ইউরোপে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা বাড়ছে | বিশ্ব | DW | 06.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

করোনা ভাইরাস

ইউরোপে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা বাড়ছে

সংক্রমণের হার বেড়ে চলায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশে আবার কড়া বিধিনিয়ম চালু করা হচ্ছে৷ মাস্ক ও কোয়ারান্টিন সংক্রান্ত কড়াকড়িও বাড়ছে৷ এদিকে ভুয়া দাবিসহ ভিডিও শেয়ার করে তোপের মুখে পড়েছেন ট্রাম্প৷

প্রথম ধাক্কা মোটামুটি সামলে নিলেও ইউরোপে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ‘সেকেন্ড ওয়েভ’ বা দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা বাড়ছে৷ অনেকে মনে করছেন, সেই পর্যায় ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে৷ গ্রীষ্মকালের পর আবহাওয়া শীতল হলে এই মহামারি আরও মারাত্মক আকার ধারণ করবে বলে কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করছেন৷ করোনায় মৃত্যুর হিসেবে ইউরোপ এতকাল বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার তালিকার শীর্ষে ছিল৷ দুই লাখ এগারো হাজারেরও বেশি মানুষ এই মহাদেশে করোনার বলি হয়েছেন৷ মঙ্গলবার ল্যাটিন অ্যামেরিকা তালিকার শীর্ষে চলে গেছে৷


নতুন করে সংক্রমণের হার বাড়ায় ইউরোপের কয়েকটি দেশ আরও কড়া বিধিনিয়ম চালু করেছে৷ মুখ ঢাকার মাস্ক পরা ও কোয়ারান্টিনের ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম কার্যকর করা হচ্ছে৷ গ্রিসে ‘ওয়েক আপ উইক’ কর্মসূচির আওতায় সরকার জনসাধারণকে বিপদ সম্পর্কে আরও সচেতন করার উদ্যোগ নিচ্ছে৷ পরিস্থিতি অনুযায়ী প্রতিদিন নতুন পদক্ষেপ নেবার পরিকল্পনা করছে সে দেশের সরকার৷ ব্রিটেনেও স্থানীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে কড়াকড়ি বাড়ছে৷ যেমন স্কটল্যান্ডের অ্যাবার্ডিন শহরে সব রেস্তোরাঁ বন্ধ রাখা হচ্ছে৷ ফ্রান্সের একাধিক শহরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ চলছে৷ বেলজিয়ানের অ্যান্টওয়ার্প প্রদেশে সংক্রমণের হার বেড়ে চলায় জার্মানি সেই অঞ্চলকে ‘কালো তালিকা’-য় অন্তর্ভুক্ত করেছে৷ অর্থাৎ করোনা ভাইরাস পরীক্ষার নেতিবাচক ফল দেখাতে না পারলে সেখান থেকে কেউ জার্মানিতে প্রবেশ করলে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন মেনে চলতে হবে৷


দক্ষিণ অ্যামেরিকায়ও করোনা মহামারি মারাত্মক আকার ধারণ করছে৷ বিশেষ করে ব্রাজিলে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে৷ প্রায় ২৯ লাখ মানুষ সে দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে৷ মৃতের সংখ্যা ৯৭,০০০-এরও বেশি৷ ফলে গোটা অঞ্চলে মৃতের সংখ্যার প্রায় অর্ধেক ব্রাজিলেই নথিভুক্ত হয়েছে৷ পেরুতেও সংক্রমণের হার দ্রুত বেড়ে চলেছে৷


বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারির তাণ্ডব সত্ত্বেও এই ভাইরাস সম্পর্কে ভুয়া খবরের প্রসার বন্ধ করা যাচ্ছে না৷ খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প এমনই একটি ভিত্তিহীন দাবিসহ ভিডিও শেয়ার করে কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন৷ সেই দাবি অনুযায়ী শিশুরা নাকি করোনা ভাইরাস থেকে ‘প্রায়’ নিরাপদ৷ ফলে ফেসবুক এই প্রথম তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে কোনো কনটেন্ট সরিয়ে দিয়েছে৷ কোম্পানির এক মুখপাত্র সংবাদ সংস্থা এএফপি-কে জানিয়েছেন, যে সেই কোভিড-১৯ সম্পর্কে ক্ষতিকর ভুয়া খবর প্রসার মোকাবিলার নীতির আওতায় এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে৷ টুইটার একই কারণে ট্রাম্পের প্রচার সংক্রান্ত অ্যাকাউন্ট ব্লক করেছে৷ সেই পোস্টে শিশুদের এই বিশেষ ‘ক্ষমতা’ উল্লেখ করে সেপ্টেম্বর মাসে অ্যামেরিকায় সব স্কুল খোলার পক্ষে সওয়াল করা হয়েছিল৷ সেই ভিডিওটি সরিয়ে ফেলার পর ‘টিমট্রাম্প’ অ্যাকাউন্ট আবার সক্রিয় করা হয়৷


এসবি/কেএম (রয়টার্স, এএফপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন