‘‘ইউরোপের নাম আমাদের পাগল করেছে’’ | বিশ্ব | DW | 20.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘‘ইউরোপের নাম আমাদের পাগল করেছে’’

এভাবেই ডয়চে ভেলের সাংবাদিকদের কাছে নিজের দুর্দশার কথা জানাচ্ছিলেন বসনিয়ায় আটকে পড়া এক বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী৷ কেউ যেন এভাবে বিদেশ আসার চিন্তাও না করে, এমন আহ্বান বসনিয়ার শরণার্থীদের৷

বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীরা ডয়চে ভেলের প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলছেন

বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীরা ডয়চে ভেলের প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলছেন

বসনিয়া-ক্রোয়েশিয়া সীমান্তে আটকে পড়া শত শত বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর খবর সংগ্রহে ডয়চে ভেলে বাংলার দুই সাংবাদিক অনুপম দেব কানুনজ্ঞ এবং আরাফাতুল ইসলাম রয়েছেন বসনিয়ার ভেলিকা ক্লাদুসাতে৷ তাদের কাছেই শরণার্থীরা তুলে ধরেছেন নিজেদের দুঃখের কথা

প্রায় প্রতিদিনই দালালদের মাধ্যমে বসনিয়া-ক্রোয়েশিয়া সীমান্ত পাড়ি দেয়ার জন্য দলে দলে রওয়ানা হন বসনিয়ায় থাকা বিভিন্ন দেশের শরণার্থীরা৷ তারা একে বলেন, ‘গেম মারা’৷ কখনও পায়ে হেঁটে, কখনও বাসে চড়ে, কখনও ট্যাক্সিতে তাদেরকে দালালেরা সীমান্তের আশেপাশে নিয়ে নামিয়ে দেন৷ এরপর তাদের জঙ্গলের মধ্য দিয়ে মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে সীমান্ত পাড়ি দিতে হয়৷

অলিউর রহমান ১৩ তম বারের মতো চেষ্টা করছেন সীমান্ত পাড়ি দেওয়ার৷ বুশি নামের এক পাকিস্তানি দালালের মাধ্যমে বাসে চড়ে তিনি যাবেন ক্রোয়েশিয়া সীমান্তের পাশে কোনো এক জায়গায়৷ সেখান থেকে দুই দিন হেঁটে তারপর তারা পৌঁছাবেন সীমান্তে৷ অলিউর জানান, এরই মধ্যে তিনি দুইবার ক্রোয়েশিয়া পেরিয়ে স্লোভেনিয়াতে পৌঁছালেও, সেখানে ধরা পড়ে আবার ফেরত এসেছেন৷ ফেরত আসার পথে তাকে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে বলেও ডয়চে ভেলের কাছে জানান তিনি৷

কিন্তু তারপরও কেন আবার একই পথে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে অলিউর বলেন, ‘‘এই গেমের জন্য অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে, প্রায় চার লক্ষ টাকা৷ এজন্য যেতেই হবে৷’’
 


 

সবার অবস্থা অবশ্য একরকম না৷ অনেকেই এখন ফেরত যাওয়ার ইচ্ছাও মনে মনে প্রকাশ করছেন৷ কিন্তু এরই মধ্যে প্রায় প্রত্যেকেরই খরচ হয়েছে বড় অঙ্কের টাকা৷

বসনিয়ার ভেলিকা ক্লাদুসাতে আটকেপড়াদের বেশিরভাগই বসনিয়া এসেছেন মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইরান, তুরস্ক, গ্রিস, মেসিডোনিয়া, সার্বিয়া হয়ে৷ অনেকেরই এরই মধ্যে খরচ হয়ে গেছে ১৫-২০ লাখ টাকা৷ কেউ কেউ ভিটে-মাটি বিক্রি বা বন্ধক রেখেও টাকা এনেছেন৷ ফলে দেশে ফিরে এখন চাকরি বা ব্যবসা করে সে ঋণ শোধ করা সম্ভব না বলেও মনে করছেন তারা৷

সিলেটের ছাতক থেকে আসা সাইফুর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, তার বন্ধুরা এর আগে বেশ কয়েকবার ‘গেমে গিয়ে’ ব্যর্থ হয়েছেন, এবং বাজেভাবে আহত হয়ে এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ইউরোপের নামটাই আসলে আমাদের পাগল করেছে, তাই এই পর্যন্ত আসা৷’’

এখন বাংলাদেশে ফেরত যাবেন কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে সাইফুর বলেন, ‘‘আমার এখন পর্যন্ত ১৫ লাখ টাকা খরচ হয়েছে৷ কেউ যদি আমাকে বলে ১০ লাখ টাকা দিয়ে আমার জায়গায় আসবে, আমি পাঁচ লাখ টাকা লস দিয়ে হলেও দেশে চলে যাবো৷’’

যারা বাংলাদেশ বা অন্য যেকোন জায়গায় মোটামুটি পরিবার চালানোর মতো অর্থ উপার্জন করতে পারছেন, তারা যেন ভুলেও এই পথে ইউরোপ যাওয়ার জন্য না আসেন, সে অনুরোধও জানিয়েছেন সাইফুর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন