ইউরোপের ভবিষ্যৎ নিয়ে মাক্রোঁর প্রস্তাবে মিশ্র সাড়া | বিশ্ব | DW | 06.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউরোপ

ইউরোপের ভবিষ্যৎ নিয়ে মাক্রোঁর প্রস্তাবে মিশ্র সাড়া

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট খোলা চিঠিতে ইউরোপের ভবিষ্যতের যে রূপরেখা তুলে ধরেছেন, তার প্রতি সমর্থন ও বিরোধিতা শোনা যাচ্ছে৷ তবে নতুন ইউরোপ গড়ার আবেগে তেমন সাড়া পাচ্ছেন না মাক্রোঁ৷

ব্রেক্সিট ও ইউরোপীয় পার্লামেন্ট নির্বাচনের আগে সরাসরি ইউরোপের নাগরিকদের কাছে ভবিষ্যৎ চ্যালেঞ্জ ও তার সমাধানসূত্র তুলে ধরেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ৷ ২৮টি সংবাদপত্রে তাঁর সেই খোলা চিঠি প্রকাশিত হয়েছে৷ অনেক ক্ষেত্রে সংস্কারের মাধ্যমে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের নবায়ন নিশ্চিত করতে চান এবং সাধারণ মানুষের ভয়ভীতি ও সমস্যার সুরাহা করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে চান৷

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের সেই আবেদনে সার্বিকভাবে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে৷ তবে সেই প্রতিক্রিয়ার মধ্যে মূলত সৌজন্যবোধ প্রকাশ পাচ্ছে৷ একই রকম আবেগের সঙ্গে ভবিষ্যতের রূপরেখা স্থির করার তাগিদ চোখে পড়ছে না৷ বিশেষ করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অপর চালিকা শক্তি হিসেবে পরিচিত দেশ জার্মানির বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি মাক্রোঁ-র অবস্থান কিছুটা দুর্বল করে দিচ্ছে৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বর্তমান কার্যকালের শেষে চ্যান্সেলর হিসেবে বিদায় নেবার ঘোষণা করায় জার্মানি আপাতত ইউরোপের নেতৃত্ব থেকে কিছুটা পিছিয়ে এসেছে৷ তাই মাক্রোঁর খোলা চিঠির প্রতিক্রিয়া হিসেবে শুধু জার্মানির এক সরকারি মুখপাত্র বয়ান দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভবিষ্যৎ দিশা সম্পর্কে আন্তরিক আলোচনাকে স্বাগত জানাচ্ছে জার্মান সরকার৷ জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস-ও মাক্রোঁ-র প্রস্তাবমালাকে স্বাগত জানিয়েছেন৷

তবে সরকার তেমন উৎসাহ না দেখালেও জার্মানির অনেক রাজনৈতিক নেতা মাক্রোঁ-র প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন৷

ইউরোপীয় পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টুস্ক মাক্রোঁ-র একটি সংস্কারের প্রস্তাব সম্পর্কে উৎসাহ দেখিয়েছেন৷ ইউরোপের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বাইরে থেকে হস্তক্ষেপ ও সাইবার হামলা প্রতিহত করতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইউরোপীয় গণতন্ত্র সুরক্ষা এজেন্সি গড়ে তোলার যে প্রস্তাব রেখেছেন, টুস্ক তার প্রতি সমর্থন জানান৷ তাঁর মতে, বাইরের ইউরোপ-বিরোধী শক্তি ইউরোপের নির্বাচন ও ইউরোপের নেতৃত্বের প্রধান অগ্রাধিকারের উপর প্রভাব রাখবে, এমনটা মেনে নেওয়া হবে না৷

ইউরোপীয় কমিশন মনে করে, ইউরোপের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে বৃহত্তর বিতর্কের ক্ষেত্রে মাক্রোঁ-র প্রস্তাবমালা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে৷ কমিশন অবশ্য দাবি করছে, যে বেশিরভাগ প্রস্তাবই হয় বাস্তবে রূপায়িত হয়েছে বা হচ্ছে৷

ইউরোপপন্থি শক্তি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের উৎসাহ-উদ্দীপনার প্রতি সমর্থন দেখালেও বিশেষ করে ইউরোপের পূর্বাংশে ইউরোপ-বিরোধী শক্তি কড়া প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে৷ চেক প্রজাতন্ত্রের এক সংবাদ ওয়েবসাইটের সূত্র অনুযায়ী সে দেশের প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেই বাবিস মাক্রোঁ-র প্রস্তাবগুলিকে বাস্তব পরিস্থিতি থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হিসেবে সমালোচনা করেন৷

তবে ইউরোপ-বিরোধী শক্তির অন্যতম প্রধান নেতা হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওর্বান বিস্ময়করভাবে মাক্রোঁ-র অবস্থানের প্রতি নীতিগত সমর্থন জানিয়েছেন৷ সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে লেখা এক ইমেল বার্তায় ওর্বান ইউরোপীয় স্তরে আন্তরিক বিতর্কের সূচনাকে স্বাগত জানিয়েছেন৷ তবে মাক্রোঁর খুঁটিনাটি প্রস্তাবগুলি সম্পর্কে মতপার্থক্যের উল্লেখ করেন তিনি৷

ইউরোপের অনেক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞও নীতিগতভাবে  মাক্রোঁ-র অবস্থানের প্রতি সমর্থন জানালেও সেই সব প্রস্তাব বাস্তবায়নের পথ সম্পর্কে অস্পষ্টতার সমালোচনা করেছেন৷ বাম ও দক্ষিণপন্থি ভাবধারা থেকে শুরু করে পরিবেশবাদী সবুজ দলগুলির কিছু অ্যাজেন্ডাও আত্মস্থ করে মাক্রোঁ যে রূপরেখা সৃষ্টি করেছেন, তার প্রতি সব দেশের সমর্থন আদায় করা কঠিন হবে বলে তাঁরা মনে করেন৷

এসবি/জেডএইচ (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন