ইউরোপের সব আজব হোটেল | অন্বেষণ | DW | 10.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ইউরোপের সব আজব হোটেল

ইউরোপে নানা ধরনের হোটেল আছে, যেগুলোকে হোটেল বলে চেনার উপায় নেই: কাঠের ঘোড়া থেকে শুরু করে ক্রেনের মাথা কিংবা রুপোর খনি, এমন সব জায়গায় রাত্রিবাস করতে কেমন লাগবে ভাবুন!

ভিডিও দেখুন 03:07

যেসব হোটেল দেখলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন

বাস্তবিক একটি ‘দৈত্যাকার' হোটেল৷ গ্রিক কিংবদন্তির সেই ‘ট্রোজান ঘোড়া' যেন আবার জীবন্ত হয়ে উঠেছে৷ বেলজিয়ামের লিয়েজ শহরের কাছে এই বেড অ্যান্ড ব্রেকফাস্ট হোটেলটির অতিথিরা যেন সবাই ট্রয়ের সৈন্য...

ইউরোপের চমকদার হোটেল পর্যায়ে ‘ট্রোজান ঘোড়া' হোটেলটি পঞ্চম স্থানে৷ আদত ট্রোজান ঘোড়ার পেটে সৈন্যরা এতো আরামে থাকতো কিনা, বলা শক্ত৷

ওপরের জানলা দিয়ে চারদিকের দৃশ্যটা হল এই হোটেলের ‘হাইলাইট'৷ জয়স্টিক দিয়ে আবার ঘোড়ার মাথা উঁচু-নীচু করা যায়৷

ফোর্ট হোটেল

চতুর্থ স্থানে যে হোটেলটি রয়েছে, সেটি দেখলেও প্রথমে হোটেল বলে বোঝবার উপায় নেই৷ ইংল্যান্ডের দক্ষিণ উপকূল থেকে মাইল খানেক দূরে স্পিটব্যাংক ফোর্ট৷ দেড়শ' বছরের পুরনো সামুদ্রিক দুর্গটির ভিতরে কিন্তু বিলাসের কোনো অভাব নেই৷ আগে যেখানে গোলাবারুদ রাখা থাকত, সেখানে আজ অতিথিদের স্বাগত জানানো হয়৷ 

হোটেলের ম্যানেজার ডমিনিক হোন্স শোনালেন, ‘‘এই ঘরটায় আগে কামান বসানো ছিল – সাগরের দিকে তাক করা সাড়ে বারো ইঞ্চির কামান৷ সেই কামানই ঘরটা জুড়ে ছিল৷''

অতিথিরা এখানে রাত কাটাতে আসেন – গোটা ছুটি কাটাতে নয়৷

কনটেনার হোটেল

তৃতীয় স্থানে যে হোটেলটি আছে, সেটিকে পাবেন বালটিক সাগরের ভার্নেম্যুন্ডে শহরের বন্দর এলাকায়: কনটেনারের উপর কনটেনার বসিয়ে তৈরি হোটেল, যেখানে ১৮৮ জন পর্যন্ত অতিথির রাত্রিবাসের ব্যবস্থা আছে৷

তবে ক্লস্ট্রোফোবিয়া থাকলে চলবে না৷ অপরদিকে ১৯ ইউরোতেই এখানে রাত কাটানো যায়, তবে সিঙ্গল রুমে নয়৷

ক্রেন হোটেল

দ্বিতীয় স্থানে, আমস্টারডামের একটি হোটেল, যা বস্তুত একটি সুবিশাল ক্রেন! লিফ্ট দিয়ে ৪৫ মিটার উঠলে তবে ‘রুমে' পা দেওয়া যায়৷ তবে ভিউটা যা পাবেন, তা সারা জীবন ভুলবেন না, এ গ্যারান্টি দেওয়া যেতে পারে৷ একতলা নয়, দু'তলা হোটেল – ঠিক সেখানে, যেখানে আগে ক্রেন চালকের কেবিনটা ছিল৷ গোটা হোটেলটা আজও বাতাসে নড়ে – ভয় পেলে চলবে না কিন্তু!

রুপোর খনিতে হোটেল

এবার আমাদের নাম্বার ওয়ান৷ এই হোটেলটি সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমের দক্ষিণে৷ হোটেল তো নয়, একটি পরিত্যক্ত রুপোর খনি৷ লিফটে চড়ে খনির অতলে নামতে লাগে পাক্কা পাঁচ মিনিট৷ আপনার হোটেল রুমটি হবে মাটির ১৫৫ মিটার নীচে, যেখানে সাধারণত ঘুটঘুটে অন্ধকার আর তাপমাত্রা সাধারণত দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে ওঠে না৷ পাথর কেটে তৈরি ‘হোটেল রুমটিতে কিন্তু হিটিং আছে৷ হঠাৎ ভয় পেলে এক ওপরে টেলিফোন করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই৷ নয়তো রুপোর খনির পরীদের গান শুনতে পারেন...৷

প্রতিবেদন: আন্টিয়ে বিন্ডার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন