ছেপে, শিল্প বিষয়ক পত্রিকা সম্পাদনা করে এবং ডিজাইনার হিসেবেও তিনি যথেষ্ট খ্যাতি ও অর্থ উপার্জন করেছেন৷ তাঁর ব্যক্তিগত শিল্প সংগ্রহে পাঁচ দশকের ছবি দেখার সুযোগ পেলে গোলকধাঁধায় হারিয়ে যাবার ক্লান্তি দূর হয়ে যায়৷

ফ্রাংকো মারিয়া রিচি ইতোমধ্যে মারা গেছেন৷ গোলকধাঁধাই তাঁর শেষ বড় প্রকল্প ছিল৷ তাঁর স্ত্রী লাউরা কাসালিস সেই কাজে সঙ্গ দিয়েছিলেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এটা ফ্রাংকোর স্বপ্ন ছিল৷ গত শতাব্দীর আশির দশকে সে একদিন হঠাৎ বিশ্বের সবচেয়ে বড় গোলকধাঁধা তৈরির কথা বলেছিলো৷ তিরিশ বছর পর সে প্রকাশনা সংস্থাটি বিক্রি করে দিল৷ জানেন, সে চিরকালই সবকিছু অন্যভাবে করেছে৷ ফ্রাংকো তার জীবনে সব সময়ে অপ্রত্যাশিত কিছু করেছে৷’’

ইউরোপের সবচেয়ে বড় গোলকধাঁধায় হারিয়ে যাবার মজাই আলাদা!

হেন্ড্রিক ভেলিং/এসবি

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন